নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু
jugantor
নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

  মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

১৩ জুন ২০২০, ১২:৫১:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় হাসপাতালে রোগী দেখতে গিয়ে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আহত এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম যুবক সুমন মিয়া (২৫)।

শনিবার ভোর ৪টার দিকে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে তার মৃত্যু হয়।

নিহত সুমন নেত্রকোনার মদন উপজেলার বালালী গ্রামের মৃত সবুজ মিয়ার ছেলে।

জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে সুমন প্রতিপক্ষের হামলায় আহত বৃদ্ধা খালা রুপচান বেগমকে দেখতে মদন হাসপাতালে যান। এসময় সেখানে বিরোধী পক্ষ সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে এলোপাতাড়িভাবে ছুড়িকাঘাত করে তাকে আহত করে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সেখানেই চিকিৎসাধীন থেকে শনিবার ভোর ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

মদন থানার ওসি রমিজুল হক জানান, হামলায় আহত সুমন চিকিৎসাধীন থেকে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা গেছেন। শুক্রবার হামলার ঘটনায় সুমনের ভাই পলাশ বাদী হয়ে মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

হামলায় জড়িত থাকায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দায়ের করা ওই মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হবে বলে জানান ওসি।

উল্লেখ্য, উপজেলার বালালী গ্রামে পূর্ব শত্রু তার জের ধরে একই গ্রামের আবদুল গণি বেচুকে দৌলতপুর কালিবাড়ি মোড়ে প্রতিপক্ষের লোকজন মারপিট করে।

পরে আবদুল গণি বেচু মিয়ার লোকজন ইউপি সদস্য রিয়াজ আহমেদ সোহেলের বৃদ্ধ মায়ের হাত ও আঙুল ভেঙে দেয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সোহেলের খালাতো ভাই সুমন খালাকে মদন হাসপাতালে দেখতে এলে এ ঘটনা ঘটে।

নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

 মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
১৩ জুন ২০২০, ১২:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নেত্রকোনায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু
ফাইল ছবি

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় হাসপাতালে রোগী দেখতে গিয়ে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আহত এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম যুবক সুমন মিয়া (২৫)।

শনিবার ভোর ৪টার দিকে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে তার মৃত্যু হয়।

নিহত সুমন নেত্রকোনার মদন উপজেলার বালালী গ্রামের মৃত সবুজ মিয়ার ছেলে। 

জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে সুমন প্রতিপক্ষের হামলায় আহত বৃদ্ধা খালা রুপচান বেগমকে দেখতে মদন হাসপাতালে যান। এসময় সেখানে বিরোধী পক্ষ সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে এলোপাতাড়িভাবে ছুড়িকাঘাত করে তাকে আহত করে। 

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। 

সেখানেই চিকিৎসাধীন থেকে শনিবার ভোর ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়। 

মদন থানার ওসি রমিজুল হক জানান, হামলায় আহত সুমন চিকিৎসাধীন থেকে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা গেছেন। শুক্রবার হামলার ঘটনায় সুমনের ভাই পলাশ বাদী হয়ে মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। 

হামলায় জড়িত থাকায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দায়ের করা ওই মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হবে বলে জানান ওসি।

উল্লেখ্য, উপজেলার বালালী গ্রামে পূর্ব শত্রু তার জের ধরে একই গ্রামের আবদুল গণি বেচুকে দৌলতপুর কালিবাড়ি মোড়ে প্রতিপক্ষের লোকজন মারপিট করে। 

পরে আবদুল গণি বেচু মিয়ার লোকজন ইউপি সদস্য রিয়াজ আহমেদ সোহেলের বৃদ্ধ মায়ের হাত ও আঙুল ভেঙে দেয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সোহেলের খালাতো ভাই সুমন খালাকে মদন হাসপাতালে দেখতে এলে এ ঘটনা ঘটে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন