চাঁদাবাজির মামলায় রাজারহাটের কৃষি কর্মকর্তা বরখাস্ত
jugantor
চাঁদাবাজির মামলায় রাজারহাটের কৃষি কর্মকর্তা বরখাস্ত

  রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি  

২৭ জুলাই ২০২০, ২২:০৭:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রাম
কুড়িগ্রাম

বেপরোয়া চাঁদাবাজি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও সরকারি অফিস ঘর ভাংচুরের ঘটনায় কুড়িগ্রামের রাজারহাটে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

২৬ জুলাই রাজারহাট উপজেলা কৃষি অফিসার মো. কামরুজ্জামান জানান, গত ২০ জুলাই অতিরিক্ত পরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর অঞ্চল, রংপুর স্বাক্ষরিত সাময়িক বরখাস্তের পত্র পেয়েছি। 

উল্লেখ্য, রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের ভীমশর্মা এলাকায় অবস্থিত কোটেশ্বর বিলটি বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পের আওতাধীন বিলটি ৬ বছরের জন্য ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউপির পশ্চিম দেবত্তর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডকে লিজ প্রদান করা হয়। 

গত ৩০ জুন রাজারহাট উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার মোছা. আকলিমা বেগম লিজ গ্রহণকারী সমিতিকে বিলটি দখলমুক্ত করে বুঝিয়ে দেন এবং সমিতির পক্ষ থেকে সেখানে ওই দিন বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক মণ মাছের পোনা অবমুক্ত করেন তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহা. যোবায়ের হোসেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার মোছা. আকলিমা বেগম, রাজারহাট থানার ওসি মো. রাজু সরকার, সদর ইউপি মো. চেয়ারম্যান এনামুল হক, স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. সাদেকুর রহমান, প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএ বাবলু, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

প্রতিপক্ষ একটি দল বিলটি লিজ নিতে না পারায় ওই এলাকার মতিয়ার রহমানের পুত্র ও রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের রতিগ্রাম ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনের নেতৃত্বে কয়েকজন সন্ত্রাসী ওই বিলের সরকারি অফিস ঘরে হামলা চালায় ও মৎস্যজীবীদের জাল লুট করে নিয়ে যায়। ওই সময় সমিতির সদস্য মো. আতিকুল ইসলামকে সন্ত্রাসীরা আটক করে মারধর করে এবং তার কাছে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। 

এ ঘটনায় বিলের ইজারাদার পশ্চিম দেবত্তর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি মো. সাদেকুল ইসলাম বাদী হয়ে কৃষি উপসহকারী (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নাম উল্লেখপূর্বক ৬-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে গত ৮ জুলাই রাজারহাট থানায় একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-০৬, তাং-০৮-০৭-২০২০।

এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক কুমোদ রঞ্জন সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনে কোনো মাদকসেবী, মাদক বিক্রেতা, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজের স্থান নেই। সেই মোতাবেক উপজেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক এলাকাবাসী জানান, আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিন সরকারি চাকরিজীবী হওয়া সত্ত্বেও বর্তমান ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের পরিচয় দিয়ে এলাকায় দাপটের সঙ্গে বেপরোয়া চাঁদাবাজি, দাঙ্গা-হাঙ্গামাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে।
 

চাঁদাবাজির মামলায় রাজারহাটের কৃষি কর্মকর্তা বরখাস্ত

 রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি 
২৭ জুলাই ২০২০, ১০:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কুড়িগ্রাম
কুড়িগ্রাম

বেপরোয়া চাঁদাবাজি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও সরকারি অফিস ঘর ভাংচুরের ঘটনায় কুড়িগ্রামের রাজারহাটে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

২৬ জুলাই রাজারহাট উপজেলা কৃষি অফিসার মো. কামরুজ্জামান জানান, গত ২০ জুলাই অতিরিক্ত পরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর অঞ্চল, রংপুর স্বাক্ষরিত সাময়িক বরখাস্তের পত্র পেয়েছি।

উল্লেখ্য, রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের ভীমশর্মা এলাকায় অবস্থিত কোটেশ্বর বিলটি বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পের আওতাধীন বিলটি ৬ বছরের জন্য ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউপির পশ্চিম দেবত্তর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডকে লিজ প্রদান করা হয়।

গত ৩০ জুন রাজারহাট উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার মোছা. আকলিমা বেগম লিজ গ্রহণকারী সমিতিকে বিলটি দখলমুক্ত করে বুঝিয়ে দেন এবং সমিতির পক্ষ থেকে সেখানে ওই দিন বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক মণ মাছের পোনা অবমুক্ত করেন তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহা. যোবায়ের হোসেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার মোছা. আকলিমা বেগম, রাজারহাট থানার ওসি মো. রাজু সরকার, সদর ইউপি মো. চেয়ারম্যান এনামুল হক, স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. সাদেকুর রহমান, প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএ বাবলু, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

প্রতিপক্ষ একটি দল বিলটি লিজ নিতে না পারায় ওই এলাকার মতিয়ার রহমানের পুত্র ও রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের রতিগ্রাম ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনের নেতৃত্বে কয়েকজন সন্ত্রাসী ওই বিলের সরকারি অফিস ঘরে হামলা চালায় ও মৎস্যজীবীদের জাল লুট করে নিয়ে যায়। ওই সময় সমিতির সদস্য মো. আতিকুল ইসলামকে সন্ত্রাসীরা আটক করে মারধর করে এবং তার কাছে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

এ ঘটনায় বিলের ইজারাদার পশ্চিম দেবত্তর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি মো. সাদেকুল ইসলাম বাদী হয়ে কৃষি উপসহকারী (বিএস) আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিনকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নাম উল্লেখপূর্বক ৬-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে গত ৮ জুলাই রাজারহাট থানায় একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-০৬, তাং-০৮-০৭-২০২০।

এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক কুমোদ রঞ্জন সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনে কোনো মাদকসেবী, মাদক বিক্রেতা, সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজের স্থান নেই। সেই মোতাবেক উপজেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক এলাকাবাসী জানান, আমিনুল ইসলাম ওরফে আমিন সরকারি চাকরিজীবী হওয়া সত্ত্বেও বর্তমান ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের পরিচয় দিয়ে এলাকায় দাপটের সঙ্গে বেপরোয়া চাঁদাবাজি, দাঙ্গা-হাঙ্গামাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে।