টুঙ্গিপাড়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত ৮

  গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি ১০ জুলাই ২০২০, ২০:২২:২৮ | অনলাইন সংস্করণ

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় গিমাডাঙ্গা গ্রামে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ইউপি চেয়ারম্যানসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার দিকে গিমাডাঙ্গা বটতলা মোল্লাবাড়ি এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে আহতরা হলেন পাটগাতী ইউপি চেয়ারম্যান মিলন মোল্লা, গিমাডাঙ্গা গ্রামের ইমান উদ্দিন শেখের ছেলে হান্নান শেখ, হান্নানের স্ত্রী পারুল আক্তার, রাসেক মোল্লার ছেলে হান্নান মোল্লা, চেয়ারম্যান মিলন মোল্লার ছেলে লিংকন মোল্লা, হুমায়ুন মোল্লা, ইলিয়াস মোল্লা ও আবু মোল্লা।

এদের মধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায় হান্নান শেখকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ও অপর আহতদের টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মিলন মোল্লা, ইলিয়াস মোল্লা, আবু মোল্লা ও হুমায়ূন মোল্লাকে চিকিৎসার জন্য খুলনা ২৫০ শস্যা জেনালের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
টুঙ্গিপাড়ার পাটগাতী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিলন মোল্লা বলেন, গিমাডাঙ্গা বটতলা এলাকার হান্নান মোল্লার ছেলে শরিফুল মোল্লা আমার ছেলে লিংকন মোল্লা সম্পর্কে একটি খারাপ কথা রটায়। আমার ছেলে এ ঘটনার বিচার দাবি করে। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটকাটির ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনায় আমার ছেলে লিংকন মোল্লা টুঙ্গিপাড়ায় থানায় গিয়ে একটি সাধারন ডায়েরি করে। থানা থেকে বাড়িতে ফেরার পথে হান্নান মোল্লার নেতৃত্বে প্রতিপক্ষের লোকজন আমার ছেলের ওপর হামলা করে।

এ খবর পেয়ে আমি সেখানে গেলে প্রতিপক্ষের লোকজন আমাকেও কুপিয়ে আহত করে।
এদিকে আহত হান্নান মোল্লা যুগান্তরকে বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় পাটগাতী ইউপি চেয়ারম্যান মিলন মোল্লার ছেলে লিংকন মোল্লা ও তার সহযোগীরা আমার ছেলে শরিফুল মোল্লাকে মারপিট করে। এ ঘটনায় একটি সাধারণ ডায়েরি করার জন্য বিকাল ৪টার দিকে আমরা টুঙ্গিপাড়া থানায় যাই।

সন্ধ্যার আগে ডায়েরি করে থানা থেকে বাড়ি ফেরার পথে চেয়ারম্যানের বাড়ির সামনে আসলে চেয়ারম্যান মিলন মোল্লা, তার ছেলে লিংকন মোল্লা ও তার অপর সহযোগিরা আমাদের ওপর হামলা চালায় এবং দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমাদের এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। তখন আমরা চিৎকার করলে এলাকার লোকজন এসে আমাদের উদ্ধার করে। পরে গুরুতর অবস্থায় আমাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

টুঙ্গিপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ এ এফ এম নাসিম যুগান্তরকে বলেন, এটা নিছক একটি পারিবারিক গোন্ডগোল। মূলত, চেয়ারম্যানের সাথে তার অপর তিন ভাই ও এক বোনের দ্বন্দের জের ধরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। দুই পক্ষ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। তবে এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত