শ্রমিক দিয়ে কাজ না করানো, বামনায় কাবিখা’র গম জব্দ
jugantor
শ্রমিক দিয়ে কাজ না করানো, বামনায় কাবিখা’র গম জব্দ

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ জুলাই ২০২০, ২০:১৫:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনা

শ্রমিক দিয়ে কাজ না করার অভিযোগে বরগুনার বামনা উপজেলার ডৌয়াতলা ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত কাজের বিনিময় খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির ৬.৪৩৬ মেট্রিক টন গম জব্দ করা হয়েছে। সোমবার বিকালে বামনা খাদ্য গুদাম থেকে নিয়ে যাওয়ার সময় হাতেনাতে জব্দ করেন বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা।

বামনা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচির (কাবিখা) বরাদ্দকৃত খাদ্যশস্য, ওই প্রকল্পের নিয়োজিত স্থানীয় শ্রমিকদের মাঝে দেয়া হয়। তবে প্রকল্প কমিটির সভাপতি ইউপি সদস্য মঈনুল ইসলাম মঈন সিকদার কাবিখা কর্মসূচির মাটির রাস্তা প্রশস্থকরণ প্রকল্পে কোনো শ্রমিক না ব্যবহার করে যান্ত্রিক এস্কেবেটর দিয়ে সড়ক আংশিক প্রশস্থ করেন। ফলে তিনি শ্রমিকদের কোনো প্রকার খাদ্যশস্য না দিয়ে নিজেই সব আত্মসাৎ করা চেষ্টাকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা খাদ্য গুদামের সামনে থেকে ওই খাদ্যশস্য জব্দ করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মঈনুল ইসলাম মঈন সিকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কাবিখা প্রকল্পের কাজ আমি এই প্রথম করেছি। তাই আমি জানতাম না এ কাজ শ্রমিকদের দিয়ে করাতে হয়। আমি চেয়ারম্যানের নির্দেশে এস্কেবেটর দিয়ে মাটির রাস্তাটি প্রশস্থকরণ করেছি।

বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা বলেন, আমি অভিযোগ পেয়েছি স্থানীয় শ্রমিকদের সম্পৃক্ত না করে, যন্ত্র দিয়ে ওই প্রকল্পের আংশিক কাজ করা হয়েছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় আমি ওই এলাকায় বরাদ্দের খাদ্যশস্য জব্দ করেছি। ইউপি সদস্য পুনরায় শ্রমিক দিয়ে বাকি কাজ করালে ওই খাদ্যশস্য তখন প্রদান করা হবে।

শ্রমিক দিয়ে কাজ না করানো, বামনায় কাবিখা’র গম জব্দ

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ জুলাই ২০২০, ০৮:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বরগুনা
বরগুনা

শ্রমিক দিয়ে কাজ না করার অভিযোগে বরগুনার বামনা উপজেলার ডৌয়াতলা ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত কাজের বিনিময় খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির ৬.৪৩৬ মেট্রিক টন গম জব্দ করা হয়েছে। সোমবার বিকালে বামনা খাদ্য গুদাম থেকে নিয়ে যাওয়ার সময় হাতেনাতে জব্দ করেন বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা।

বামনা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচির (কাবিখা) বরাদ্দকৃত খাদ্যশস্য, ওই প্রকল্পের নিয়োজিত স্থানীয় শ্রমিকদের মাঝে দেয়া হয়। তবে প্রকল্প কমিটির সভাপতি ইউপি সদস্য মঈনুল ইসলাম মঈন সিকদার কাবিখা কর্মসূচির মাটির রাস্তা প্রশস্থকরণ প্রকল্পে কোনো শ্রমিক না ব্যবহার করে যান্ত্রিক এস্কেবেটর দিয়ে সড়ক আংশিক প্রশস্থ করেন। ফলে তিনি শ্রমিকদের কোনো প্রকার খাদ্যশস্য না দিয়ে নিজেই সব আত্মসাৎ করা চেষ্টাকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা খাদ্য গুদামের সামনে থেকে ওই খাদ্যশস্য জব্দ করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মঈনুল ইসলাম মঈন সিকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কাবিখা প্রকল্পের কাজ আমি এই প্রথম করেছি। তাই আমি জানতাম না এ কাজ শ্রমিকদের দিয়ে করাতে হয়। আমি চেয়ারম্যানের নির্দেশে এস্কেবেটর দিয়ে মাটির রাস্তাটি প্রশস্থকরণ করেছি।

বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা বলেন, আমি অভিযোগ পেয়েছি স্থানীয় শ্রমিকদের সম্পৃক্ত না করে, যন্ত্র দিয়ে ওই প্রকল্পের আংশিক কাজ করা হয়েছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় আমি ওই এলাকায় বরাদ্দের খাদ্যশস্য জব্দ করেছি। ইউপি সদস্য পুনরায় শ্রমিক দিয়ে বাকি কাজ করালে ওই খাদ্যশস্য তখন প্রদান করা হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন