পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে যমুনায় ঝাঁপ দিয়ে নারী নিখোঁজ

  শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি  ১০ জুলাই ২০২০, ২২:০৯:৫৭ | অনলাইন সংস্করণ

যমুনা নদী। ফাইল ছবি

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে মাজেদা বেগম (৫৫) নামে এক নারী যমুনা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার কৈজুরি হাটখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও গত ২৪ ঘণ্টায় তাকে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

নিখোঁজ মাজেদা বেগম গুম মামলার বাদী ও উল্লাপাড়া উপজেলার বালসাবাড়ি ইসলামপুর গ্রামের হাচেন আলী মোল্লার স্ত্রী।

এ বিষয়ে উল্লাপাড়া থানার ওসি দীপক কুমার দাস জানান, উল্লাপাড়া উপজেলার বালসাবাড়ি ইসলামপুর এলাকার বাসিন্দা মাজেদা বেগমের ৪র্থ ছেলে শাহীন একজন মাদক ব্যবসায়ী। কিছুদিন আগে উল্লাপাড়া উপজেলার চরঘাটিনা ও মাটিকোরা এলাকার হোসেন, হাসান, মনসুরসহ কয়েকজন শাহীনকে ইয়াবাসহ আটক করে।

এরপর কৌশলে সে পালিয়ে গেলেও তার ইয়াবার চালান তাদের কাছে থেকে যায়। ফলে তাদের ফাঁসাতে মাজেদা বেগম বাদী হয়ে গত ৪ জুলাই ছেলে শাহীনকে গুম করার অভিযোগে তাদের নামে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

এ মামলায় একই এলাকার মিন্টু ও জহুরুলকে সাক্ষী করা হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারণে বাদী ও সাক্ষীরা আদালতে হাজির না হওয়ায়। তাদের নামে আদালত সমন জারি করে। ফলে উল্লাপাড়া থানা পুলিশ তাদের আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করলে আসল রহস্য বের হয়ে আসে। পরে মিন্টু ও জহুরুল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

ওই জবানবন্দি অনুযায়ী মিন্টুকে সঙ্গে নিয়ে শাহজাদপুর ও উল্লাপাড়া থানা পুলিশ যৌথভাবে কৈজুরির ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে হাচেন ও মাজেদাকে নিয়ে শাহীনকে উদ্ধারে বের হলে মাজেদা যমুনা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে পালিয়ে যায়।
এ বিষয়ে শাহজাদপুর থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, তাকে অনেক খোঁজা-খুঁজি করেও পাওয়া যায়নি। পুলিশ তাকে উদ্ধারের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত