পিরোজপুরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৯
jugantor
পিরোজপুরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৯

  পিরোজপুর প্রতিনিধি  

১৪ মে ২০২০, ২১:১৩:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে অন্তত ১৯ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন নারীসহ চারজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

বুধবার রাত ৯টার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানান ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল কবির।

তিনি জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিকালের ব্রাহ্মণকাঠি গ্রামের স্বপন সেখের ছেলে শান্ত (২৪) ও হায়দার সেখের ছেলে সুমনের (২৫) সঙ্গে মুক্তারকাঠি গ্রামের কুদ্দুস মীরের ছেলে রানার (২৫) মারামারি হয়। এ ঘটনার জের ধরে রাত ৯টার দিকে ওই দুই গ্রুপের লোকজন লাঠি-সোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে ১৯ জন আহত হয়।

সদর থানার ওসি নুরুল ইসলাম বাদল জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হলে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক তন্ময় মজুমদার জানান, আহতদের মধ্যে অধিকাংশের শরীর ও মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। আহতদের মধ্যে চারজনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

পিরোজপুরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে আহত ১৯

 পিরোজপুর প্রতিনিধি 
১৪ মে ২০২০, ০৯:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে অন্তত ১৯ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন নারীসহ চারজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

বুধবার রাত ৯টার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানান ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল কবির।

তিনি জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিকালের ব্রাহ্মণকাঠি গ্রামের স্বপন সেখের ছেলে শান্ত (২৪) ও হায়দার সেখের ছেলে সুমনের (২৫) সঙ্গে মুক্তারকাঠি গ্রামের কুদ্দুস মীরের ছেলে রানার (২৫) মারামারি হয়। এ ঘটনার জের ধরে রাত ৯টার দিকে ওই দুই গ্রুপের লোকজন লাঠি-সোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে ১৯ জন আহত হয়।

সদর থানার ওসি নুরুল ইসলাম বাদল জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হলে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক তন্ময় মজুমদার জানান, আহতদের মধ্যে অধিকাংশের শরীর ও মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। আহতদের মধ্যে চারজনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন