ভাণ্ডারিয়ায় এসএসসিতে জিপিএ-৫ না পেয়ে পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা
jugantor
ভাণ্ডারিয়ায় এসএসসিতে জিপিএ-৫ না পেয়ে পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

  ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

০১ জুন ২০২০, ২৩:২৮:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ না পেয়ে মনকষ্টে আরিফা আক্তার (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। রোববার দিনগত গভীর রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু ঘটে।

আরিফা উপজেলার রাজপাশা গ্রামের আনিস হাওলাদারের মেয়ে। সে স্থানীয় রাজপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় হতে মানবিক বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল।

হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্কুল ছাত্রী আরিফা মানবিক বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। ফলাফল প্রকাশিত হলে সে ৩.৫০ পয়েন্ট পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। তবে সে পরীক্ষায় আরও ভালো ফলাফল (জিপিএ-৫) আশা করেছিল।

ফলাফল সন্তোষজনক না হওয়ায় সে মনকষ্টে রোববার দুপুরে কীটনাশক পান করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরিবারের লোকজন তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসায় কিছুটা সুস্থ হলে তাকে স্বজনরা বাড়িতে নিয়ে যান। পরে রাত ৯টার দিকে আরিফা বাড়িতে বসে আবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারের লোকজন তাকে পুনরায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্কুল ছাত্রী আরিফার মা শারমীন বেগম জানান, তার মেয়ে লেখাপড়ায় ভালো ছিল। পরীক্ষায় সে উত্তীর্ণ হয়েছে। কিন্তু ফলাফল তার আশানুরূপ না হওয়া মনকষ্টে বিষ পান করেছে।

আরিফার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত বলেন, আরিফা লেখাপড়ায় ভালো ছিল। তার ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ার কথা ছিল। বিষয়টি বেদনাদায়ক।

ভাণ্ডারিয়ায় এসএসসিতে জিপিএ-৫ না পেয়ে পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

 ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
০১ জুন ২০২০, ১১:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ না পেয়ে মনকষ্টে আরিফা আক্তার (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। রোববার দিনগত গভীর রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু ঘটে।
 
আরিফা উপজেলার রাজপাশা গ্রামের আনিস হাওলাদারের মেয়ে। সে স্থানীয় রাজপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় হতে মানবিক বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিল।

হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্কুল ছাত্রী আরিফা মানবিক বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। ফলাফল প্রকাশিত হলে সে ৩.৫০ পয়েন্ট পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। তবে সে পরীক্ষায় আরও ভালো ফলাফল (জিপিএ-৫) আশা করেছিল।

ফলাফল সন্তোষজনক না হওয়ায় সে মনকষ্টে রোববার দুপুরে কীটনাশক পান করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরিবারের লোকজন তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসায় কিছুটা সুস্থ হলে তাকে স্বজনরা বাড়িতে নিয়ে যান। পরে রাত ৯টার দিকে আরিফা বাড়িতে বসে আবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারের লোকজন তাকে পুনরায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্কুল ছাত্রী আরিফার মা শারমীন বেগম জানান, তার মেয়ে লেখাপড়ায় ভালো ছিল। পরীক্ষায় সে উত্তীর্ণ হয়েছে। কিন্তু ফলাফল তার আশানুরূপ না হওয়া মনকষ্টে বিষ পান করেছে।

আরিফার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত বলেন, আরিফা লেখাপড়ায় ভালো ছিল। তার ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ার কথা ছিল। বিষয়টি বেদনাদায়ক।

 

ঘটনাপ্রবাহ : এসএসসি পরীক্ষা-২০২০

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন