বাঞ্ছারামপুরে বিলের বাঁধ ভেঙে দিয়ে জালে আগুন
jugantor
বাঞ্ছারামপুরে বিলের বাঁধ ভেঙে দিয়ে জালে আগুন

  বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

১৪ জুলাই ২০২০, ২২:৪১:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিলের বাঁধ ভেঙে দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মাছ ধরার জাল পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।

বাঞ্ছারামপুর ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাফিসা নাজ নীরা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মঙ্গলবার বাঁধ ভেঙে দেন এবং অবৈধ জাল পুড়িয়ে ফেলেন। এতে কৃষকরা বেশ খুশি হয়ে এসিল্যান্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাঞ্ছারামপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান ও ফরদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ সেলিম।

জানা গেছে, এলাকার কৃষকের কয়েকশ' বিঘা ধানের জমি নষ্ট করে উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিলে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছিল একটি প্রভাবশালী মহল। কেউ প্রতিবাদ করলেই হুমকি-ধমকি দিত তারা। বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দিলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কেউ।

বিশাল এই বাঁধের কারণে নৌচলাচল বন্ধ ছিল। বাঁধের কারণে কচুরিপানা জমে কয়েকশ' বিঘা জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছিল।

জানা যায়, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী সড়কের দক্ষিণ পাশ থেকে খাগকান্দা বালু নদী পর্যন্ত বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিল। এ বিল তিন বছরের জন্য ইজারা নিয়েছে ফরদাবাদ-রূপসদী ধীবর সমবায় সমিতি। ইজারাদার বিলে ইজারা শর্তভঙ্গ করে বাঁশের শলা ও জালের বাঁধ দিয়েছেন।

বাঞ্ছারামপুরে বিলের বাঁধ ভেঙে দিয়ে জালে আগুন

 বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
১৪ জুলাই ২০২০, ১০:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিলের বাঁধ ভেঙে দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মাছ ধরার জাল পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।

বাঞ্ছারামপুর ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাফিসা নাজ নীরা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মঙ্গলবার বাঁধ ভেঙে দেন এবং অবৈধ জাল পুড়িয়ে ফেলেন। এতে কৃষকরা বেশ খুশি হয়ে এসিল্যান্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাঞ্ছারামপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান ও ফরদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ সেলিম।

জানা গেছে, এলাকার কৃষকের কয়েকশ' বিঘা ধানের জমি নষ্ট করে উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিলে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছিল একটি প্রভাবশালী মহল। কেউ প্রতিবাদ করলেই হুমকি-ধমকি দিত তারা। বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দিলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কেউ।

বিশাল এই বাঁধের কারণে নৌচলাচল বন্ধ ছিল। বাঁধের কারণে কচুরিপানা জমে কয়েকশ' বিঘা জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছিল।

জানা যায়, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ফরদাবাদ ও রূপসদী সড়কের দক্ষিণ পাশ থেকে খাগকান্দা বালু নদী পর্যন্ত বাড়িয়াদহ চকবস্তা বিল। এ বিল তিন বছরের জন্য ইজারা নিয়েছে ফরদাবাদ-রূপসদী ধীবর সমবায় সমিতি। ইজারাদার বিলে ইজারা শর্তভঙ্গ করে বাঁশের শলা ও জালের বাঁধ দিয়েছেন।