দশমিনায় ছাত্রলীগ নেতাকে পেটাল ভাইয়া বাহিনী

  পটুয়াখালী ও দক্ষিণ প্রতিনিধি ১৩ আগস্ট ২০২০, ২১:১৫:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

পটুয়াখালী

পটুয়াখালীর দশমিনায় ফেসবুকে পোস্ট নিয়ে ভাইয়া বাহিনীর হাতে সবুজ হোসেন (২৫) নামে এক ছাত্রলীগ নেতা হামলার শিকার হয়েছেন। সবুজ দশমিনা সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলে জানা গেছে। দশমিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইকবাল মাহামুদ লিটনের ছোট ভাই আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েমের নেতৃত্বে বুধবার রাত ৮টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেন আহত সবুজ। আহত সবুজ দশমিনা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

আহত ছাত্রলীগ নেতার অভিযোগ- বুধবার রাতে তিনি দশমিনা উপজেলা কোর্ট চত্বর অর্থাৎ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইকবাল মাহামুদ লিটনের বাস ভবনস্থ সড়ক দিয়ে যাচ্ছিল। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা লিটনের ছোট ভাই সায়েমের নেতৃত্বে অন্তত ১০টি মোটরসাইকেলে কবির হোসেন, তরিকুল ইসলাম, সোহাগ প্যাদা, ইলিয়াস হোসেন, রাকিবুল ইসলামসহ ২০-২৫ জনের একটি বাহিনী সবুজের ওপর অতর্কিত ঝাঁপিয়ে পড়ে মারধর শুরু করে। এ সময় হামলাকারীরা সবুজকে ব্যাপক মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। মারধরের কারণ জানতে চাইলে হামলাকারীরা জানায়- ইতোপূর্বে তুই উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা লিটনের বিরুদ্ধে চাল চুরির ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে নানা মন্তব্য পোস্ট করেছিস।

আহত সবুজ আরও জানান- সম্প্রতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহামুদ লিটনের বিরুদ্ধে ভিজিডির চাল চুরি নিয়ে অভিযোগ উঠলে তারা ফেসবুকে পোস্ট করে বিচারের দাবি জানান। এ ঘটনার সূত্র ধরে হামলার ঘটনা ঘটেছে।

অপর একটি সূত্র নিশ্চিত করে জানায়- কেন্দ্রীয় সাবেক যুবলীগের সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক প্রিন্স মহব্বত করোনা পরিস্থিতিতে গলাচিপা-দশমিনা এলাকায় মানবিক সহায়তা প্রদান নিয়ে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা আপত্তিকর মন্তব্য করেন। এ ঘটনায় সবুজ প্রতিবাদ করলে প্রিন্স প্রতিপক্ষরা সবুজকে মারধর করে। হামলার ঘটনা স্বীকার করে সোহাগ বলেন- প্রথমে প্রিন্স সমর্থক জনৈক আলাউদ্দিন মাস্টারের সাথে আলীপুরা বসে ইলিয়াসের বাকবিতণ্ডা হয়। এ নিয়ে দ্বিতীয় দফা লিটন চেয়ারম্যানের বাসার সামনে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে মারধরের ঘটনা ঘটে। পরে চেয়ারম্যানের ছোট ভাই সায়েম পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সবুজের খারাপ আচরণের জন্য মার খেয়েছে। সোহাগ প্যাদা আরও বলেন, এর আগেও সবুজ ইকবাল মাহামুদ লিটন ভাইকে নিয়ে ফেসবুকে নানান মন্তব্য করেছে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতার ভাই সাবেক যুবলীগ নেতা আবু শাহদাত সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বলেন- আমি কোনো হামলা করিনি, উল্টো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেছি। এ প্রসঙ্গে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান সিকদার হামলার ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের শাস্তি দাবি করেছেন।

এ ঘটনায় দশমিনা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জসিম জানান- ঘটনা শুনে আমি পুলিশ পাঠিয়েছি। ঘটনা অপরাধযোগ্য হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত