নরসিংদীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদকের মায়ের দাফন
jugantor
নরসিংদীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদকের মায়ের দাফন

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

০৪ জুন ২০২০, ২০:১১:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিনের মা এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের সিইও নঈম নিজামের শাশুড়ি জাহানারা হোসেনের জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় মরহুমার নিজ জেলা নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।এ সময় মরহুমার পারিবারিক লোকজন ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

রত্নগর্ভা মা জাহানারা হোসেন বুধবার দিবাগত রাত ১২টার পর রাজধানীর পপুলার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান (ইন্নালিল্লাহি... রাজিউন)। তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

কর্মজীবনে সফল ও উচ্চ শিক্ষিত সন্তানদের মা হিসেবে মরহুমা জাহানারা হোসেন ২০১৮ সালে রত্নগর্ভা মায়ের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন। তার ৫ মেয়ে ও ৪ ছেলে সবাই নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে সফল ও প্রতিষ্ঠিত। মৃত্যুকালে তিনি সন্তান, নাতি-নাতনি, আত্মীয়-স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

নরসিংদীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদকের মায়ের দাফন

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
০৪ জুন ২০২০, ০৮:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিনের মা এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের সিইও নঈম নিজামের শাশুড়ি জাহানারা হোসেনের জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় মরহুমার নিজ জেলা নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।এ সময় মরহুমার পারিবারিক লোকজন ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

রত্নগর্ভা মা জাহানারা হোসেন বুধবার দিবাগত রাত ১২টার পর রাজধানীর পপুলার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান (ইন্নালিল্লাহি... রাজিউন)। তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

কর্মজীবনে সফল ও উচ্চ শিক্ষিত সন্তানদের মা হিসেবে মরহুমা জাহানারা হোসেন ২০১৮ সালে রত্নগর্ভা মায়ের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন। তার ৫ মেয়ে ও ৪ ছেলে সবাই নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে সফল ও প্রতিষ্ঠিত। মৃত্যুকালে তিনি সন্তান, নাতি-নাতনি, আত্মীয়-স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।