দুস্থদের জন্য পীরগঞ্জে সাড়ে ৩শ’ পশু কোরবানি
jugantor
দুস্থদের জন্য পীরগঞ্জে সাড়ে ৩শ’ পশু কোরবানি

  পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি  

০৩ আগস্ট ২০২০, ১০:৪৩:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জের দুস্থদের জন্য সাড়ে ৩শ’ গবাদিপশু কোরবানি দিলেন সিঙ্গাপুর প্রবাসীরা। সিঙ্গপুরে থাকা ৫৫৫ প্রবাসীর নামে এসব পশু কোরবানি দিয়ে দুস্থদের মাঝে বিতরণ করা হয়। প্রবাসীরা সবাই মুন্সিগঞ্জের বাসিন্দা। এ ঘটনায় পীরগঞ্জে ব্যাপক আনন্দ আর সোরগোল পড়ে গেছে।

রোববার দ্বিতীয় দফায় উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের গনিরবাজারে রাজু মাস্টারের চাতালে ৩৫টি গরু কোরবানি করা হয়েছে। ঈদের দিন ৩১০টি খাসি কোরবানি করা হয়।

জানা গেছে, পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের চেরাগপুর গ্রামের মাহমুদুন নবী রাজু মাস্টার (৩৬)। প্রায় ৪ বছর আগে তার কাছে সিঙ্গাপুর প্রবাসী মুন্সিগঞ্জের আবদুল মাজিদ একটি ছোট ট্রাক ভাড়া নিয়ে পীরগঞ্জ থেকে কোরবানির গরু ক্রয় করে মুন্সিগঞ্জে নিয়ে যান। তারপর থেকেই রাজুর সঙ্গে তার সু-সম্পর্ক গড়ে উঠে। মুন্সিগঞ্জের প্রায় সাড়ে ৫শ’ মানুষ মাজিদের সঙ্গে সিঙ্গাপুরে বসবাস করেন।

বিশেষ কারণে সেখানে ঈদুল আযহায় কেউ কোরবানি দিতে না পারায় মাজিদেরা ৫ বছর ধরে সমন্বিতভাবে দেশেই তাদের এলাকায় এবং বাইরের জেলায় ঈদুল আজহার কোরবানি দিয়ে আসছেন।

কোরবানি দিতে অক্ষমদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতেই ওই প্রবাসীরা দেশের বিভিন্ন স্থানে কোরবানির জন্য গবাদিপশু পাঠায়। এরই ধারাবাহিকতায় এবারের ঈদে পীরগঞ্জবাসীর জন্য প্রবাসী মাজিদ প্রায় ৪০ লাখ টাকা মুল্যের ৩৫টি গরু এবং ৩১০ খাসি কোরবানির জন্য দিয়েছেন।

ঈদের দিন (শনিবার) উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের গনিরবাজারে রাজু মাস্টারের চাতালে প্রথম দফায় সব খাসি এবং রোববার একই স্থানে দ্বিতীয় দফায় ৩৫টি গরু কোরবানি করা হয়।

উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের দ্বারিয়াপুর, করিমপুর, জামদানী, চেরাগপুর ও মাদারপুর গ্রামে এবং পার্শ্ববর্তী চতরা, কাবিলপুর ও রায়পুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের ১ হাজার ১শ’ মানুষের মাঝে ওই মাংস বিতরন করা হয়। এর আগে দুঃস্থদের মাঝে দেয়া মাজিদের টোকেন অনুযায়ী দুস্থরা স্বাস্থ্যবিধি মোতাবেক মাংস সংগ্রহ করেন।

মাংস পেয়ে ধনশালা গ্রামের সুমন মিয়া তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, এমন মহৎ মানুষদের উদ্যোগের কারণে আজ কয়েক হাজার মানুষ মাংস পেলাম। তাদের এই ত্যাগ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

করোনা ও বন্যায় পীরগঞ্জে প্রায় ৫ হাজার মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরনকারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সহকারী অধ্যাপক জাহিদুল ইসলাম রুবেল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, কোরবানি আমাদেরকে ত্যাগ করতে শেখায়। মাজিদ ভাইদের ত্যাগের প্রতিদানে পীরগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে তাদের জন্য দোয়া করি। তারা যেন আরও বেশি করে দান করেন।

রাজু মাস্টার বলেন, মহামারী করোনার কারণে এবারে ঈদুল আযহায় পীরগঞ্জে অনেকেই কোরবানি দিতে পারেননি। তাদের জন্য সিঙ্গাপুর প্রবাসী আবদুল মাজিদ ভাইয়ের কাছ থেকে ৩১০টি খাসি এবং ৩৫টি গরু নিয়ে তাদের নামেই কোরবানি করেছি। ওই মাংস প্রায় ৩ হাজার মানুষ এবং কিছু হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানায় বিতরন করেছি।

তিনি আরও জানান, সিঙ্গাপুরে বসবাসরতদের ১ জনের নামে ১টি করে ৩১০টি খাসি এবং প্রতিটি গরুতে ৭টি করে ২৪৫ জনের নাম দিয়ে মোট ৫৫৫ জনের নামে কোরবানি করা হয়েছে।

দুস্থদের জন্য পীরগঞ্জে সাড়ে ৩শ’ পশু কোরবানি

 পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি 
০৩ আগস্ট ২০২০, ১০:৪৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জের দুস্থদের জন্য সাড়ে ৩শ’ গবাদিপশু কোরবানি দিলেন সিঙ্গাপুর প্রবাসীরা। সিঙ্গপুরে থাকা ৫৫৫ প্রবাসীর নামে এসব পশু কোরবানি দিয়ে দুস্থদের মাঝে বিতরণ করা হয়। প্রবাসীরা সবাই মুন্সিগঞ্জের বাসিন্দা। এ ঘটনায় পীরগঞ্জে ব্যাপক আনন্দ আর সোরগোল পড়ে গেছে।

রোববার দ্বিতীয় দফায় উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের গনিরবাজারে রাজু মাস্টারের চাতালে ৩৫টি গরু কোরবানি করা হয়েছে। ঈদের দিন ৩১০টি খাসি কোরবানি করা হয়।

জানা গেছে, পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের চেরাগপুর গ্রামের মাহমুদুন নবী রাজু মাস্টার (৩৬)। প্রায় ৪ বছর আগে তার কাছে সিঙ্গাপুর প্রবাসী মুন্সিগঞ্জের আবদুল মাজিদ একটি ছোট ট্রাক ভাড়া নিয়ে পীরগঞ্জ থেকে কোরবানির গরু ক্রয় করে মুন্সিগঞ্জে নিয়ে যান। তারপর থেকেই রাজুর সঙ্গে তার সু-সম্পর্ক গড়ে উঠে। মুন্সিগঞ্জের প্রায় সাড়ে ৫শ’ মানুষ মাজিদের সঙ্গে সিঙ্গাপুরে বসবাস করেন।

বিশেষ কারণে সেখানে ঈদুল আযহায় কেউ কোরবানি দিতে না পারায় মাজিদেরা ৫ বছর ধরে সমন্বিতভাবে দেশেই তাদের এলাকায় এবং বাইরের জেলায় ঈদুল আজহার কোরবানি দিয়ে আসছেন।

কোরবানি দিতে অক্ষমদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতেই ওই প্রবাসীরা দেশের বিভিন্ন স্থানে কোরবানির জন্য গবাদিপশু পাঠায়। এরই ধারাবাহিকতায় এবারের ঈদে পীরগঞ্জবাসীর জন্য প্রবাসী মাজিদ প্রায় ৪০ লাখ টাকা মুল্যের ৩৫টি গরু এবং ৩১০ খাসি কোরবানির জন্য দিয়েছেন।

ঈদের দিন (শনিবার) উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের গনিরবাজারে রাজু মাস্টারের চাতালে প্রথম দফায় সব খাসি এবং রোববার একই স্থানে দ্বিতীয় দফায় ৩৫টি গরু কোরবানি করা হয়।

উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের দ্বারিয়াপুর, করিমপুর, জামদানী, চেরাগপুর ও মাদারপুর গ্রামে এবং পার্শ্ববর্তী চতরা, কাবিলপুর ও রায়পুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের ১ হাজার ১শ’ মানুষের মাঝে ওই মাংস বিতরন করা হয়। এর আগে দুঃস্থদের মাঝে দেয়া মাজিদের টোকেন অনুযায়ী দুস্থরা স্বাস্থ্যবিধি মোতাবেক মাংস সংগ্রহ করেন।

মাংস পেয়ে ধনশালা গ্রামের সুমন মিয়া তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, এমন মহৎ মানুষদের উদ্যোগের কারণে আজ কয়েক হাজার মানুষ মাংস পেলাম। তাদের এই ত্যাগ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

করোনা ও বন্যায় পীরগঞ্জে প্রায় ৫ হাজার মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরনকারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সহকারী অধ্যাপক জাহিদুল ইসলাম রুবেল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, কোরবানি আমাদেরকে ত্যাগ করতে শেখায়। মাজিদ ভাইদের ত্যাগের প্রতিদানে পীরগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে তাদের জন্য দোয়া করি। তারা যেন আরও বেশি করে দান করেন।

রাজু মাস্টার বলেন, মহামারী করোনার কারণে এবারে ঈদুল আযহায় পীরগঞ্জে অনেকেই কোরবানি দিতে পারেননি। তাদের জন্য সিঙ্গাপুর প্রবাসী আবদুল মাজিদ ভাইয়ের কাছ থেকে ৩১০টি খাসি এবং ৩৫টি গরু নিয়ে তাদের নামেই কোরবানি করেছি। ওই মাংস প্রায় ৩ হাজার মানুষ এবং কিছু হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানায় বিতরন করেছি।

তিনি আরও জানান, সিঙ্গাপুরে বসবাসরতদের ১ জনের নামে ১টি করে ৩১০টি খাসি এবং প্রতিটি গরুতে ৭টি করে ২৪৫ জনের নাম দিয়ে মোট ৫৫৫ জনের নামে কোরবানি করা হয়েছে।