তারাগঞ্জে প্রতিবন্ধী নারীর বাড়ি ভাংচুর ও মারধর
jugantor
তারাগঞ্জে প্রতিবন্ধী নারীর বাড়ি ভাংচুর ও মারধর

  তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি  

২৯ জুলাই ২০২০, ২১:২২:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুর
রংপুর

তারাগঞ্জে জমিসংক্রান্ত বিষয়ের জেরে ধরে এক প্রতিবন্ধী নারীকে মারধরসহ তার বসতভিটায় থাকা ঘরবাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  এ ঘটনায় ওই নারী বিচার চেয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে,  উপজেলার সয়ার ইউনিয়নের পদ্মপাড়া গ্রামের নন্দনাল রায়ের সাথে একই গ্রামের শুকুমার রায়ের জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল। 
গত ২২ জুলাই এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে সুকুমার রায়সহ তার পরিবারের লোকজন নন্দনাল রায়ের বাড়িতে প্রবেশ করেন। এ সময় সুকুমারসহ তার পরিবারের লোকজন বাড়িতে প্রবেশ করে তিনটি ঘর ভাংচুর করেন। নন্দনালের স্ত্রী প্রতিবন্ধী সতনা রানী (২৮) বাধা দিলে সুকুমার ও তার লোকজন এলোপাতাড়ি লাঠি দিয়ে প্রতিবন্ধী সতনাকে মারধর করে। 
পরে এলাকার লোকজন এগিয়ে এলে সুকুমার ও তার পরিবারের লোকজন চলে যায়। গুরুতর অবস্থায় সতনার পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। 
এ ঘটনায় গত ২২ জুলাই বিকালে ওই প্রতিন্ধী নারী থানায় বাদী হয়ে অভিযুক্ত ৫ জনের বিরুদ্ধে বিচার চেয়ে অভিযোগ প্রদান করেন।
 

তারাগঞ্জে প্রতিবন্ধী নারীর বাড়ি ভাংচুর ও মারধর

 তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি 
২৯ জুলাই ২০২০, ০৯:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রংপুর
রংপুর

তারাগঞ্জে জমিসংক্রান্ত বিষয়ের জেরে ধরে এক প্রতিবন্ধী নারীকে মারধরসহ তার বসতভিটায় থাকা ঘরবাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই নারী বিচার চেয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সয়ার ইউনিয়নের পদ্মপাড়া গ্রামের নন্দনাল রায়ের সাথে একই গ্রামের শুকুমার রায়ের জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল।
গত ২২ জুলাই এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে সুকুমার রায়সহ তার পরিবারের লোকজন নন্দনাল রায়ের বাড়িতে প্রবেশ করেন। এ সময় সুকুমারসহ তার পরিবারের লোকজন বাড়িতে প্রবেশ করে তিনটি ঘর ভাংচুর করেন। নন্দনালের স্ত্রী প্রতিবন্ধী সতনা রানী (২৮) বাধা দিলে সুকুমার ও তার লোকজন এলোপাতাড়ি লাঠি দিয়ে প্রতিবন্ধী সতনাকে মারধর করে।
পরে এলাকার লোকজন এগিয়ে এলে সুকুমার ও তার পরিবারের লোকজন চলে যায়। গুরুতর অবস্থায় সতনার পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন।
এ ঘটনায় গত ২২ জুলাই বিকালে ওই প্রতিন্ধী নারী থানায় বাদী হয়ে অভিযুক্ত ৫ জনের বিরুদ্ধে বিচার চেয়ে অভিযোগ প্রদান করেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন