নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রীর ইট-বালতি বাঁধা লাশ উদ্ধার
jugantor
নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রীর ইট-বালতি বাঁধা লাশ উদ্ধার

  বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি  

০৮ জুলাই ২০২০, ২১:৪৬:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বজনদের আহাজারি
স্বজনদের আহাজারি। ছবি: যুগান্তর

বরিশালের বানারীপাড়ায় নিখোঁজের ৩০ ঘণ্টা পর খাল থেকে আয়েশা খানম (১৩) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। তার কোমরে ও পায়ে ইট এবং বালতি বাঁধা ছিল।

বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার সৈয়দকাঠী ইউনিয়নের আউয়ার বাজার সংলগ্ন বড় খাল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। আয়েশা খানম আউয়ার দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল।

এ ঘটনায় সন্দেহজনকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পার্শ্ববর্তী একই পরিবারের ৪ জনকে আটক করে।

আটককৃতরা হলেন- কুটিয়াল ব্যবসায়ী ছিদ্দিকুর রহমান (৪৫) তার স্ত্রী হনুফা বেগম (৪০) ও তার বড় ছেলে ছাবির মীর (১৭) এবং ছোট ছেলে ফাহাদ মীর (১৫)।

বানারীপাড়া থানার ওসি (তদন্ত)জাফর আহম্মেদ যুগান্তরকে বলেন, মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে উপজেলার আউয়ার বাজার সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা ও হলুদ-মরিচ বিক্রেতা মো. দুলাল লাহেরীর মেয়ে আয়েশা খানমকে পরিবারের লোকজন বাড়িতে দেখতে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করে।

পরে না পেয়ে এলাকায় মাইকিং করেন। পরদিন সকাল ৯টা পর্যন্ত তারা স্থানীয়ভাবে তার মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় অবহিত করেন। খবর পেয়ে ওই দিন সকাল ১০টায় তিনি ও থানার অফিসার ইনচার্জ শিশির কুমার পাল সহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যান।

সেখানে গিয়ে তারা সরজমিন তদন্ত করে মাদ্রাসাছাত্রী আয়েশা খানম নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি উদঘাটন করার পাশাপাশি সন্দেহজনকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পার্শ্ববর্তী একই পরিবারের ৪ জনকে আটক করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের ধারণা, প্রেমঘটিত কারণে এই হত্যার ঘটনা ঘটতে পারে।
 

নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রীর ইট-বালতি বাঁধা লাশ উদ্ধার

 বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি 
০৮ জুলাই ২০২০, ০৯:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্বজনদের আহাজারি
স্বজনদের আহাজারি। ছবি: যুগান্তর

বরিশালের বানারীপাড়ায় নিখোঁজের ৩০ ঘণ্টা পর খাল থেকে আয়েশা খানম (১৩) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। তার কোমরে ও পায়ে ইট এবং বালতি বাঁধা ছিল।

বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার সৈয়দকাঠী ইউনিয়নের আউয়ার বাজার সংলগ্ন বড় খাল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। আয়েশা খানম আউয়ার দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল।

এ ঘটনায় সন্দেহজনকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পার্শ্ববর্তী একই পরিবারের ৪ জনকে আটক করে।

আটককৃতরা হলেন- কুটিয়াল ব্যবসায়ী ছিদ্দিকুর রহমান (৪৫) তার স্ত্রী হনুফা বেগম (৪০) ও তার বড় ছেলে ছাবির মীর (১৭) এবং ছোট ছেলে ফাহাদ মীর (১৫)।

বানারীপাড়া থানার ওসি (তদন্ত)জাফর আহম্মেদ যুগান্তরকে বলেন, মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে উপজেলার আউয়ার বাজার সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা ও হলুদ-মরিচ বিক্রেতা মো. দুলাল লাহেরীর মেয়ে আয়েশা খানমকে পরিবারের লোকজন বাড়িতে দেখতে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করে।

পরে না পেয়ে এলাকায় মাইকিং করেন। পরদিন সকাল ৯টা পর্যন্ত তারা স্থানীয়ভাবে তার মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় অবহিত করেন। খবর পেয়ে ওই দিন সকাল ১০টায় তিনি ও থানার অফিসার ইনচার্জ শিশির কুমার পাল সহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যান।

সেখানে গিয়ে তারা সরজমিন তদন্ত করে মাদ্রাসাছাত্রী আয়েশা খানম নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি উদঘাটন করার পাশাপাশি সন্দেহজনকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পার্শ্ববর্তী একই পরিবারের ৪ জনকে আটক করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের ধারণা, প্রেমঘটিত কারণে এই হত্যার ঘটনা ঘটতে পারে।