চাপের মুখে চাঁদার ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ফেরত
jugantor
চাপের মুখে চাঁদার ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ফেরত

  পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি  

১৭ জুলাই ২০২০, ২০:৫৮:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে চাপের মুখে ফেরত দিতে বাধ্য হলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ও উপজেলা শিক্ষা অফিস।

পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অফিস খরচ, উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের খরচ ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার যাতায়াত ও আপ্যায়নের কথা বলে ১৪৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। পরে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা ও চাপের মুখে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নাচনাপাড়া ইউনিয়নের এক প্রধান শিক্ষক বলেন, শিক্ষকদেরকে নিয়ে মিটিং ডেকে অফিস খরচ বাবদ প্রত্যেক স্কুল থেকে ১ হাজার টাকা করে চাঁদা নেয়া হয়েছিল পরে ফেরত পেয়েছি।

এ বিষয় জানতে চাইলে পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. সগির হোসেন বলেন, সে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) গোলাম হায়দার বলেন, শিক্ষকদের পরামর্শ নিয়ে মিটিং করে অফিস খরচ বাবদ স্কুল প্রতি ১ হাজার টাকা ধার্য করা হয়েছিল। পরে ওই টাকা শিক্ষকদের ডেকে আবার ফেরত দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বরগুনা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এমএম মিজানুর রহমান বলেন, শিক্ষা অফিস চালাতে খরচ দেয় সরকার। শিক্ষকদের কাছ থেকে অফিস খরচ নেয়া হয়েছে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।

চাপের মুখে চাঁদার ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ফেরত

 পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি 
১৭ জুলাই ২০২০, ০৮:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে চাপের মুখে ফেরত দিতে বাধ্য হলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ও উপজেলা শিক্ষা অফিস।

পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অফিস খরচ, উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের খরচ ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার যাতায়াত ও আপ্যায়নের কথা বলে ১৪৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ১ লাখ ৪৯ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। পরে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা ও চাপের মুখে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নাচনাপাড়া ইউনিয়নের এক প্রধান শিক্ষক বলেন, শিক্ষকদেরকে নিয়ে মিটিং ডেকে অফিস খরচ বাবদ প্রত্যেক স্কুল থেকে ১ হাজার টাকা করে চাঁদা নেয়া হয়েছিল পরে ফেরত পেয়েছি।

এ বিষয় জানতে চাইলে পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. সগির হোসেন বলেন, সে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে পাথরঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) গোলাম হায়দার বলেন, শিক্ষকদের পরামর্শ নিয়ে মিটিং করে অফিস খরচ বাবদ স্কুল প্রতি ১ হাজার টাকা ধার্য করা হয়েছিল। পরে ওই টাকা শিক্ষকদের ডেকে আবার ফেরত দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বরগুনা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এমএম মিজানুর রহমান বলেন, শিক্ষা অফিস চালাতে খরচ দেয় সরকার। শিক্ষকদের কাছ থেকে অফিস খরচ নেয়া হয়েছে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন