বরগুনায় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করবেন ডিসি
jugantor
বরগুনায় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করবেন ডিসি

  যুগান্তর রিপোর্ট, বরগুনা  

০৯ জুন ২০২০, ২০:১৫:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনা জেলার ১০০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার আলোকে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা নামক প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন হবে বুধবার সকালে। বরগুনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করবেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা সম্পর্কে জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, উপকূলীয় জেলা বরগুনার রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। এ জেলায় রয়েছে নবম সেক্টরাধীন বুকাবুনিয়া সাব-সেক্টর। যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে হয়তো একদিন বিস্মৃত হয়ে যেত মুক্তিযুদ্ধের বর্ণিল ঘটনা। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার আলোক রচিত ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা’ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুজিববর্ষের অনন্য উপহার।

তিনি বলেন, এই স্মৃতিকথা বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিকট বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মহান আত্মত্যাগের চিত্র তুলে ধরবে। মহান মুক্তিযুদ্ধের অকাট্য দলিল হিসেবে সমৃদ্ধ করবে বাংলাদেশের ইতিহাস মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সহায়ক হবে।

মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ও বইটির সম্পাদক চিত্তরঞ্জন শীল বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত ও রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের কারণে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা স্মৃতি হারিয়ে যেতে বসেছিল। যে রক্তের ঋণে আবদ্ধ এই বাংলাদেশ তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্যই জেলা প্রশাসনের এই মহতী উদ্যোগ। এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধারা আবারও ফিরে গিয়েছেন ১৯৭১-এর যুদ্ধকালীন দিনগুলোর কাছে।

বরগুনায় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করবেন ডিসি

 যুগান্তর রিপোর্ট, বরগুনা 
০৯ জুন ২০২০, ০৮:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনা জেলার ১০০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার আলোকে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা নামক প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন হবে বুধবার সকালে। বরগুনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করবেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা সম্পর্কে জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, উপকূলীয় জেলা বরগুনার রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। এ জেলায় রয়েছে নবম সেক্টরাধীন বুকাবুনিয়া সাব-সেক্টর। যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে হয়তো একদিন বিস্মৃত হয়ে যেত মুক্তিযুদ্ধের বর্ণিল ঘটনা। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার আলোক রচিত ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা’ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুজিববর্ষের অনন্য উপহার।

তিনি বলেন, এই স্মৃতিকথা বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিকট বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মহান আত্মত্যাগের চিত্র তুলে ধরবে। মহান মুক্তিযুদ্ধের অকাট্য দলিল হিসেবে সমৃদ্ধ করবে বাংলাদেশের ইতিহাস মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সহায়ক হবে।

মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ও বইটির সম্পাদক চিত্তরঞ্জন শীল বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত ও রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের কারণে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা স্মৃতি হারিয়ে যেতে বসেছিল। যে রক্তের ঋণে আবদ্ধ এই বাংলাদেশ তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্যই জেলা প্রশাসনের এই মহতী উদ্যোগ। এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধারা আবারও ফিরে গিয়েছেন ১৯৭১-এর যুদ্ধকালীন দিনগুলোর কাছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন