নাশকতার মামলায় এমপির কথিত এপিএস কারাগারে
jugantor
নাশকতার মামলায় এমপির কথিত এপিএস কারাগারে

  যশোর ব্যুরো  

২১ জুন ২০২০, ২২:৩৮:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরের ঝিকরগাছায় এমপির কথিত একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী (এপিএস) ৯টি নাশকতা ও বিস্ফোরক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি শিবির নেতা রাজিব হাসান রাজুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে যশোর-বেনাপোল সড়কের লাউজানি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে আদালতে হাজির করলে সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল জজ আদালতের বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রাজিব হাসান রাজু ঝিকরগাছা উপজেলার লক্ষ্মীপুর লাউজানি গ্রামের আহসান আলীর ছেলে। তিনি এক সময় শিবিরের সক্রিয় সদস্য ছিলেন। তিনি নিজেকে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. নাসির উদ্দিনের এপিএস পরিচয় দিতেন।

এ প্রসঙ্গে যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনের এমপি মেজর জেনারেল (অব.) অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন বলেন, আমার কোনো এপিএস নেই। সরকারিভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত পিএ এহসানুল হক। এমপিদের এপিএস থাকার সুযোগ নেই। আমাদের কাছে (এমপি) নানা কাজে অনেকেই আসে। কেউ কেউ নাম ভাঙাতে পারে। এমন কারো বিষয়ে অভিযোগ পেলে ওসিকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলেছি। তার সঙ্গে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

ঝিকরগাছা থানার ওসি আবদুর রাজ্জাক জানান, রোববার সকাল ৯টার দিকে লাউজানি এলাকা থেকে ৯টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি রাজিব হাসান রাজুকে আটক করা হয়েছে। নাশকতা ও বিস্ফোরক মামলার আসামি তিনি। তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে আবদুর রাজ্জাক বলেন, এমপি সাহেবের এপিএস হওয়ার সুযোগ নেই। তবে তিনি পরিচয় দিতেন কিনা জানা নেই। এমপি সাহেবের পিএ একজনকেই চিনি।

অভিযোগ রয়েছে, রাজিব হাসান রাজু ছাত্রশিবিরের সাবেক নেতা। সম্প্রতি তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে গা-ভাসান। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) ডাক্তার নাসির উদ্দীনের এপিএস পরিচয় দিয়ে নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েন। তার বিরুদ্ধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগের নামে মোটা অংকের অর্থবাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলির জন্য এমপির নাম ভাঙিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগও আছে।

নাশকতার মামলায় এমপির কথিত এপিএস কারাগারে

 যশোর ব্যুরো 
২১ জুন ২০২০, ১০:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরের ঝিকরগাছায় এমপির কথিত একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী (এপিএস) ৯টি নাশকতা ও বিস্ফোরক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি শিবির নেতা রাজিব হাসান রাজুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে যশোর-বেনাপোল সড়কের লাউজানি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে আদালতে হাজির করলে সিনিয়র স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল জজ আদালতের বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রাজিব হাসান রাজু ঝিকরগাছা উপজেলার লক্ষ্মীপুর লাউজানি গ্রামের আহসান আলীর ছেলে। তিনি এক সময় শিবিরের সক্রিয় সদস্য ছিলেন। তিনি নিজেকে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. নাসির উদ্দিনের এপিএস পরিচয় দিতেন।

এ প্রসঙ্গে যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনের এমপি মেজর জেনারেল (অব.) অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন বলেন, আমার কোনো এপিএস নেই। সরকারিভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত পিএ এহসানুল হক। এমপিদের এপিএস থাকার সুযোগ নেই। আমাদের কাছে (এমপি) নানা কাজে অনেকেই আসে। কেউ কেউ নাম ভাঙাতে পারে। এমন কারো বিষয়ে অভিযোগ পেলে ওসিকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলেছি। তার সঙ্গে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

ঝিকরগাছা থানার ওসি আবদুর রাজ্জাক জানান, রোববার সকাল ৯টার দিকে লাউজানি এলাকা থেকে ৯টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি রাজিব হাসান রাজুকে আটক করা হয়েছে। নাশকতা ও বিস্ফোরক মামলার আসামি তিনি। তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে আবদুর রাজ্জাক বলেন, এমপি সাহেবের এপিএস হওয়ার সুযোগ নেই। তবে তিনি পরিচয় দিতেন কিনা জানা নেই। এমপি সাহেবের পিএ একজনকেই চিনি।

অভিযোগ রয়েছে, রাজিব হাসান রাজু ছাত্রশিবিরের সাবেক নেতা। সম্প্রতি তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে গা-ভাসান। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) ডাক্তার নাসির উদ্দীনের এপিএস পরিচয় দিয়ে নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েন। তার বিরুদ্ধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগের নামে মোটা অংকের অর্থবাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলির জন্য এমপির নাম ভাঙিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগও আছে।