কুমিল্লায় ৪০ পরিবারকে নির্যাতনের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে
jugantor
কুমিল্লায় ৪০ পরিবারকে নির্যাতনের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে

  কুমিল্লা ব্যুরো   

২০ জুন ২০২০, ২২:৪৯:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় ইকবাল মাহমুদ নামে এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে এলাকার ৪০টি পরিবারের উপর হামলা এবং নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

দীর্ঘদিন যাবৎ দলীয় প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে ওই যুবলীগ নেতা এলাকার নিরীহ মানুষকে জিম্মি করে মামলা-হামলাসহ নানাভাবে নির্যাতন করে আসছে বলে অভিযোগ করা হয়।

ইকবাল মাহমুদ জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার ১১নং বিপুলাসার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। শনিবার বিকালে নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় ভুক্তভোগী ১১টি পরিবারের উপস্থিতিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ সব অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন একই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান পাটোয়ারী।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, যুবলীগ নেতা ইকবাল মাহমুদ দলীয় পদের অপব্যবহার করে আওয়ামী লীগ-যুবলীগ নেতাকর্মীসহ এলাকার নিরীহ লোকজনের উপর হামলা, মারধর, বাড়ি-ঘর ভাংচুরসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছেন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয় উদ্বোধনের সময় শাহজাহান পাটোয়ারীর উপর হামলা চালানো হয় বলেও অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি আজাদ হোসেন জানান, যুবলীগ নেতা ইকবাল তাকে একাধিকবার হত্যার হুমকি দেয়। পরে ইকবালের লোকজন তাকে মারধর করে পা ভেঙে দেয়।

যুবলীগ নেতা ও প্রবাসী নজরুল ইসলাম জানান, কিছুদিন আগে ইকবাল গভীর রাতে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে মারধর করে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।

এ ছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থেকে ইকবাল ও তার সহযোগীদের দ্বারা নির্যাতনের বিষয় তুলে ধরেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গাজী সালাহ উদ্দিন, একই গ্রামের সেলিম গাজী, নুর আলম, নুর হোসেন ও মো. সুজন। ভুক্তভোগী এ সব পরিবার অবিলম্বে ইকবাল মাহমুদকে দল থেকে বহিষ্কারসহ তাকে গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানায়।

তবে এ সব অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ নেতা ইকবাল মাহমুদ জানান, তার বিরুদ্ধে আনীত এ সব অভিযোগ ভিত্তিহীন। তিনি বলেন, এত অভিযোগ থাকলে তা ভুক্তভোগীরা দলের হাইকমান্ডকে জানাতে পারত। দলের ভেতরের একটি চক্র তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার এবং ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বলে তিনি দাবি করেন।

কুমিল্লায় ৪০ পরিবারকে নির্যাতনের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে

 কুমিল্লা ব্যুরো  
২০ জুন ২০২০, ১০:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় ইকবাল মাহমুদ নামে এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে এলাকার ৪০টি পরিবারের উপর হামলা এবং নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। 

দীর্ঘদিন যাবৎ দলীয় প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে ওই যুবলীগ নেতা এলাকার নিরীহ মানুষকে জিম্মি করে মামলা-হামলাসহ নানাভাবে নির্যাতন করে আসছে বলে অভিযোগ করা হয়। 

ইকবাল মাহমুদ জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার ১১নং বিপুলাসার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। শনিবার বিকালে নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় ভুক্তভোগী ১১টি পরিবারের উপস্থিতিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ সব অভিযোগ করা হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন একই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান পাটোয়ারী।  

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, যুবলীগ নেতা ইকবাল মাহমুদ দলীয় পদের অপব্যবহার করে আওয়ামী লীগ-যুবলীগ নেতাকর্মীসহ এলাকার নিরীহ লোকজনের উপর হামলা, মারধর, বাড়ি-ঘর ভাংচুরসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছেন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয় উদ্বোধনের সময় শাহজাহান পাটোয়ারীর উপর হামলা চালানো হয় বলেও অভিযোগ করা হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি আজাদ হোসেন জানান, যুবলীগ নেতা ইকবাল তাকে একাধিকবার হত্যার হুমকি দেয়। পরে ইকবালের লোকজন তাকে মারধর করে পা ভেঙে দেয়। 

যুবলীগ নেতা ও প্রবাসী নজরুল ইসলাম জানান, কিছুদিন আগে ইকবাল গভীর রাতে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে মারধর করে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। 

এ ছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থেকে ইকবাল ও তার সহযোগীদের দ্বারা নির্যাতনের বিষয় তুলে ধরেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গাজী সালাহ উদ্দিন, একই গ্রামের সেলিম গাজী, নুর আলম, নুর হোসেন ও মো. সুজন। ভুক্তভোগী এ সব পরিবার অবিলম্বে ইকবাল মাহমুদকে দল থেকে বহিষ্কারসহ তাকে গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানায়।  

তবে এ সব অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ নেতা ইকবাল মাহমুদ জানান, তার বিরুদ্ধে আনীত এ সব অভিযোগ ভিত্তিহীন। তিনি বলেন, এত অভিযোগ থাকলে তা ভুক্তভোগীরা দলের হাইকমান্ডকে জানাতে পারত। দলের ভেতরের একটি চক্র তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার এবং ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বলে তিনি দাবি করেন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন