বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবলীগ নেতাকে খুন

  নরসিংদী প্রতিনিধি ২৭ মার্চ ২০১৮, ১৯:০৩ | অনলাইন সংস্করণ

নিহত মাহমুদুল হাসান সৈকত

নরসিংদীতে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে শিবপুর উপজেলার ঢাকা-মনোহরদী আঞ্চলিক সড়কের পাশে পুরানদিয়া জামতলা এলাকা থেকে হাত বাঁধা অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত মাহমুদুল হাসান সৈকত (৩৩) নরসিংদী সদর উপজেলার দক্ষিন শীলমান্দি এলাকার রুস্তম আলীর ছেলে। তিনি শীলমান্দি ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। সৈকত রাজনীতির পাশাপাশি জুট ব্যবসায় জড়িত ছিলেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

এদিকে নিহত সৈকতের ঘনিষ্টবন্ধু সুজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। জুট ব্যাবসাকে কেন্দ্র করে সৈকতকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে নিহতের পরিবারের লোকজনের অভিযোগ।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, সোমবার দুপুরে একটি ফোন আসলে সৈকত গাড়ি নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। রাতে আর বাসায় ফিরে আসেনি। বার বার ফোন দিলেও তার মোবাইলে বন্ধ পাওয়া যায়। পরিবারের লোকজন ও ঘনিষ্ঠজনরা বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করে তার কোনো খোঁজ পাননি।

মঙ্গলবার সকাল ৯টার টার দিকে শিবপুরে সড়কের পাশে হাত বাঁধা অবস্থায় তার লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পরে পরিবারের লোকজন লাশটি সৈকতের বলে শনাক্ত করে।

নিহতের বড় ভাই মো. খোরশেদ আলম প্রিন্স বলেন, সোমবার দুপুরে সৈকতের মোবাইলে একটি ফোন আসলে সে একাই তরিঘড়ি করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। তার সঙ্গে কে ছিল বা তারা এখনও আমরা বলতে পারছি না। তবে সৈকত রাজনীতির পাশাপাশি ঢাকা ও নরসিংদীর বিভিন্ন কারখানার ঝুট কেনা-বেচা করত। কয়েকদিন আগে কিছু লোক তাকে হুমকি দিয়েছে বলেও জানতে পেরেছি।

নিখোঁজ সুজনের ভাই শরিফুল ইসলাম বলেন, সৈকত ভাই ও আমার বড় ভাই সুজন ঘনিষ্ট বন্ধু। গত ৪-৫ দিন আগে ব্যবসায়িক লেনদেন নিয়ে সৈকত ও সুজন ভাইরের সঙ্গে কয়েকজনের দ্বন্দ্ব হয়। তারা বাড়িতে এসে আমার ভাইসহ সৈকত ভাইকে নানা রকম হুমকি দিয়ে যায়। গত কয়েকদিন আগে সুজন ভাইকে তারা জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যায়। একদিন পর সুজন ভাই ফিরে আসলেও এবার আর ফিরে আসেনি। তারাই সৈকত ভাইকে হত্যা করেছে। সুজন ভাইয়ের কি হয়েছে তা এখোনো জানা যায়নি।

শিবপুর থানার এসআই মিজানুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, রাতে অথবা ভোরের যে কোনো সময় তাকে হত্যা করে সড়কের পাশে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। ওইসময় লাশের দুই হাত পেছন দিক থেকে বাঁধা ছিল। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

নরসিংদী জেলা যুবলীগের সভাপতি বিজয় কৃষ্ণ গোস্বামী ও সাধারণ সম্পাদক শামীম নেওয়াজ যুক্ত বিবৃতিতে যুবলীগ নেতা হত্যার তীব্র নিন্দা ও খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×