বরিশালে স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে
jugantor
বরিশালে স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

  বরিশাল ব্যুরো ও বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি  

১১ আগস্ট ২০২০, ২১:০৮:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

জালিয়াতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার বিরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে এই অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাওলানা মো. হাতেম আলী খান।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১১৯নং বিরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদার বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বরাদ্দে ৩ লাখ ৫১ হাজার ৩৮০ টাকা সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন সময় উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

সোনালী ব্যাংক বাকেরগঞ্জ শাখায় সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যৌথ হিসাব নম্বরের ব্যাংক স্টেটমেন্টে দেখা গেছে, ভিন্ন ভিন্ন তারিখে ১১টি চেকের মাধ্যমে ৩ লাখ ৫০ হাজার ৩০০ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে; যার প্রতিটি চেকে সভাপতির স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে বলে ওই লিখিত অভিযোগে দাবি করেন সভাপতি।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের সভাপতি মাওলানা মো. হাতেম আলী খান যুগান্তরকে বলেন, আমি শারীরিক অসুস্থ হওয়ায় তার কাছে চেকবই রাখি আর এই সুযোগে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বরাদ্দের ৩ লাখ ৫১ হাজার ৩৮০ টাকা আমার স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে তুলে বিদ্যালয়ের উন্নয়নমূলক কোনো কাজ না করে সম্পূর্ণ টাকা আত্মসাৎ করেছেন প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদার। আমি সম্প্রতি ব্যাংক থেকে স্টেটমেন্ট এনে এ অবস্থা দেখে প্রধান শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তিনি আত্মসাতের কথা অস্বীকার করেন। উপায় না পেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদারের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে একাধিক কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খোন্দকার জসিম আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। যদি অভিযোগ সঠিক হয় তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বরিশালে স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

 বরিশাল ব্যুরো ও বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি 
১১ আগস্ট ২০২০, ০৯:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জালিয়াতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার বিরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে এই অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মাওলানা মো. হাতেম আলী খান।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১১৯নং বিরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদার বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বরাদ্দে ৩ লাখ ৫১ হাজার ৩৮০ টাকা সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন সময় উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

সোনালী ব্যাংক বাকেরগঞ্জ শাখায় সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যৌথ হিসাব নম্বরের ব্যাংক স্টেটমেন্টে দেখা গেছে, ভিন্ন ভিন্ন তারিখে ১১টি চেকের মাধ্যমে ৩ লাখ ৫০ হাজার ৩০০ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে; যার প্রতিটি চেকে সভাপতির স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে বলে ওই লিখিত অভিযোগে দাবি করেন সভাপতি।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের সভাপতি মাওলানা মো. হাতেম আলী খান যুগান্তরকে বলেন, আমি শারীরিক অসুস্থ হওয়ায় তার কাছে চেকবই রাখি আর এই সুযোগে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বরাদ্দের ৩ লাখ ৫১ হাজার ৩৮০ টাকা আমার স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে তুলে বিদ্যালয়ের উন্নয়নমূলক কোনো কাজ না করে সম্পূর্ণ টাকা আত্মসাৎ করেছেন প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদার। আমি সম্প্রতি ব্যাংক থেকে স্টেটমেন্ট এনে এ অবস্থা দেখে প্রধান শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তিনি আত্মসাতের কথা অস্বীকার করেন। উপায় না পেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মো. মাহামুদ সিকদারের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে একাধিক কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খোন্দকার জসিম আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। যদি অভিযোগ সঠিক হয় তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।