অপকর্ম ঢাকতে এবার সরাইলে ‘গায়েবি দেয়াল’!

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ০৯ আগস্ট ২০২০, ২২:২৫:৫৩ | অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুরের বিরুদ্ধে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) প্রকল্পে অনিয়ম-দুর্নীতি, কাজ না করে টাকা আত্মসাৎ, সরকারি টাকায় ব্যক্তিগত রাস্তা ও দেয়াল নির্মাণের নানান অভিযোগ ওঠে। এরপর প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে রাতের আঁধারে একটি পুকুরের প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম (ফেসবুক) ও স্থানীয়দের মাঝে সমালোচনার ঝড় বইছে। স্থানীয়রা বলছেন, অপকর্ম ঢাকতেই এ গায়েবি দেয়াল নির্মাণ করা হয়েছে।

সরাইল উপজেলা প্রকৌশলী বলছেন এ দেয়াল সম্পর্কে তার জানা নেই। তবে উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর কোনো অনিয়মের সঙ্গে জড়িত না বলে তিনি দাবি করেন।

জানা গেছে, জেলার সরাইল উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুরের বিরুদ্ধে স্থানীয় সৈয়দটুলা গ্রামের মোশারফ উদ্দিন ও কুট্টাপাড়া গ্রামের শেখ আবুল কালাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন। এতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) প্রকল্পে অনিয়ম-দুর্নীতি, কাজ না করে টাকা আত্মসাৎ, সরকারি টাকায় ব্যক্তিগত রাস্তা ও দেয়াল নির্মাণের অভিযোগ করা হয়।

এ অভিযোগপত্রে অন্যান্য প্রকল্পের পাশাপাশি দরপত্র প্রকল্প-১ প্যাকেজ-৬ প্রকল্প কালীকচ্ছ নন্দীপাড়া তকদির চেয়ারম্যানের পুকুরের রাস্তার পাশে রিটার্নিং দেয়াল নির্মাণ না করেও টাকা আত্মসাতের কথা উল্লেখ করা হয়। এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সরেজমিন গিয়ে কালীকচ্ছ তকদির চেয়ারম্যানের পুকুরের প্রতিরক্ষা দেয়ালের কোনো অস্তিত্ব না পেয়ে যুগান্তরে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। সংবাদ প্রকাশের পর সমালোচনার মুখে নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে রাতারাতি ওই পুকুরে নামকাওয়াস্তে ইট দিয়ে গায়েবি একটি দেয়াল নির্মাণ করে সরাইল স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ।

স্থানীয় এহসান ভূঁইয়া রাব্বি জানান, শুক্রবার ওই পুকুরে দুইটি মেশিনে পানি শুকানো হয়। তখন ভেবেছিলাম, হয়তো পুকুরটিতে মাছ ধরা হবে। কিন্তু পরের দিন শনিবার রাতে ২৫-৩০ জন লোক পুকুরের পাড়ে ইট দিয়ে দেয়াল নির্মাণ শুরু করেন। সকালে পুকুরের এই প্রতিরক্ষা দেয়াল দেখে আমরা বিস্মিত হয়। রাতারাতি এই দেয়াল কীভাবে হল? তারা এই দেয়ালকে গায়েবি দেয়াল হিসেবে অবহিত করছেন।

সরাইল উপজেলা প্রকৌশলী (ভারপ্রাপ্ত) নিলুফার ইয়াছমিন বলেন, আমি বেশির ভাগ প্রকল্প দেখেই বিল দিয়েছি। এ দেয়াল সম্পর্কে জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে মন্তব্য করতে পারব।

এ বিষয়ে সরাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর জানান, তিনি কোনো রকম অনিয়মের সঙ্গে জড়িত নয়। এছাড়া কোনো প্রকল্প থেকে তিনি কোনো কমিশনও নেন না বলে দাবি করেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত