ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার
jugantor
ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৬ জুলাই ২০২০, ১০:১৭:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার
ছবি: যুগান্তর

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় পাঁচ বছরের শিশুকে হত্যার পর ঘরে তালা বন্ধ করে মরদেহ রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে তার মামার বিরুদ্ধে। নিহত শিশুর নাম রায়না।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার ৩নং ভরাডোবা ইউনিয়নের গারোরটেক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রায়না উপজেলার ভরাডোবা ইউনিয়নের গারোরটেক এলাকার মিল শ্রমিক রাসেল মিয়ার মেয়ে।

এদিকে এ ঘটনায় রাতেই মামা আসাদুল ওরফে আশুকে (৩৫) উপজেলার সিডস্টোর বাজার এলাকা থেকে পুলিশ আটক করেছে। আসাদুল একই গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাতে ভাত খেয়ে রায়নাকে কোলে নিয়ে আসাদুল তার ঘরের দরজা বন্ধ করে। এর পর শিশুটিকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে খুন করে ঘরের বাইরে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে রায়নার মা রেহানা আক্তার মেয়ের খোঁজ না পেয়ে আসাদুল ওরফে আশুর ঘরের সামনে রায়নার জুতা দেখতে পায়। এর পর তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ঘরের তালা ভেঙে ভেতরে মেঝেতে রায়নার রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। এর পর তারা পুলিশে খবর দেন।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (মমেক) মর্গে পাঠায়।

রাতেই মামা আসাদুলকে পুলিশ আটক করেছে।

এলাকাবাসীর ধারণা, ধর্ষণের পর মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছে। মামা আসাদুল মানসিক বিকারগ্রস্ত ও মাদকাসক্ত।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। ঘাতক আসাদুল ওরফে আশুকে আটক করা হয়েছে।  আসাদুল ছয় মাস পাগল থাকে আর ছয় মাস ভালো থাকে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৬ জুলাই ২০২০, ১০:১৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার
ছবি: যুগান্তর

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় পাঁচ বছরের শিশুকে হত্যার পর ঘরে তালা বন্ধ করে মরদেহ রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে তার মামার বিরুদ্ধে। নিহত শিশুর নাম রায়না।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার ৩নং ভরাডোবা ইউনিয়নের গারোরটেক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রায়না উপজেলার ভরাডোবা ইউনিয়নের গারোরটেক এলাকার মিল শ্রমিক রাসেল মিয়ার মেয়ে।

এদিকে এ ঘটনায় রাতেই মামা আসাদুল ওরফে আশুকে (৩৫) উপজেলার সিডস্টোর বাজার এলাকা থেকে পুলিশ আটক করেছে। আসাদুল একই গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাতে ভাত খেয়ে রায়নাকে কোলে নিয়ে আসাদুল তার ঘরের দরজা বন্ধ করে। এর পর শিশুটিকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে খুন করে ঘরের বাইরে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে রায়নার মা রেহানা আক্তার মেয়ের খোঁজ না পেয়ে আসাদুল ওরফে আশুর ঘরের সামনে রায়নার জুতা দেখতে পায়। এর পর তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ঘরের তালা ভেঙে ভেতরে মেঝেতে রায়নার রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। এর পর তারা পুলিশে খবর দেন।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (মমেক) মর্গে পাঠায়।

রাতেই মামা আসাদুলকে পুলিশ আটক করেছে।

এলাকাবাসীর ধারণা, ধর্ষণের পর মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছে। মামা আসাদুল মানসিক বিকারগ্রস্ত ও মাদকাসক্ত।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। ঘাতক আসাদুল ওরফে আশুকে আটক করা হয়েছে। আসাদুল ছয় মাস পাগল থাকে আর ছয় মাস ভালো থাকে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।