বড়লেখায় প্রতিপক্ষের দায়ের কোপে ব্যবসায়ীর মৃত্যু
jugantor
বড়লেখায় প্রতিপক্ষের দায়ের কোপে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

  বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি  

২৪ জুলাই ২০২০, ১৮:২৮:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সিলেট
সিলেট

বড়লেখায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ (৪০) বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

তিনি উপজেলার দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপির সুজাউল হরিনগর গ্রামের শফিক উদ্দিনের ছেলে ও স্থানীয় অফিস বাজারের মুদি ব্যবসায়ী। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করেছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় কেউ মামলা করেনি বলে জানা গেছে। তবে অভিযুক্ত ব্যক্তি পুলিশের নজরদারীতে রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ দোকানের উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন। পথে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা চন্ডিনগর গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে হোসেন আহমদ ওরফে মাহতাব উদ্দিন তার মাথায় ধারালো দা দিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত ১২টায় সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে। স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, নারীঘটিত কারণে ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ খুন হন। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং ঘাতক মাহতাবের বাড়ি থেকে হামলায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ধারালো অস্ত্র (দা) উদ্ধার করেছে।

ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। হামলাকারীর বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করেছে। সিলেট কোতোয়ালি থানা পুলিশ নিহত আব্দুল আহাদের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি ও ময়নাতদন্ত শেষে শুক্রবার বিকালে স্বজনদের নিকট লাশ হস্তান্তর করেছে। এ ব্যাপারে থানায় এখনও কেউ মামলা দেননি। অভিযুক্ত ব্যক্তি পুলিশের নজরদারীতে, তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
 

বড়লেখায় প্রতিপক্ষের দায়ের কোপে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

 বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি 
২৪ জুলাই ২০২০, ০৬:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সিলেট
সিলেট

বড়লেখায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ (৪০) বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

তিনি উপজেলার দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপির সুজাউল হরিনগর গ্রামের শফিক উদ্দিনের ছেলে ও স্থানীয় অফিস বাজারের মুদি ব্যবসায়ী। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করেছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় কেউ মামলা করেনি বলে জানা গেছে। তবে অভিযুক্ত ব্যক্তি পুলিশের নজরদারীতে রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ দোকানের উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন। পথে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা চন্ডিনগর গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে হোসেন আহমদ ওরফে মাহতাব উদ্দিন তার মাথায় ধারালো দা দিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত ১২টায় সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে। স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, নারীঘটিত কারণে ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ খুন হন। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং ঘাতক মাহতাবের বাড়ি থেকে হামলায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ধারালো অস্ত্র (দা) উদ্ধার করেছে।

ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। হামলাকারীর বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করেছে। সিলেট কোতোয়ালি থানা পুলিশ নিহত আব্দুল আহাদের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি ও ময়নাতদন্ত শেষে শুক্রবার বিকালে স্বজনদের নিকট লাশ হস্তান্তর করেছে। এ ব্যাপারে থানায় এখনও কেউ মামলা দেননি। অভিযুক্ত ব্যক্তি পুলিশের নজরদারীতে, তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন