গলায় অস্ত্র ধরে গণধর্ষণের কথা স্বীকার করলেন দুইজন

  সিলেট ব্যুরো ০৬ জুলাই ২০২০, ২৩:২২:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

সিলেটে অস্ত্রের মুখে গণধর্ষণের কথা আদালতে স্বীকার করেছে দুই ধর্ষক। সোমবার সন্ধ্যায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ডের পর তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়।

কানাইঘাট থানার ওসি শামসুদ্দোহা জানান, সিলেটের ৫নং আমলী আদালতের বিচারক নওরীন করিম আসামিদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

স্বীকারোক্তি দেয়া দুই আসামি হচ্ছে আবুল কালাম আজাদ ও মুক্তার হোসেন। এরমধ্যে আবুল কালাম আজাদ কানাইঘাটের ব্রাহ্মণগ্রামের নূর উদ্দিনের ছেলে। তার সহযোগী মুক্তার হোসেন কানাইঘাটের ব্রাহ্মণগ্রামের আলতাব আলী আলতাইয়ের ছেলে। আজাদকে গোয়াইনঘাট ও মুক্তারকে বিয়ানীবাজার থেকে গ্রেফতার করা হয় পুলিশ ও র্যা বের পৃথক অভিযানে।

এদিকে অস্ত্রের মুখে গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূর বাড়ি সোমবার পরিদর্শন করেছেন সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন। এসময় তিনি ভিকটিম, তার স্বামীসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলেন। পুলিশ সুপার ভিকটিমের বসত ঘর মেরামতের জন্য ১০ হাজার টাকা দেন। এছাড়া থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ভিকটিমের পরিবারকে ১ মাসের খাদ্য সামগ্রী ও বিভিন্ন ধরনের ফল প্রদান করা হয়।

পরিদর্শনকালে পুলিশ সুপারের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন কানাইঘাট সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল করিম, ওসি শামসুদ্দোহা, পরিদর্শক (তদন্ত) আনোয়ার জাহিদ, বাণীগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ ও জেলা ডিবি পুলিশের কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার ওই গৃহবধূকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পালাক্রমে গণধর্ষণ করা হয়। এ ব্যাপারে মামলা হয় আজাদ ও মুক্তারকে আসামি করে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত