কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করলেন ইউপি মেম্বার
jugantor
কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করলেন ইউপি মেম্বার

  শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি    

০৭ জুলাই ২০২০, ০০:২০:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আব্দুল হাসিম জারুনের বিরুদ্ধে কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, আব্দুল হাসিম জারুন কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা জন্য ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ টাকা বরাদ্দ পান। এর মধ্যে তিনি ৬ জনকে ৪ হাজার টাকা করে ২৪ হাজার টাকা আর ১৫ জনকে ৩ হাজার টাকা করে ৪৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে মোট ৬৯ হাজার টাকা খরচ করছেন।

প্রকল্পের বাকি ৯৪ হাজার ৮শ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিক আমেনা খাতুন টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেন।

এই ঘটনার খবর পেয়ে ইউএনও সুমী আক্তার তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে যান। কিন্তু তখন ইউপি আব্দুল হাসিম জারুন পালিয়ে যান।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আমি এ ঘটনা জেনেছি এখনও মামলা হয়নি। মামলা হলে আমরা ব্যবস্থা নিব।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুমি আক্তার অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সরকারি টাকা আত্মসাৎ করে কেউ বাঁচতে পারবে না। আমি অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ইউপি মেম্বার পালিয়ে যায়। তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করলেন ইউপি মেম্বার

 শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি   
০৭ জুলাই ২০২০, ১২:২০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আব্দুল হাসিম জারুনের বিরুদ্ধে কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। 

জানা যায়, আব্দুল হাসিম জারুন কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা জন্য ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮শ টাকা বরাদ্দ পান। এর মধ্যে তিনি ৬ জনকে ৪ হাজার টাকা করে ২৪ হাজার টাকা আর ১৫ জনকে ৩ হাজার টাকা করে ৪৫ হাজার টাকা পরিশোধ করে মোট ৬৯ হাজার টাকা খরচ করছেন। 

প্রকল্পের বাকি ৯৪ হাজার ৮শ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিক আমেনা খাতুন টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেন।

এই ঘটনার খবর পেয়ে ইউএনও সুমী আক্তার তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে যান। কিন্তু তখন ইউপি আব্দুল হাসিম জারুন পালিয়ে যান। 

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আমি এ ঘটনা জেনেছি এখনও মামলা হয়নি। মামলা হলে আমরা ব্যবস্থা নিব।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুমি আক্তার অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সরকারি টাকা আত্মসাৎ করে কেউ বাঁচতে পারবে না। আমি অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ইউপি মেম্বার পালিয়ে যায়। তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন