জঙ্গলে গলাকাটা তরুণীর বাঁচার আকুতি, হাসপাতালে নেয়ার পর মৃত্যু

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো ০১ জুলাই ২০২০, ১০:০৪:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

কিশোরগঞ্জে জঙ্গলে গলাকাটা রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে এক তরুণীকে (৩০) দেখতে পান এলাকাবাসী। এ সময় আহত ওই তরুণী হাতের ইশারায় বাঁচার আকুতি জানাচ্ছিলেন।

তবে তিনি কথা বলতে পারছিলেন না। তাকে একটি খাতা ও কলম এনে দিলে সেখানে কিছু একটা লেখার চেষ্টা করেন। এ সময় ওই তরুণীকে দ্রুত উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে তিনি মারা যান।

মঙ্গলবার সকালে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ ইউনিয়নের লক্ষ্মীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। একটি বাঁশঝাড় থেকে ওই তরুণীকে গলাকাটা অবস্থায় জীবিত উদ্ধার করা হয়।

তবে পুলিশের ধারণা, ওই নারীকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা কেটে মৃত ভেবে সেখানে ফেলে রাখা হয়।

জানা গেছে, উত্তর লতিবাবাদ লক্ষ্মীপুর গ্রামের মালেক ভুঁইয়ার বাড়ির পেছনে একটি বাঁশঝাড়ের নিচে গলাকাটা অবস্থায় মাটিতে গুরুতর ওই তরুণীকে দেখতে পান এলাকাবাসী। এ সময় ওই তরুণী হাতের ইশারায় বাঁচার আকুতি জানান।

ওই তরুণীকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।

ওই তরুণীর পরিচয় জানা যায়নি। তবে তিনি ফর্সা গড়নের, প্রিন্টের সালোয়ার-কামিজ পরিহিত এবং মাথায় ওড়না ছিল।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তরুণীর মৃত্যু হয়। তাকে গলাকাটার পর মৃত ভেবে জঙ্গলে দুর্বৃত্তরা ফেলে যায় বলে ধারণা তার।

ওই তরুণীকে বাঁচানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হয়েছে। তাকে ময়মনসিংহে স্থানান্তর করা হয়েছিল। কিন্তু এর আগেই তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ নৃশংস হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের খুঁজে বের করার পাশাপাশি নিহত তরুণীর পরিচয় জানতে আশপাশের বিভিন্ন থানায় বার্তা পাঠানো হয়েছে।

আর এ ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে পিবিআইও মাঠে নেমেছে। তারা হত্যাকাণ্ডের কারণ, ঘাতকদের শনাক্ত করে গ্রেফতার এবং নিহত নারীর পরিচয় জানতে ব্যাপক অনুসন্ধান শুরু করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে তার মরদেহ ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে বলেও জানিয়েছেন ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিক।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত