শেরপুরে কিশোর নির্যাতনের সেই ভিডিও ভাইরাল, গ্রেফতার ৪
jugantor
শেরপুরে কিশোর নির্যাতনের সেই ভিডিও ভাইরাল, গ্রেফতার ৪

  শেরপুর প্রতিনিধি  

০৫ আগস্ট ২০২০, ২১:১০:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ছবি: ভিডিও থেকে নেয়া

শেরপুরে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং কালচার। ৩ আগস্ট এক কিশোরকে ডেকে নিয়ে কয়েকজন কিশোর মিলে নির্মম নির্যাতনের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, ফেসবুকে মেসেজ দেয়াকে কেন্দ্র করে এক কিশোরকে শেরপুর শহরের বটতলা এলাকায় পৌরসভার পুরনো ভবনে ডেকে নিয়ে চার-পাঁচজন কিশোর বেল্ট দিয়ে বেধড়ক মারধর করছে। নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরকে আহত অবস্থায় শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত ওই কিশোরের বড় ভাই বাদী হয়ে মামলা করলে ৪ আগস্ট তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে পুলিশ কিশোর গ্যাংয়ের চার সদস্যকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হল শহরের গোপালবাড়ি এলাকার গোলাম মাহবুবের ছেলে সিয়াম, আমিনুল ইসলাম বাবুলের ছেলে শুভ, বেলাল হোসেনের ছেলে আরমান ও সুজন মিয়ার ছেলে সাজেদুল ইসলাম নাফিন।

এদিকে, নির্যাতনের ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে। শেরপুর সদর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, কোনো মেয়েকে মেসেজ দেয়াকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামিরা স্বীকার করেছে। বুধবার আসামিদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

শেরপুরে কিশোর নির্যাতনের সেই ভিডিও ভাইরাল, গ্রেফতার ৪

 শেরপুর প্রতিনিধি 
০৫ আগস্ট ২০২০, ০৯:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ছবি: ভিডিও থেকে নেয়া
ছবি: ভিডিও থেকে নেয়া

শেরপুরে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং কালচার। ৩ আগস্ট এক কিশোরকে ডেকে নিয়ে কয়েকজন কিশোর মিলে নির্মম নির্যাতনের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, ফেসবুকে মেসেজ দেয়াকে কেন্দ্র করে এক কিশোরকে শেরপুর শহরের বটতলা এলাকায় পৌরসভার পুরনো ভবনে ডেকে নিয়ে চার-পাঁচজন কিশোর বেল্ট দিয়ে বেধড়ক মারধর করছে। নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরকে আহত অবস্থায় শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত ওই কিশোরের বড় ভাই বাদী হয়ে মামলা করলে ৪ আগস্ট তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে পুলিশ কিশোর গ্যাংয়ের চার সদস্যকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হল শহরের গোপালবাড়ি এলাকার গোলাম মাহবুবের ছেলে সিয়াম, আমিনুল ইসলাম বাবুলের ছেলে শুভ, বেলাল হোসেনের ছেলে আরমান ও সুজন মিয়ার ছেলে সাজেদুল ইসলাম নাফিন।

এদিকে, নির্যাতনের ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে। শেরপুর সদর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, কোনো মেয়েকে মেসেজ দেয়াকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামিরা স্বীকার করেছে। বুধবার আসামিদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন