রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে আমরণ অনশনের ঘোষণা 
jugantor
রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে আমরণ অনশনের ঘোষণা 

  খুলনা ব্যুরো  

৩০ জুন ২০২০, ২২:২২:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হলে আমরণ অনশনসহ কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন শ্রমিকরা। মঙ্গলবার দুপুরে প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে পাটকল শ্রমিক নেতারা এ ঘোষণা দেন। 

সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল চালুর সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে খুলনা অঞ্চলের ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা নিজ নিজ মিলের সামনে মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছেন। 

এর আগে একই দাবিতে সোমবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

পাটকল শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরকার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না করলে আমরণ অনশনসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। কোনো অবস্থাতেই মিল বন্ধ করতে দেয়া হবে না। তারা বিজেএমসিকে পুনর্গঠন করে মিল চালু রাখার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

বক্তৃতা করেন প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সিবিএ সভাপতি শাহানা শারমিন,সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, সাবেক সভাপতি কাউসার আলী মৃধা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান, সেলিম আকন, আবুল কালাম জিয়া, নূরুল হক, বেল্লাল হোসেন, শুকুর আলী প্রমুখ।

প্লাটিনাম জুট মিলের সিবিএ'র সভাপতি সাহানা শারমিন জানান, দাবি আদায় না হওয়ায় কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। 

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল রক্ষা সিবিএ-নন-সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক সরদার আব্দুল হামিদ বলেন, হঠাৎ করেই মিল বন্ধ হলে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে। তখন পরিবার-পরিজন নিয়ে সবাইকে পথে বসতে হবে। 

খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত ক্রিসেন্ট, স্টার, প্লাটিনাম, ইস্টার্ন, দৌলতপুর, খালিশপুর, জেজেআই, আলিম ও কার্পেটিং জুট মিলে ৮ হাজার ১০০ স্থায়ী শ্রমিক ও প্রায় ১৫ হাজার অস্থায়ী শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন। 

উল্লেখ্য, খুলনার পাটকলসহ রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে সরকার চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। সোমবার সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রেস কনফারেন্সে এ ঘোষণা দেয়া হয়।
 

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল না হলে আমরণ অনশনের ঘোষণা 

 খুলনা ব্যুরো 
৩০ জুন ২০২০, ১০:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হলে আমরণ অনশনসহ কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন শ্রমিকরা। মঙ্গলবার দুপুরে প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে পাটকল শ্রমিক নেতারা এ ঘোষণা দেন।

সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল চালুর সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে খুলনা অঞ্চলের ৯টি পাটকলের শ্রমিকরা নিজ নিজ মিলের সামনে মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছেন।

এর আগে একই দাবিতে সোমবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

পাটকল শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরকার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না করলে আমরণ অনশনসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। কোনো অবস্থাতেই মিল বন্ধ করতে দেয়া হবে না। তারা বিজেএমসিকে পুনর্গঠন করে মিল চালু রাখার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

বক্তৃতা করেন প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলের সিবিএ সভাপতি শাহানা শারমিন,সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, সাবেক সভাপতি কাউসার আলী মৃধা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান, সেলিম আকন, আবুল কালাম জিয়া, নূরুল হক, বেল্লাল হোসেন, শুকুর আলী প্রমুখ।

প্লাটিনাম জুট মিলের সিবিএ'র সভাপতি সাহানা শারমিন জানান, দাবি আদায় না হওয়ায় কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল রক্ষা সিবিএ-নন-সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক সরদার আব্দুল হামিদ বলেন, হঠাৎ করেই মিল বন্ধ হলে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে। তখন পরিবার-পরিজন নিয়ে সবাইকে পথে বসতে হবে।

খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত ক্রিসেন্ট, স্টার, প্লাটিনাম, ইস্টার্ন, দৌলতপুর, খালিশপুর, জেজেআই, আলিম ও কার্পেটিং জুট মিলে ৮ হাজার ১০০ স্থায়ী শ্রমিক ও প্রায় ১৫ হাজার অস্থায়ী শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন।

উল্লেখ্য, খুলনার পাটকলসহ রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে সরকার চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। সোমবার সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রেস কনফারেন্সে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

 

ঘটনাপ্রবাহ : রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ ঘোষণা

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন