হাত দিলেই উঠে আসছে কোটি টাকায় সদ্য নির্মিত কার্পেটিং
jugantor
হাত দিলেই উঠে আসছে কোটি টাকায় সদ্য নির্মিত কার্পেটিং

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

১৯ জুলাই ২০২০, ২৩:৫২:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বামনী ইউপির ১৩০০ মিটার পাকা সড়কের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় কোটি টাকা। যা গত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি কাজটি রশিদ ব্রাদার্স শুরু করে চলতি বছরের জুলাই মাসে সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। এখনও চলমান রয়েছে রাস্তার নির্মাণ কাজটি।

ইতিমধ্যে রাস্তার কার্পেটিংয়ের কাজও শেষ। তবে হাত দিয়ে টান দিলেই উঠে আসছে সদ্য নির্মিত রাস্তার কার্পেটিং। কয়েকটি জায়গা দেবে গেছে। বৃষ্টির মধ্যে কাজ করায় খালের পাড়ে দেবে যায় ও কংকর উঠে যায়। বহুল প্রতীক্ষিত রাস্তার কাজের এই মান নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকার মানুষ। রাস্তার নির্মাণ কাজের প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো ঠিকাদারের লোকজনের হুমকির মুখে পড়েছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিন রাস্তার কাজ পরিদর্শনে গিয়ে অনিয়ম দেখতে পেয়ে উপজেলা প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ কাজটি সঠিকভাবে করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

রাস্তার নিন্মমানের কাজ নিয়ে কয়েকজন সচেতন যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে ঠিকাদার ওহিদ উল্লাহ প্রতিবাদকারীদের হুমকি দেন। তারা জানান, রাস্তার কাজ এতই নিম্নমানের হয়েছে যে, হাত দিয়ে টান দিলেই কংকর উঠে আসছে। কয়েক স্থানে দেবে গেছে। তাদের অভিযোগ দ্রুত কাজ শেষ করতে ঠিকাদার কিছু মানছেন না। বৃষ্টির মধ্যেও চলছে কাজ।

তারা বলেন, এখনও রাস্তার কাজ শেষই হয়নি। এর মধ্যেই যদি কংকর উঠে যায় তাহলে অল্পদিনেই রাস্তা আগের অবস্থায় ফিরে যাবে।

স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল ইসলাম ও তারেক বলেন, রাস্তার কাজে অনিয়ম হচ্ছে এটি বেশ কিছুদিন ধরে শোনা যাচ্ছে। এলাকার কয়েকজন যুবক বাধা দিতে গেলে তাদের নামে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা দেয়ার হুমকি দেয়ায় এখন কেউ কিছু বলে না।

ওই রাস্তার ঠিকাদার ওহিদ উল্লাহ মোবাইলে বলেন, কাজে কোনো অনিয়ম হয়নি। নিন্মমানের কংকরও দেয়া হয়নি। যারা রাস্তার কাজের মান নিয়ে ফেসবুকে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করব। আপনি বিকালে দেখা করলে কিছু দিয়ে দিব।

রায়পুর উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী তাজুল ইসলাম বলেন, রাস্তার কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে এমন অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি নিজে এলাকায় গিয়ে সতর্ক করেছেন ঠিকাদারকে।

হাত দিলেই উঠে আসছে কোটি টাকায় সদ্য নির্মিত কার্পেটিং

 রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
১৯ জুলাই ২০২০, ১১:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বামনী ইউপির ১৩০০ মিটার পাকা সড়কের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় কোটি টাকা। যা গত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি কাজটি রশিদ ব্রাদার্স শুরু করে চলতি বছরের জুলাই মাসে সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। এখনও চলমান রয়েছে রাস্তার নির্মাণ কাজটি।

ইতিমধ্যে রাস্তার কার্পেটিংয়ের কাজও শেষ। তবে হাত দিয়ে টান দিলেই উঠে আসছে সদ্য নির্মিত রাস্তার কার্পেটিং। কয়েকটি জায়গা দেবে গেছে। বৃষ্টির মধ্যে কাজ করায় খালের পাড়ে দেবে যায় ও কংকর উঠে যায়। বহুল প্রতীক্ষিত রাস্তার কাজের এই মান নিয়ে ক্ষুব্ধ এলাকার মানুষ। রাস্তার নির্মাণ কাজের প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো ঠিকাদারের লোকজনের হুমকির মুখে পড়েছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিন রাস্তার কাজ পরিদর্শনে গিয়ে অনিয়ম দেখতে পেয়ে উপজেলা প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ কাজটি সঠিকভাবে করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

রাস্তার নিন্মমানের কাজ নিয়ে কয়েকজন সচেতন যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে ঠিকাদার ওহিদ উল্লাহ প্রতিবাদকারীদের হুমকি দেন। তারা জানান, রাস্তার কাজ এতই নিম্নমানের হয়েছে যে, হাত দিয়ে টান দিলেই কংকর উঠে আসছে। কয়েক স্থানে দেবে গেছে। তাদের অভিযোগ দ্রুত কাজ শেষ করতে ঠিকাদার কিছু মানছেন না। বৃষ্টির মধ্যেও চলছে কাজ।

তারা বলেন, এখনও রাস্তার কাজ শেষই হয়নি। এর মধ্যেই যদি কংকর উঠে যায় তাহলে অল্পদিনেই রাস্তা আগের অবস্থায় ফিরে যাবে।

স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল ইসলাম ও তারেক বলেন, রাস্তার কাজে অনিয়ম হচ্ছে এটি বেশ কিছুদিন ধরে শোনা যাচ্ছে। এলাকার কয়েকজন যুবক বাধা দিতে গেলে তাদের নামে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা দেয়ার হুমকি দেয়ায় এখন কেউ কিছু বলে না।

ওই রাস্তার ঠিকাদার ওহিদ উল্লাহ মোবাইলে বলেন, কাজে কোনো অনিয়ম হয়নি। নিন্মমানের কংকরও দেয়া হয়নি। যারা রাস্তার কাজের মান নিয়ে ফেসবুকে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করব। আপনি বিকালে দেখা করলে কিছু দিয়ে দিব।

রায়পুর উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী তাজুল ইসলাম বলেন, রাস্তার কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে এমন অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি নিজে এলাকায় গিয়ে সতর্ক করেছেন ঠিকাদারকে।