রান্না খারাপ হওয়ায় স্ত্রীকে গাছে বেঁধে গরম রডের ছ্যাঁকা!
jugantor
রান্না খারাপ হওয়ায় স্ত্রীকে গাছে বেঁধে গরম রডের ছ্যাঁকা!

  জয়পুরহাট প্রতিনিধি  

২৮ মে ২০২০, ২৩:৪৬:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

রান্না খারাপ হওয়ার অভিযোগ তুলে শ্বশুর-শাশুড়ির সামনেই খাদিজা খাতুন (২১) নামে এক গৃহবধূকে অমানুষিক নির্যাতন করেছে স্বামী। বাড়ির ভেতরের লিচু গাছের সঙ্গে বেঁধে শরীরের বিভিন্ন স্থানে লোহার রড গরম করে ছ্যাঁকা দিয়েছে স্বামী শাকিল হোসেন।

গৃহবধূর খাদিজা খাতুনের আর্ত চিৎকারে বাড়ির সদর দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন প্রতিবেশীরা।

বুধবার রাতে গৃহবধূ নির্যাতনের এ ঘটনা ঘটেছে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর পৌর এলাকার শ্রীকৃষ্টপুর স্কুলপাড়া মহল্লায়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ স্বামী শাকিল হোসেন ও তার বড় ভাই আসলাম হোসেনকে গ্রেফতার করেছে।

নির্মম নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ খাদিজা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, তিন বছর আগে আমার বিয়ে হয়। আমার বাবা বাড়ি সান্তাহারের লকু কলোনীতে। আমার স্বামী শাকিল হোসেন রাজমিস্ত্রির কাজ করে। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর-শাশুড়ি আমাকে সহ্য করতে পারছিলেন না।

তিনি বলেন, বুধবার রাতে বাড়িতে ফিরে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই রান্না খারাপ হয়েছে বলে আমাকে মারধর করে আমাকে বাড়ির আঙিনায় লিচুর গাছ তলায় নিয়ে যায়। সে লিচুর গাছের সঙ্গে পিটমোড়া দিয়ে আমার হাত বেঁধে ফেলে। তখন আমার শ্বশুর-শাশুড়ি উঠানে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এরপর আমার স্বামী লোহার রড গরম করে আমার দুই গালে, দুই হাতে, পায়ে ছ্যাঁকা দেয়। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে চিৎকার দিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।

এ ব্যাপারে আক্কেলপুর পৌরসভার সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম বলেন, গৃহবধূকে তার স্বামী প্রায় নির্যাতন করত বলে শুনেছি। বুধবার রাতে বাড়ির দরজা বন্ধ করে গৃহবধূকে লিচুর গাছে বেঁধে রেখে শরীরে ছ্যাঁকা দিয়েছে তাঁর স্বামী।

আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নাজমুল হক বলেন, গৃহবধূর দুই গালে, দুই হাতে ও পায়ে ছ্যাঁকা দেয়ার ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। স্বামী এ কাজটি করেছেন বলে গৃহবধূ আমাদের জানিয়েছেন।

গৃহবধূর স্বামী শাকিল হোসেন বলেন, ‘দুই দিন আগে আমার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে এক ছেলে আমার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছিল। আজকে আবার ওই নম্বর থেকে মিসড কল এসেছিল। এ কারণে তাকে লিচুর গাছের সঙ্গে বেঁধে নিড়ানি গরম করে ছ্যাঁকা দিয়েছি’। 

আক্কেলপুর থানার ওসি আবু ওবায়েদ বলেন, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার নির্যাতিত গৃহবধূর বাবা আইয়ুব আলী বাদী হয়ে জামাতা শাকিল হোসেন, শাকিলের বড় ভাই আসলাম হোসেন, বাবা আবদুস সালাম ও মা শেলিনা বেগমকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। শাকিল ও আসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

রান্না খারাপ হওয়ায় স্ত্রীকে গাছে বেঁধে গরম রডের ছ্যাঁকা!

 জয়পুরহাট প্রতিনিধি 
২৮ মে ২০২০, ১১:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রান্না খারাপ হওয়ার অভিযোগ তুলে শ্বশুর-শাশুড়ির সামনেই খাদিজা খাতুন (২১) নামে এক গৃহবধূকে অমানুষিক নির্যাতন করেছে স্বামী। বাড়ির ভেতরের লিচু গাছের সঙ্গে বেঁধে শরীরের বিভিন্ন স্থানে লোহার রড গরম করে ছ্যাঁকা দিয়েছে স্বামী শাকিল হোসেন।

গৃহবধূর খাদিজা খাতুনের আর্ত চিৎকারে বাড়ির সদর দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন প্রতিবেশীরা।

বুধবার রাতে গৃহবধূ নির্যাতনের এ ঘটনা ঘটেছে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর পৌর এলাকার শ্রীকৃষ্টপুর স্কুলপাড়া মহল্লায়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ স্বামী শাকিল হোসেন ও তার বড় ভাই আসলাম হোসেনকে গ্রেফতার করেছে।

নির্মম নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ খাদিজা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, তিন বছর আগে আমার বিয়ে হয়। আমার বাবা বাড়ি সান্তাহারের লকু কলোনীতে। আমার স্বামী শাকিল হোসেন রাজমিস্ত্রির কাজ করে। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর-শাশুড়ি আমাকে সহ্য করতে পারছিলেন না।

তিনি বলেন, বুধবার রাতে বাড়িতে ফিরে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই রান্না খারাপ হয়েছে বলে আমাকে মারধর করে আমাকে বাড়ির আঙিনায় লিচুর গাছ তলায় নিয়ে যায়। সে লিচুর গাছের সঙ্গে পিটমোড়া দিয়ে আমার হাত বেঁধে ফেলে। তখন আমার শ্বশুর-শাশুড়ি উঠানে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এরপর আমার স্বামী লোহার রড গরম করে আমার দুই গালে, দুই হাতে, পায়ে ছ্যাঁকা দেয়। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে চিৎকার দিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।

এ ব্যাপারে আক্কেলপুর পৌরসভার সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম বলেন, গৃহবধূকে তার স্বামী প্রায় নির্যাতন করত বলে শুনেছি। বুধবার রাতে বাড়ির দরজা বন্ধ করে গৃহবধূকে লিচুর গাছে বেঁধে রেখে শরীরে ছ্যাঁকা দিয়েছে তাঁর স্বামী।

আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নাজমুল হক বলেন, গৃহবধূর দুই গালে, দুই হাতে ও পায়ে ছ্যাঁকা দেয়ার ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। স্বামী এ কাজটি করেছেন বলে গৃহবধূ আমাদের জানিয়েছেন।

গৃহবধূর স্বামী শাকিল হোসেন বলেন, ‘দুই দিন আগে আমার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে এক ছেলে আমার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছিল। আজকে আবার ওই নম্বর থেকে মিসড কল এসেছিল। এ কারণে তাকে লিচুর গাছের সঙ্গে বেঁধে নিড়ানি গরম করে ছ্যাঁকা দিয়েছি’।

আক্কেলপুর থানার ওসি আবু ওবায়েদ বলেন, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার নির্যাতিত গৃহবধূর বাবা আইয়ুব আলী বাদী হয়ে জামাতা শাকিল হোসেন, শাকিলের বড় ভাই আসলাম হোসেন, বাবা আবদুস সালাম ও মা শেলিনা বেগমকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। শাকিল ও আসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন