মসজিদে প্রবেশের সময় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
jugantor
মসজিদে প্রবেশের সময় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

  বগুড়া ব্যুরো  

০৫ জুন ২০২০, ১৯:৫৬:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় মসজিদে প্রবেশের সময় মাথায় কুড়ালের আঘাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টারকে (৩৫) হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালা মোড়ে মোটরসাইকেলে আসা দুর্বৃত্তরা এ হামলা চালায়।

নিহত মিস্টার শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালার আরমান হোসেন ড্রাইভারের ছেলে। তিনি জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি চারটি হত্যাসহ ৯ মামলার আসামি ছিলেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, মিস্টার প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজের আগে মসজিদে গিয়ে কোরআন তেলাওয়াত করেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি বাড়ি থেকে শাকপালা বাসস্ট্যান্ডে বাইতুস সালাম জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায়ের জন্য যাচ্ছিলেন।

মসজিদের গেটে পৌঁছলে আশপাশে লুকিয়ে থাকা মোটরসাইকেলে আসা দুর্বৃত্তরা কুড়াল দিয়ে তার মাথায় এলোপাতাড়ি আঘাত করে। এরপর কুড়াল ফেলে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা রক্তাক্ত মিস্টারকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। কিছুক্ষণ পর অপারেশন থিয়েটারে তার মৃত্যু হয়।

বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দফতর সম্পাদক মশিউর রহমান জানান, আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টার তার সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

এলাকাবাসীরা জানান, মিস্টার বগুড়া পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে গত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী জানান, মিস্টারের বিরুদ্ধে চারটি হত্যাসহ ৯টি মামলা রয়েছে। প্রাথমিভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব কোনো বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা পরিকল্পিতভাবে তাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। কয়েকটি বিষয় সামনে রেখে তদন্ত চলছে। এ ছাড়া হামলাকারীদের গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে রয়েছে।

মসজিদে প্রবেশের সময় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

 বগুড়া ব্যুরো 
০৫ জুন ২০২০, ০৭:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় মসজিদে প্রবেশের সময় মাথায় কুড়ালের আঘাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টারকে (৩৫) হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। 

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালা মোড়ে মোটরসাইকেলে আসা দুর্বৃত্তরা এ হামলা চালায়। 

নিহত মিস্টার শাজাহানপুর উপজেলার শাকপালার আরমান হোসেন ড্রাইভারের ছেলে। তিনি জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি চারটি হত্যাসহ ৯ মামলার আসামি ছিলেন। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, মিস্টার প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজের আগে মসজিদে গিয়ে কোরআন তেলাওয়াত করেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি বাড়ি থেকে শাকপালা বাসস্ট্যান্ডে বাইতুস সালাম জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায়ের জন্য যাচ্ছিলেন। 

মসজিদের গেটে পৌঁছলে আশপাশে লুকিয়ে থাকা মোটরসাইকেলে আসা দুর্বৃত্তরা কুড়াল দিয়ে তার মাথায় এলোপাতাড়ি আঘাত করে। এরপর কুড়াল ফেলে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা রক্তাক্ত মিস্টারকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। কিছুক্ষণ পর অপারেশন থিয়েটারে তার মৃত্যু হয়।

বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দফতর সম্পাদক মশিউর রহমান জানান, আবু হানিফ প্রামাণিক মিস্টার তার সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। 

এলাকাবাসীরা জানান, মিস্টার বগুড়া পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে গত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। 

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী জানান, মিস্টারের বিরুদ্ধে চারটি হত্যাসহ ৯টি মামলা রয়েছে। প্রাথমিভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব কোনো বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা পরিকল্পিতভাবে তাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। কয়েকটি বিষয় সামনে রেখে তদন্ত চলছে। এ ছাড়া হামলাকারীদের গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে রয়েছে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন