হোমনায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত
jugantor
হোমনায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত

  হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১২ আগস্ট ২০২০, ১৪:৫৮:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

হোমনায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত

গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে নুরুন্নবী (২৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

বুধবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার মিঠাইভাঙা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নুরুন্নবী আড়ালিয়াকান্দি গ্রামের মো. জীবন মিয়ার ছেলে।

আহতদের মধ্যে সাবেক ইউপি সদস্য আবদুস সামাদ (৬০), তার ভাই আবদুল করিম (৬৫) ও জাহাঙ্গীর আলমকে (২২) গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের মিঠাইভাঙা গ্রামের আধিপত্য নিয়ে সাবেক ইউপি সদস্য আবদস সামাদ মেম্বারের সঙ্গে বর্তমান ইউপি সদস্য রমজান আলীর বিরোধ চলছিল।

গত কয়েক মাস আগে আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর থেকে রমজান আলী মেম্বারসহ তার অনুসারীরা গ্রামের বাইরে অবস্থান করছিল।

বুধবার ভোর ৫টার দিকে রমজান মেম্বারের ভাই জুনাব আলীর নেতৃত্বে মিঠাইভাঙা গ্রামে গেলে সামাদ মেম্বারের লোকজন তাদের বাধা দেয়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে নুরুন্নবী নিহত হন, আহত হন সাবেক ইউপি সদস্যসহ বেশ কয়েকজন।

আহতদের হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

এদিকে নিহত নুরুন্নবীর মা সুরাইয়া বেগম বলেন, আমার ছেলে বউ নিয়ে ঈদে বাড়িতে বেড়াতে আসে। মঙ্গলবার ছেলে ঢাকা যাওয়ার পথে সামাদ মেম্বারের ছেলে কাইয়ুম ও গনি আমার ছেলেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতে ছেলে বাড়ি ফিরেনি।

আজ সকালে গণ্ডগোলের কথা শুনে গিয়ে দেখি আমার ছেলে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। তার শরীরে কোপের চিহ্ন রয়েছে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (হোমনা সার্কেল) মো. ফজলুল করিম যুগান্তরকে জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে সামাদ মেম্বার ও রমজান মেম্বারের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে নুরুন্নবী নামে একজন নিহত হয়েছেন।

এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে, আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান ফজলুল করিম।

হোমনায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত

 হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১২ আগস্ট ২০২০, ০২:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হোমনায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত
ফাইল ছবি

গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় দুগ্রুপের সংঘর্ষে নুরুন্নবী (২৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

বুধবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার মিঠাইভাঙা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নুরুন্নবী আড়ালিয়াকান্দি গ্রামের মো. জীবন মিয়ার ছেলে।

আহতদের মধ্যে সাবেক ইউপি সদস্য আবদুস সামাদ (৬০), তার ভাই আবদুল করিম (৬৫) ও জাহাঙ্গীর আলমকে (২২) গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের মিঠাইভাঙা গ্রামের আধিপত্য নিয়ে সাবেক ইউপি সদস্য আবদস সামাদ মেম্বারের সঙ্গে বর্তমান ইউপি সদস্য রমজান আলীর বিরোধ চলছিল।

গত কয়েক মাস আগে আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর থেকে রমজান আলী মেম্বারসহ তার অনুসারীরা গ্রামের বাইরে অবস্থান করছিল।

বুধবার ভোর ৫টার দিকে রমজান মেম্বারের ভাই জুনাব আলীর নেতৃত্বে  মিঠাইভাঙা গ্রামে গেলে সামাদ মেম্বারের লোকজন তাদের বাধা দেয়।  এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে নুরুন্নবী নিহত হন, আহত হন সাবেক ইউপি সদস্যসহ বেশ কয়েকজন।

আহতদের হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

এদিকে নিহত নুরুন্নবীর মা সুরাইয়া বেগম বলেন, আমার ছেলে বউ নিয়ে ঈদে বাড়িতে বেড়াতে আসে। মঙ্গলবার ছেলে ঢাকা যাওয়ার পথে  সামাদ মেম্বারের ছেলে কাইয়ুম ও গনি আমার ছেলেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতে ছেলে বাড়ি ফিরেনি।

আজ সকালে গণ্ডগোলের কথা শুনে গিয়ে দেখি আমার ছেলে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। তার শরীরে কোপের চিহ্ন রয়েছে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (হোমনা সার্কেল) মো. ফজলুল করিম যুগান্তরকে জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে সামাদ মেম্বার ও রমজান মেম্বারের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে নুরুন্নবী নামে একজন নিহত হয়েছেন।
 
এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে, আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।  এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান ফজলুল করিম।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন