মদনে স্বামীর ঘরে গৃহবধূর লাশ
jugantor
মদনে স্বামীর ঘরে গৃহবধূর লাশ

  মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

১৪ জুন ২০২০, ১৮:১০:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার মদনে শাহিনূর আক্তার পান্না (২৬) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সকালে উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নে গোবিন্দশ্রী গ্রামের (পশ্চিমপাড়া) স্বামীর ঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ দিকে শাহিনূর আক্তার পান্নার স্বামী বিজিবি সদস্য ওমর সানি লিংকনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। ওমর সানী লিংকন গোবিন্দশ্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের (অব.) শিক্ষক আলতাব মাস্টারের ছেলে।

স্বামীর পরিবারের সদস্যরা জানায়, রোববার খবর পেয়েছি নিজ ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন পান্না। মেয়ের ভাইয়ের দাবি পারিবারিক কলহে পরিকল্পিত হত্যা করা হয়েছে তার বোনকে। পান্না নিঃসন্তান ছিল।

শাহিনুর আক্তার পান্নার ভাই কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের সরাপাড়া গ্রামের মাহফুজ আলম মমিন জানান, ২০১৪ সালে মো. ওমর সানি লিংকনের সঙ্গে তার বোনের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ৫ লাখ টাকা যৌতুক ও ৪ ভরি স্বর্ণালংকার দেয়া হয়ে ছিল। তবে তার আরেক মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় আমার বোনকে প্রায়ই নির্যাতন করত ও আরও যৌতুক দেয়ার জন্য চাপ দিত। ফলে তার বোন বেশি সময় তাদের বাড়িতে থাকত।

তিনি জানান, কয়েকদিন আগে ছুটিতে আসার পর শুক্রবার তার স্বামীর সঙ্গে শ্বশুর বাড়িতে যায়। শনিবার রাত ৯টার দিকে মায়ের সঙ্গে তার বোন মোবাইল ফোনে কথা বলতে চেয়ে ছিল। পরে লিংকন মোবাইলটি কেড়ে নিয়ে যায়। এর পর থেকেই মোবাইল বন্ধ থাকে। শনিবার সকালে খবর শুনি পান্না গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তার বোনকে লিংকন, তার মা ও বোন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে মদন থানার ওসি মো. রমিজুল হক জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তার স্বামী ওমর সানী লিংকনকে জিজ্ঞাসাবদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মদনে স্বামীর ঘরে গৃহবধূর লাশ

 মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
১৪ জুন ২০২০, ০৬:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার মদনে শাহিনূর আক্তার পান্না (২৬) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সকালে উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নে গোবিন্দশ্রী গ্রামের (পশ্চিমপাড়া) স্বামীর ঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ দিকে শাহিনূর আক্তার পান্নার স্বামী বিজিবি সদস্য ওমর সানি লিংকনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। ওমর সানী লিংকন গোবিন্দশ্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের (অব.) শিক্ষক আলতাব মাস্টারের ছেলে।

স্বামীর পরিবারের  সদস্যরা জানায়, রোববার খবর পেয়েছি নিজ ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন পান্না। মেয়ের ভাইয়ের দাবি পারিবারিক কলহে পরিকল্পিত হত্যা করা হয়েছে তার বোনকে। পান্না নিঃসন্তান ছিল। 

শাহিনুর আক্তার পান্নার ভাই কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের সরাপাড়া গ্রামের মাহফুজ আলম মমিন জানান, ২০১৪ সালে মো. ওমর সানি লিংকনের সঙ্গে তার বোনের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ৫ লাখ টাকা যৌতুক ও ৪ ভরি স্বর্ণালংকার দেয়া হয়ে ছিল। তবে তার আরেক মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় আমার বোনকে প্রায়ই নির্যাতন করত ও আরও যৌতুক দেয়ার জন্য চাপ দিত। ফলে তার বোন বেশি সময় তাদের বাড়িতে থাকত।  

তিনি জানান, কয়েকদিন আগে ছুটিতে আসার পর শুক্রবার তার স্বামীর সঙ্গে শ্বশুর বাড়িতে যায়। শনিবার রাত ৯টার দিকে মায়ের সঙ্গে তার বোন মোবাইল ফোনে কথা বলতে চেয়ে ছিল। পরে লিংকন মোবাইলটি কেড়ে নিয়ে যায়। এর পর থেকেই মোবাইল বন্ধ থাকে। শনিবার সকালে খবর শুনি পান্না গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তার বোনকে লিংকন, তার মা ও বোন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে মদন থানার ওসি মো. রমিজুল হক জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তার স্বামী ওমর সানী লিংকনকে জিজ্ঞাসাবদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন