বন্যার্তদের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানের চালবাজি, গুদাম থেকে সরকারি চাল জব্দ 
jugantor
বন্যার্তদের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানের চালবাজি, গুদাম থেকে সরকারি চাল জব্দ 

  চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২১ জুলাই ২০২০, ১৯:০১:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় দুস্থদের জন্য জিআরের চাল বিতরণে চিকন চাউলের পরিবর্তে সরকারি অন্য খাতের মোটা চাল বিতরণকালে ইউএনও’র কাছে হাতেনাতে ধর খেলেন এক ইউপি চেয়ারম্যান।

সোমবার দুপুরে উপজেলার ঘোড়জান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রমজান আলীকে হাতেনাতে ধরেন ইউএনও দেওয়ান মওদুদ আহমেদ।  এ সময় ওই ইউপির অস্থায়ী কার্যালয় চরজাজুরিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩৪৩ কেজি সরকারি চাল জব্দ করা হয়েছে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, উপজেলার যমুনা চরাঞ্চল অধ্যুষিত ঘোড়জান ইউনিয়নে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭৪টি বন্যার্ত পরিবারে খাদ্য সহায়তার জন্য জিআরের ৪৫ হাজার ৮শ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।  এজন্য প্রতিটি বন্যার্ত পরিবারকে ৭ কেজি চিকন চালসহ ডাল, তেল, লবন ও সাবান বিতরণ করার কথা।  তবে অন্য খাদ্যদ্রব্য ঠিক থাকলেও চিকন চালের স্থলে সরকারি অন্য খাতের মোটা চাল বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান রমজান আলী।  বিষয়টি জানাজানি হলে ইউএনও দেওয়ান মওদুদ আহমেদ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাতেনাতে ধরে ফেলেন।  এ সময় ৯ ব্যাগে ৭ কেজি করে ৬৩ কেজি মোটা চাল, ইউনিয়ন পরিষদের গুদামে রাখা ৫০ কেজির ৫টি বস্তায় ২৫০ কেজি ও ১ বস্তায় ৩০ কেজি চালসহ মোট ৩৪৩ কেজি সরকারি চাল জব্দ করে নিয়ে যায় পুলিশ। 

এ বিষয়ে ঘোড়জান ইউপি চেয়ারম্যান রমজান আলী জানান, জিআরের টাকায় কেনা চিকন চালের বদলে কয়েকটি বস্তায় কিছু মোটা চাল ছিল। এটা তেমন কিছু নয়। 

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, জিআরের টাকায় চিকন চাল কেনার কথা থাকলেও সরকারি অন্য কোনো খাতের মোটা চাল দুস্থদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।  যা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি।  এছাড়া পরিষদের গুদামে কয়েকটি বস্তায় রাখা সর্বমোট ৩৪৩ কেজি চাল জব্দ করেছে পুলিশ।  জব্দকৃত চালের বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।  এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 

বন্যার্তদের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানের চালবাজি, গুদাম থেকে সরকারি চাল জব্দ 

 চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২১ জুলাই ২০২০, ০৭:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় দুস্থদের জন্য জিআরের চাল বিতরণে চিকন চাউলের পরিবর্তে সরকারি অন্য খাতের মোটা চাল বিতরণকালে ইউএনও’র কাছে হাতেনাতে ধর খেলেন এক ইউপি চেয়ারম্যান।

সোমবার দুপুরে উপজেলার ঘোড়জান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রমজান আলীকে হাতেনাতে ধরেন ইউএনও দেওয়ান মওদুদ আহমেদ। এ সময় ওই ইউপির অস্থায়ী কার্যালয় চরজাজুরিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৩৪৩ কেজি সরকারি চাল জব্দ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, উপজেলার যমুনা চরাঞ্চল অধ্যুষিত ঘোড়জান ইউনিয়নে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭৪টি বন্যার্ত পরিবারে খাদ্য সহায়তার জন্য জিআরের ৪৫ হাজার ৮শ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এজন্য প্রতিটি বন্যার্ত পরিবারকে ৭ কেজি চিকন চালসহ ডাল, তেল, লবন ও সাবান বিতরণ করার কথা। তবে অন্য খাদ্যদ্রব্য ঠিক থাকলেও চিকন চালের স্থলে সরকারি অন্য খাতের মোটা চাল বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান রমজান আলী। বিষয়টি জানাজানি হলে ইউএনও দেওয়ান মওদুদ আহমেদ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। এ সময় ৯ ব্যাগে ৭ কেজি করে ৬৩ কেজি মোটা চাল, ইউনিয়ন পরিষদের গুদামে রাখা ৫০ কেজির ৫টি বস্তায় ২৫০ কেজি ও ১ বস্তায় ৩০ কেজি চালসহ মোট ৩৪৩ কেজি সরকারি চাল জব্দ করে নিয়ে যায় পুলিশ।

এ বিষয়ে ঘোড়জান ইউপি চেয়ারম্যান রমজান আলী জানান, জিআরের টাকায় কেনা চিকন চালের বদলে কয়েকটি বস্তায় কিছু মোটা চাল ছিল। এটা তেমন কিছু নয়।

এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, জিআরের টাকায় চিকন চাল কেনার কথা থাকলেও সরকারি অন্য কোনো খাতের মোটা চাল দুস্থদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি। এছাড়া পরিষদের গুদামে কয়েকটি বস্তায় রাখা সর্বমোট ৩৪৩ কেজি চাল জব্দ করেছে পুলিশ। জব্দকৃত চালের বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।