বগুড়ায় যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা
jugantor
বগুড়ায় যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

  বগুড়া ব্যুরো  

২৫ মে ২০২০, ১৪:১৫:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার শিবগঞ্জে ঈদের আগে নারিকেল ও সেমাইয়ের ব্যবসার লাভের টাকা কম দেয়া নিয়ে বিরোধে শামীম হোসেন (৩৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার দেউলী ইউনিয়নের বিহারপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হত্যায় জড়িত থাকায় প্রতিবেশিরা নিহতের ভাই শাহিনুর মিয়া (৪৫) ও ভাতিজা রনি মিয়াকে (২২) আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

নিহত শামীম হোসেন শিবগঞ্জের বিহারপুর গ্রামের আকতার হোসেন ধলুর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শামীম তার বড় ভাই শাহিনুরের সঙ্গে ঈদের আগে কাঁচামালের পাশাপাশি নারিকেল ও সেমাইয়ের ব্যবসা করেন। রোববার বেচাকেনা শেষে দুই ভাই বাড়িতে ফিরে ইফতারের পর লাভের ১০ হাজার টাকা ভাগবাটোয়ারা করেন।

শামীম বেশি নেয়ায় ভাই ও ভাতিজা এর প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও এক পর্যায়ে হাতাহাতি শুরু হয়। তখন ভাতিজা রনি ক্ষিপ্ত হয়ে চাচা শামীমের পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। প্রতিবেশিরা রক্তাক্ত শামীমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

পরে প্রতিবেশিরা হত্যায় জড়িত ভাই শাহিনুর ও ভাতিজা রনিকে আটক করে পুলিশে দেয়। পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে ও লাশ মর্গে পাঠায়।

শিবগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী খায়রুন বেগম থানায় গ্রেফতার দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। সোমবার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

বগুড়ায় যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

 বগুড়া ব্যুরো 
২৫ মে ২০২০, ০২:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার শিবগঞ্জে ঈদের আগে নারিকেল ও সেমাইয়ের ব্যবসার লাভের টাকা কম দেয়া নিয়ে বিরোধে শামীম হোসেন (৩৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার দেউলী ইউনিয়নের বিহারপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হত্যায় জড়িত থাকায় প্রতিবেশিরা নিহতের ভাই শাহিনুর মিয়া (৪৫) ও ভাতিজা রনি মিয়াকে (২২) আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

নিহত শামীম হোসেন শিবগঞ্জের বিহারপুর গ্রামের আকতার হোসেন ধলুর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শামীম তার বড় ভাই শাহিনুরের সঙ্গে ঈদের আগে কাঁচামালের পাশাপাশি নারিকেল ও সেমাইয়ের ব্যবসা করেন। রোববার বেচাকেনা শেষে দুই ভাই বাড়িতে ফিরে ইফতারের পর লাভের ১০ হাজার টাকা ভাগবাটোয়ারা করেন।

শামীম বেশি নেয়ায় ভাই ও ভাতিজা এর প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও এক পর্যায়ে হাতাহাতি শুরু হয়। তখন ভাতিজা রনি ক্ষিপ্ত হয়ে চাচা শামীমের পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। প্রতিবেশিরা রক্তাক্ত শামীমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

পরে প্রতিবেশিরা হত্যায় জড়িত ভাই শাহিনুর ও ভাতিজা রনিকে আটক করে পুলিশে দেয়। পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে ও লাশ মর্গে পাঠায়।

শিবগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী খায়রুন বেগম থানায় গ্রেফতার দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। সোমবার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন