চমেকে ছাত্রলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৮
jugantor
চমেকে ছাত্রলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৮

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১২ জুলাই ২০২০, ১৩:৩৭:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

চমেকে ছাত্রলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৮
ফাইল ছবি

আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ছাত্রলীগের দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অন্তত আটজন আহত হয়েছেন। 

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান নওফেল ও চট্টগ্রামের সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

আজ সকালে নওফেল ও চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রেজাউল করিম স্বাস্থ্যসামগ্রী দিতে চট্টগ্রাম মেডিকেলে যান। তার কর্মসূচি শেষ করে ক্যাম্পাস ছাড়ার পরই এ সংঘর্ষ বেধে যায়।

এতে আহত হন ৫৮তম ব্যাচের খোরশেদ বিন মেহেদি ও ইমন শিকদার, ৬০তম ব্যাচের অভিজিত দাস, ফরহাদুল ইসলাম, হোজাইফা বিন কবির, কনব দেবনাথ এবং ৬১তমের সাজেদুল ও মিনহাজ।

আহতরা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন। তারা সবাই নওফেল অনুসারী।

সংঘর্ষের পর মেডিকেল কলেজের চারপাশে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে পুলিশ।

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত একপক্ষ মেডিকেল গোলচত্বরে, আরেক পক্ষ মেডিকেল কলেজের বাইরে অবস্থান করছে।
 

চমেকে ছাত্রলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৮

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১২ জুলাই ২০২০, ০১:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চমেকে ছাত্রলীগের দুপক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৮
ফাইল ছবি

আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ছাত্রলীগের দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অন্তত আটজন আহত হয়েছেন।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান নওফেল ও চট্টগ্রামের সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।

আজ সকালে নওফেল ও চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রেজাউল করিম স্বাস্থ্যসামগ্রী দিতে চট্টগ্রাম মেডিকেলে যান। তার কর্মসূচি শেষ করে ক্যাম্পাস ছাড়ার পরই এ সংঘর্ষ বেধে যায়।

এতে আহত হন ৫৮তম ব্যাচের খোরশেদ বিন মেহেদি ও ইমন শিকদার, ৬০তম ব্যাচের অভিজিত দাস, ফরহাদুল ইসলাম, হোজাইফা বিন কবির, কনব দেবনাথ এবং ৬১তমের সাজেদুল ও মিনহাজ।

আহতরা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন। তারা সবাই নওফেল অনুসারী।

সংঘর্ষের পর মেডিকেল কলেজের চারপাশে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে পুলিশ।

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত একপক্ষ মেডিকেল গোলচত্বরে, আরেক পক্ষ মেডিকেল কলেজের বাইরে অবস্থান করছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন