স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গলায় ফাঁস দিয়ে চিকিৎসাধীন নারীর আত্মহত্যা
jugantor
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গলায় ফাঁস দিয়ে চিকিৎসাধীন নারীর আত্মহত্যা

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

২০ মে ২০২০, ২২:১২:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টয়লেটে গলায় ফাঁস দিয়ে সজনী বেগম (৩৫) নামে চিকিৎসাধীন এক রোগী আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।
সজনী বেগম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার মাঝাপাড়া গ্রামের আব্বাস আলীর স্ত্রী।

হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তৌহিদ আল হাসান জানান, গত সোমবার হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাফিউল আলম নারীটিকে হিলি বাসস্ট্যান্ডে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন।

তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেন তিনি। এরপর দু'দিন ধরে চিকিৎসার পর নারীটি সুস্থ হয়ে ওঠেন।

বুধবার সকালে চিকিৎসাধীন ওই নারী হাসপাতালের টয়লেটের ভেতর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

হাকিমপুর থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক আকন্দ জানান, হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তিনি জানান, তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব না হলে ময়নাতদন্তের পর লাশ আঞ্জুমান মফিদুলে দেয়া হবে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গলায় ফাঁস দিয়ে চিকিৎসাধীন নারীর আত্মহত্যা

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
২০ মে ২০২০, ১০:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টয়লেটে গলায় ফাঁস দিয়ে সজনী বেগম (৩৫) নামে চিকিৎসাধীন এক রোগী আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।
সজনী বেগম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার মাঝাপাড়া গ্রামের আব্বাস আলীর স্ত্রী। 

হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তৌহিদ আল হাসান জানান, গত সোমবার হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাফিউল আলম নারীটিকে হিলি বাসস্ট্যান্ডে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। 

তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেন তিনি। এরপর দু'দিন ধরে চিকিৎসার পর নারীটি সুস্থ হয়ে ওঠেন। 

বুধবার সকালে চিকিৎসাধীন ওই নারী হাসপাতালের টয়লেটের ভেতর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

হাকিমপুর থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক আকন্দ জানান, হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

তিনি জানান, তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব না হলে ময়নাতদন্তের পর লাশ আঞ্জুমান মফিদুলে দেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন