পাবনায় এক মাসে করোনা আক্রান্ত দ্বিগুণ
jugantor
পাবনায় এক মাসে করোনা আক্রান্ত দ্বিগুণ

  পাবনা প্রতিনিধি  

২৯ জুলাই ২০২০, ২০:৩১:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনায় হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এক মাসের ব্যবধানে আক্রান্ত সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। কিন্তু নমুনা পরীক্ষা কমে গেছে ৮০ শতাংশ। এর পরও একবার নমুনা দিয়ে রিপোর্ট পেতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ২০ দিন থেকে ২৫ দিন এবং কখনও তা এক মাসও লেগে যাচ্ছে।

এতে করোনার উপসর্গে থাকা এবং করোনা রোগীসহ তাদের স্বজনদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। এ দিকে জেলার ভাঙ্গুড়ায় করোনা উপসর্গে মঞ্জুর কাদের বাবু (৫২) নামক এক স্কুল কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় ১১ জন এবং করোনা উপসর্গে ১৩ জনসহ জেলায় ২৪ জন মারা গেলেন।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে মঞ্জুর কাদের বাবু মারা যান। তিনি ভাঙ্গুড়ায় মমতাজ মোস্তফা আইডিয়াল হাই স্কুলের অফিস সহকারী ছিলেন। 

ওই কর্মচারীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিনি গত কয়েকদিন আগে থেকেই জ্বরে ভুগছিলেন। জ্বর নিয়েই গত শনিবার হাটে কোরবানির পশু কিনতে যান। কুরবানির পশু কেনা শেষে বাড়ি ফিরে তিনি বেশি অসুস্থ হয়ে যান। বাড়িতেই তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। সোমবার সকালে তার পরিবারের লোকজন তাকে পাবনায় নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক দেখিয়ে বাড়ি ফিরে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে যান। 

তার স্বজনরা তাকে সোমবার বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার উপসর্গ দেখে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে তিনি মারা যান। 

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তার দেহে করোনার সুস্পষ্ট উপসর্গ ছিল। তিনি ২ সন্তানের জনক। 

এ দিকে পাবনায় গত এক মাস ধরে অস্বাভাবিক হারে কমে গেছে নমুনা সংগ্রহ। গত ২৮ জুন থেকে ২৮ জুলাই পর্যন্ত এক মাসে পরীক্ষার জন্য মাত্র ২ হাজার ৮ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। অথচ আগে গড়ে প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হতো। 

আর এই এক মাসের ব্যবধানে রোগী বেড়েছে দ্বিগুণ। অর্থাৎ ২৮ জুন পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ছিল ৪৩০ জন এবং ২৮ জুলাই পর্যন্ত পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৮২২ জন। 
 

পাবনায় এক মাসে করোনা আক্রান্ত দ্বিগুণ

 পাবনা প্রতিনিধি 
২৯ জুলাই ২০২০, ০৮:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনায় হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এক মাসের ব্যবধানে আক্রান্ত সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। কিন্তু নমুনা পরীক্ষা কমে গেছে ৮০ শতাংশ। এর পরও একবার নমুনা দিয়ে রিপোর্ট পেতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ২০ দিন থেকে ২৫ দিন এবং কখনও তা এক মাসও লেগে যাচ্ছে।

এতে করোনার উপসর্গে থাকা এবং করোনা রোগীসহ তাদের স্বজনদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। এ দিকে জেলার ভাঙ্গুড়ায় করোনা উপসর্গে মঞ্জুর কাদের বাবু (৫২) নামক এক স্কুল কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় ১১ জন এবং করোনা উপসর্গে ১৩ জনসহ জেলায় ২৪ জন মারা গেলেন।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে মঞ্জুর কাদের বাবু মারা যান। তিনি ভাঙ্গুড়ায় মমতাজ মোস্তফা আইডিয়াল হাই স্কুলের অফিস সহকারী ছিলেন।

ওই কর্মচারীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিনি গত কয়েকদিন আগে থেকেই জ্বরে ভুগছিলেন। জ্বর নিয়েই গত শনিবার হাটে কোরবানির পশু কিনতে যান। কুরবানির পশু কেনা শেষে বাড়ি ফিরে তিনি বেশি অসুস্থ হয়ে যান। বাড়িতেই তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। সোমবার সকালে তার পরিবারের লোকজন তাকে পাবনায় নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক দেখিয়ে বাড়ি ফিরে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে যান।

তার স্বজনরা তাকে সোমবার বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার উপসর্গ দেখে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে তিনি মারা যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তার দেহে করোনার সুস্পষ্ট উপসর্গ ছিল। তিনি ২ সন্তানের জনক।

এ দিকে পাবনায় গত এক মাস ধরে অস্বাভাবিক হারে কমে গেছে নমুনা সংগ্রহ। গত ২৮ জুন থেকে ২৮ জুলাই পর্যন্ত এক মাসে পরীক্ষার জন্য মাত্র ২ হাজার ৮ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। অথচ আগে গড়ে প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হতো।

আর এই এক মাসের ব্যবধানে রোগী বেড়েছে দ্বিগুণ। অর্থাৎ ২৮ জুন পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ছিল ৪৩০ জন এবং ২৮ জুলাই পর্যন্ত পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৮২২ জন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০