রাজশাহীতে শ্যালিকা ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত
jugantor
রাজশাহীতে শ্যালিকা ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

  রাজশাহী ব্যুরো  

২১ জুলাই ২০২০, ১১:৫৯:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

শ্যালিকা ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’  নিহত

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এখলাস আলী (২০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার পীরগাছা গ্রামে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

র‌্যাবের দাবি, নিহত এখলাস আলী শ্যালিকা ইভা খাতুনকে (১৩) ধর্ষণ ও আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার আসামি। তিনি মাদক ব্যবসায়ীও ছিলেন। এখলাস পুঠিয়ার গ-গোহালি গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।

পুঠিয়া থানার ওসি রেজাউল ইসলাম জানান, পুঠিয়া বাজারের বাসিন্দা সেলিম হোসেনের মেয়ে ইভা খাতুন গত ২৫ জানুয়ারি দুলাভাই এখলাসের বাড়িতে যায়। ওই রাতেই দুলাভাই তাকে জোর করে ধর্ষণ করে। পরে ইভা বাবার বাড়ি চলে আসে।

গত ২ এপ্রিল বড় বোন শোভা বাবার বাড়িতে বেড়াতে এলে বোনের মন খারাপের কারণ জানতে চায়। এ সময় ইভা বোনকে সব খুলে বলে।

শোভা বিষয়টি স্বামী এখলাসের কাছে জানতে চাইলে তাকে উল্টো তালাকের ভয় দেখানো হয়। এ নিয়ে গ্রামে সালিশবৈঠকও হয়।

এর দুদিন পর গত ৯ এপ্রিল ইভা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় ইভার বাবা জামাইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। সে সময় থেকে মামলার প্রধান আসামি এখলাস আলী এবং তার বাবা আবুল কাশেম পলাতক ছিলেন।

র‌্যাব জানায়, এখলাস মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। মাদকবিরোধী অভিযান চালাতে গিয়ে মঙ্গলবার ভোরে পুঠিয়ার পীরগাছা গ্রামে র্যাবব তাকে আটক করার চেষ্টা করলে তিনি গুলি চালান।

এ সময় আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব পাল্টা গুলি চালালে এখলাস গুলিবিদ্ধ হন।

পরে উদ্ধার করে পুঠিয়া উপজেলা হাসপাতালে নিলে সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার কাছ থেকে একটি পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি, একটি ওয়ান শুটারগান, ৪৮০ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে।

রাজশাহীতে শ্যালিকা ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

 রাজশাহী ব্যুরো 
২১ জুলাই ২০২০, ১১:৫৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শ্যালিকা ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’  নিহত
ছবি: যুগান্তর

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এখলাস আলী (২০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার পীরগাছা গ্রামে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

র‌্যাবের দাবি, নিহত এখলাস আলী শ্যালিকা ইভা খাতুনকে (১৩) ধর্ষণ ও আত্মহত্যা প্ররোচণা মামলার আসামি। তিনি মাদক ব্যবসায়ীও ছিলেন। এখলাস পুঠিয়ার গ-গোহালি গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।

পুঠিয়া থানার ওসি রেজাউল ইসলাম জানান, পুঠিয়া বাজারের বাসিন্দা সেলিম হোসেনের মেয়ে ইভা খাতুন গত ২৫ জানুয়ারি দুলাভাই এখলাসের বাড়িতে যায়। ওই রাতেই দুলাভাই তাকে জোর করে ধর্ষণ করে। পরে ইভা বাবার বাড়ি চলে আসে।

গত ২ এপ্রিল বড় বোন শোভা বাবার বাড়িতে বেড়াতে এলে বোনের মন খারাপের কারণ জানতে চায়। এ সময় ইভা বোনকে সব খুলে বলে।

শোভা বিষয়টি স্বামী এখলাসের কাছে জানতে চাইলে তাকে উল্টো তালাকের ভয় দেখানো হয়। এ নিয়ে গ্রামে সালিশবৈঠকও হয়।

এর দুদিন পর গত ৯ এপ্রিল ইভা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় ইভার বাবা জামাইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। সে সময় থেকে মামলার প্রধান আসামি এখলাস আলী এবং তার বাবা আবুল কাশেম পলাতক ছিলেন।

র‌্যাব জানায়, এখলাস মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। মাদকবিরোধী অভিযান চালাতে গিয়ে মঙ্গলবার ভোরে পুঠিয়ার পীরগাছা গ্রামে র্যাবব তাকে আটক করার চেষ্টা করলে তিনি গুলি চালান।

এ সময় আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব পাল্টা গুলি চালালে এখলাস গুলিবিদ্ধ হন।

পরে উদ্ধার করে পুঠিয়া উপজেলা হাসপাতালে নিলে সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার কাছ থেকে একটি পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি, একটি ওয়ান শুটারগান, ৪৮০ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন