পূবাইলে ডিশ সংযোগ দিতে গিয়ে গৃহবধূর বাসায় গোপন ক্যামেরা! 
jugantor
পূবাইলে ডিশ সংযোগ দিতে গিয়ে গৃহবধূর বাসায় গোপন ক্যামেরা! 

  পূবাইল (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

১২ জুলাই ২০২০, ১৫:২৭:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইলে ডিশ সংযোগ দিতে গিয়ে গৃহবধূর বাসায় গোপন ক্যামেরা বসানোর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় তালটিয়া এলাকার ক্যাবল অপারেটর ব্যবসায়ী রফিকুল ইসিলাম, আমির, রাজ্জাক ও শাহীনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে।

গত বুধবার এ অভিযোগ নিয়ে ওই গৃহবধূ পূবাইল মেট্রো থানায় অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের চার দিন কেটে গেলেও অভিযুক্তদের আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

বাদীর দেয়া তথ্য ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পূবাইল থানার মেঘডুবী এলাকায় নতুনবাড়ির কাজ চলায় পাশের কামারগাঁও এলাকার ইয়ামিনের ভাড়া বাড়িতে উঠেন ওই গৃববধূ। সেখানে প্রবাসী স্বামী ও দুই ছেলেসহ জানুয়ারি থেকে থাকছেন ওই নারী।

বাসায় ডিশ ও ইন্টারনেট সংযোগ দিতে গিয়ে অভিযুক্তরা শয়ককক্ষে গোপনে সিসি ক্যামেরা বসিয়ে দিয়ে আসেন। বিষয়টি তিনি জানতেন না।

পরে ওই নারীকে কুপ্রস্তাব দেয় অভিযুক্তরা। প্রস্তাবে রাজি না হলে স্বামী-স্ত্রীর ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। পরে ওই নারীর শয়নকক্ষে ধারণ করা গোপন ভিডিও বাদীর মুঠোফোনে পাঠিয়ে দেয় অভিযুক্তরা।

স্বামী বর্তমানে প্রবাসে থাকায় তিনি গৃহবধূকে আইনের আশ্রয় নেয়ার কথা বলেন।

অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার দাবি করে ওই গৃহবধূ বলেন, এরা এমন গোপন ক্যামেরা অন্যদের বাসায়ও লাগাতে পারে। আমার মতো অন্য কেউ যেন ভিকটিমাইজ না হয়, সে জন্য দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হোক।

এ বিষয়ে পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়া বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বাদী থানায় এসে মামলা করতে চাইলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পূবাইলে ডিশ সংযোগ দিতে গিয়ে গৃহবধূর বাসায় গোপন ক্যামেরা! 

 পূবাইল (গাজীপুর) প্রতিনিধি  
১২ জুলাই ২০২০, ০৩:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইলে ডিশ সংযোগ দিতে গিয়ে গৃহবধূর বাসায় গোপন ক্যামেরা বসানোর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় তালটিয়া এলাকার ক্যাবল অপারেটর ব্যবসায়ী রফিকুল ইসিলাম, আমির, রাজ্জাক ও শাহীনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে।

গত বুধবার এ অভিযোগ নিয়ে ওই গৃহবধূ পূবাইল মেট্রো থানায় অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের চার দিন কেটে গেলেও অভিযুক্তদের আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
 
বাদীর দেয়া তথ্য ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পূবাইল থানার মেঘডুবী এলাকায় নতুনবাড়ির কাজ চলায় পাশের কামারগাঁও এলাকার ইয়ামিনের ভাড়া বাড়িতে উঠেন ওই গৃববধূ। সেখানে প্রবাসী স্বামী ও দুই ছেলেসহ জানুয়ারি থেকে থাকছেন ওই নারী।
 
বাসায় ডিশ ও ইন্টারনেট সংযোগ দিতে গিয়ে অভিযুক্তরা শয়ককক্ষে গোপনে সিসি ক্যামেরা বসিয়ে দিয়ে আসেন। বিষয়টি তিনি জানতেন না।

পরে ওই নারীকে কুপ্রস্তাব দেয় অভিযুক্তরা। প্রস্তাবে রাজি না হলে স্বামী-স্ত্রীর ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। পরে ওই নারীর শয়নকক্ষে ধারণ করা গোপন ভিডিও বাদীর মুঠোফোনে পাঠিয়ে দেয় অভিযুক্তরা।
 
স্বামী বর্তমানে প্রবাসে থাকায় তিনি গৃহবধূকে আইনের আশ্রয় নেয়ার কথা বলেন। 

অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার দাবি করে ওই গৃহবধূ বলেন, এরা এমন গোপন ক্যামেরা অন্যদের বাসায়ও লাগাতে পারে। আমার মতো অন্য কেউ যেন ভিকটিমাইজ না হয়, সে জন্য দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হোক।

এ বিষয়ে পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়া বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বাদী থানায় এসে মামলা করতে চাইলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন