যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর মেধাবী তাহসিনের মুখে হাসি

  চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি ০৪ জুন ২০২০, ২২:৪৯:৩৮ | অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে সেলাইয়ের কাজ করে এসএসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাওয়া এতিম নুজহাত তাহসিন মায়েদার পাশে দাঁড়িয়েছেন টেক্সজেন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ আবদুস ছালাম।

তাহসিন চৌহালী উপজেলার মেহের-উন-নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে।

‘দর্জির কাজ করা তাহসিনের চমক’ শিরোনামে বৃহস্পতিবার যুগান্তরে একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হলে তা বিকেএমইর সাবেক পরিচালক শেখ আবদুস ছালামের নজরে আসে। পরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাও. আবদুল আউয়াল ও যুগান্তর প্রতিনিধি রফিক মোল্লাকে তার আগ্রহের কথা জানান।

এ সময় তিনি বলেন, অদম্য মেধাবী এতিম তাহসিনের ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ত পড়াশোনার যাবতীয় খরচ আমার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে বহন করা হবে। এছাড়া ওই ছাত্রীকে ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করাতে সার্বিকভাবে পাশে থাকার ঘোষণা দেন তিনি।

এ খবর শুনে তাহসিনের মা আমেনা খাতুন খুশিতে কেঁদে ফেলেন। এতিম মেয়ের উজ্জল ভবিষ্যতের জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেন। এ সময় শেখ আবদুস ছালাম ও যুগান্তর পত্রিকার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

এ ব্যাপারে এনায়েতপুর মেহের-উন-নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাও. আবদুল আউয়াল বলেন, পিতৃহারা তাহসিন ছোট বেলা থেকেই মেধাবী। ৫ম ও ৮ম শ্রেণিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছিল। এসএসসিতেও জিপিএ-৫ পেয়েছে। তার অদম্য মেধা ও সাহসিকতার কথা যুগান্তর পত্রিকায় তুলে ধরায় মানবিক শিল্পপতি শেখ আবদুস ছালাম ওই মেয়ের পাশে দাঁড়িয়েছে।

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেওয়ান মওদুদ আহমেদ বলেন, যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর মেধাবী ছাত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে ওই গার্মেন্ট ব্যবসায়ী মানবতার একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত