হবিগঞ্জে চেয়ারম্যানকে ১ বছরের কারাদণ্ড, জরিমানা ৮৫ লাখ টাকা
jugantor
হবিগঞ্জে চেয়ারম্যানকে ১ বছরের কারাদণ্ড, জরিমানা ৮৫ লাখ টাকা

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি  

১২ আগস্ট ২০২০, ১৮:৩৩:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল আওয়াল তালুকদারকে এক বছরের কারাদণ্ড ও ৮৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

একই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান তাজউদ্দিনের দায়ের করা একটি চেক জালিয়াতি মামলায় বুধবার দুপুরে যুগ্ম জেলা জজ (২) আদালতের বিচারক মো. শহিদুল আমিন এ রায় প্রদান করেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল আওয়াল তালুকদার তাবানী কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের জন্য জমি ক্রয় করার লক্ষ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান তাজউদ্দিনের কাছ থেকে ৮৫ লাখ টাকা ধার নেন। এর বিপরীতে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি ইসলামী ব্যাংক হবিগঞ্জ শাখার ৮৫ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করেন। তখন আবদুল আওয়াল চেয়ারম্যান ছিলেন।

একই বছরের ১৫ জানুয়ারি তাজউদ্দিন টাকা তুলতে গেলে ব্যাংক চেকটি ডিজঅনার করে। ফলে ২১ জানুয়ারি তাজউদ্দিন একটি লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করেন। লিগ্যাল নোটিশের জবাব না পেয়ে ২৬ জানুয়ারি আবদুল আওয়াল তালুকদারকে আসামি করে যুগ্ম জেলা জজ (২) আদালতে একটি চেক ডিজঅনার মামলার করেন।

মামলায় উভয়পক্ষের ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত বুধবার এ রায় প্রদান করেন। এ সময় আসামি আবদুল আওয়াল তালুকদার এজলাসে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী আবুল ফজল বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

হবিগঞ্জে চেয়ারম্যানকে ১ বছরের কারাদণ্ড, জরিমানা ৮৫ লাখ টাকা

 হবিগঞ্জ প্রতিনিধি 
১২ আগস্ট ২০২০, ০৬:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল আওয়াল তালুকদারকে এক বছরের কারাদণ্ড ও ৮৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

একই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান তাজউদ্দিনের দায়ের করা একটি চেক জালিয়াতি মামলায় বুধবার দুপুরে যুগ্ম জেলা জজ (২) আদালতের বিচারক মো. শহিদুল আমিন এ রায় প্রদান করেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল আওয়াল তালুকদার তাবানী কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের জন্য জমি ক্রয় করার লক্ষ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান তাজউদ্দিনের কাছ থেকে ৮৫ লাখ টাকা ধার নেন। এর বিপরীতে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি ইসলামী ব্যাংক হবিগঞ্জ শাখার ৮৫ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করেন। তখন আবদুল আওয়াল চেয়ারম্যান ছিলেন।

একই বছরের ১৫ জানুয়ারি তাজউদ্দিন টাকা তুলতে গেলে ব্যাংক চেকটি ডিজঅনার করে। ফলে ২১ জানুয়ারি তাজউদ্দিন একটি লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করেন। লিগ্যাল নোটিশের জবাব না পেয়ে ২৬ জানুয়ারি আবদুল আওয়াল তালুকদারকে আসামি করে যুগ্ম জেলা জজ (২) আদালতে একটি চেক ডিজঅনার মামলার করেন।

মামলায় উভয়পক্ষের ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত বুধবার এ রায় প্রদান করেন। এ সময় আসামি আবদুল আওয়াল তালুকদার এজলাসে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী আবুল ফজল বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন