নিখোঁজের তিন দিন পর সৌদি প্রবাসীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
jugantor
নিখোঁজের তিন দিন পর সৌদি প্রবাসীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

  গাজীপুর ও টঙ্গী প্রতিনিধি  

২৯ জুন ২০২০, ১৯:১৬:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের টঙ্গীতে সোমবার দুপুরে মহাসড়কের পাশ থেকে ইউনুস মুন্সি (৪৫) নামে এক প্রবাসীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার বাড়ি শরিয়তপুর জেলার সফিপুর থানার বড়কান্দা গ্রামে। তার পিতার নাম সফিক মুন্সি।

জানা গেছে, সফিক গত ৩ মার্চ সস্ত্রীক টঙ্গীতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। সে গত ২৬ জুন সকাল ১০টায় টঙ্গীর আউচপাড়া খাঁপাড়া রোডে আত্মীয়ের বাসা থেকে স্থানীয় মোক্তার বাড়ি রোডের উদ্দেশ্যে বের হয়। পরে সে আর বাসায় ফিরেননি। এ ব্যাপারে সফিকের স্ত্রী ফাতেমা ওই দিন রাতে জিএমপির টঙ্গী পশ্চিম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। সোমবার পুলিশ একটি লাশ উদ্ধার করেছে এমন খবর পেয়ে স্বজনরা থানায় গিয়ে সফিকের লাশ শনাক্ত করেন।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি এমদাদুল হক জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের স্থানীয় সফিউদ্দিন রোড সংলগ্ন টিএসএস বাউন্ডারি ঘেঁষে বিআরটি প্রকল্পের পিলারের পেছনে একজন মানুষের লাশ লোহার অ্যাঙ্গেলে ঝুলতে দেখে স্থানীয়রা। খবর পেয়ে দুপুরে ঘটনাস্থল থেকে ওই লাশটি উদ্ধার করা হয়। লাশের মুখমণ্ডলসহ শরীর অনেকটা ফুলা ও বিকৃত হয়ে গেছে। তবে, নিহতের শরীরে আঘাতের তেমন কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, লাশটি আগের হওয়ায় এবং বিকৃতির কারণে আঘাতের চিহ্ন বুঝা যাচ্ছে না। এছাড়া বাউন্ডারি ও পিলারের ফাঁকে লাশটি ঝুলে থাকায় এতো দিন কারোর নজরে পড়েনি। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা এ ব্যাপারে ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার আগে মন্তব্য করতে রাজি হননি ওসি এমদাদুল হক।

এ ঘটনায় সফিক যার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল ইসমাঈল (৩৫) নামের তার সেই আত্মীয়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ইসমাইলের বাড়ি একই এলাকার মুন্সিকান্দি গ্রামে।

নিখোঁজের তিন দিন পর সৌদি প্রবাসীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

 গাজীপুর ও টঙ্গী প্রতিনিধি 
২৯ জুন ২০২০, ০৭:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের টঙ্গীতে সোমবার দুপুরে মহাসড়কের পাশ থেকে ইউনুস মুন্সি (৪৫) নামে এক প্রবাসীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার বাড়ি শরিয়তপুর জেলার সফিপুর থানার বড়কান্দা গ্রামে। তার পিতার নাম সফিক মুন্সি।

জানা গেছে, সফিক গত ৩ মার্চ সস্ত্রীক টঙ্গীতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। সে গত ২৬ জুন সকাল ১০টায় টঙ্গীর আউচপাড়া খাঁপাড়া রোডে আত্মীয়ের বাসা থেকে স্থানীয় মোক্তার বাড়ি রোডের উদ্দেশ্যে বের হয়। পরে সে আর বাসায় ফিরেননি। এ ব্যাপারে সফিকের স্ত্রী ফাতেমা ওই দিন রাতে জিএমপির টঙ্গী পশ্চিম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। সোমবার পুলিশ একটি লাশ উদ্ধার করেছে এমন খবর পেয়ে স্বজনরা থানায় গিয়ে সফিকের লাশ শনাক্ত করেন।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি এমদাদুল হক জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের স্থানীয় সফিউদ্দিন রোড সংলগ্ন টিএসএস বাউন্ডারি ঘেঁষে বিআরটি প্রকল্পের পিলারের পেছনে একজন মানুষের লাশ লোহার অ্যাঙ্গেলে ঝুলতে দেখে স্থানীয়রা। খবর পেয়ে দুপুরে ঘটনাস্থল থেকে ওই লাশটি উদ্ধার করা হয়। লাশের মুখমণ্ডলসহ শরীর অনেকটা ফুলা ও বিকৃত হয়ে গেছে। তবে, নিহতের শরীরে আঘাতের তেমন কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, লাশটি আগের হওয়ায় এবং বিকৃতির কারণে আঘাতের চিহ্ন বুঝা যাচ্ছে না। এছাড়া বাউন্ডারি ও পিলারের ফাঁকে লাশটি ঝুলে থাকায় এতো দিন কারোর নজরে পড়েনি। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা এ ব্যাপারে ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার আগে মন্তব্য করতে রাজি হননি ওসি এমদাদুল হক।

এ ঘটনায় সফিক যার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল ইসমাঈল (৩৫) নামের তার সেই আত্মীয়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ইসমাইলের বাড়ি একই এলাকার মুন্সিকান্দি গ্রামে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন