অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার
jugantor
অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

  শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

১৫ আগস্ট ২০২০, ২০:২০:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা

গাজীপুরের শ্রীপুরে অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ ও ভিডিওচিত্র ধারণের অভিযোগে উজ্জল মিয়া (৩২) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। উজ্জল মিয়া মানিকগঞ্জ জেলা সদরের নয়নকান্দি গ্রামের মৃত নাসির উদ্দিনের ছেলে। সে শ্রীপুরের মাওনা উত্তরপাড়া গ্রামের শামীম মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করত।

ওই নারী তার স্বামীসহ একই বাড়িতে ভাড়া থাকত। শুক্রবার রাতে শ্রীপুরের মাওনা উত্তরপাড়া এলাকা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

অন্তঃসত্ত্বা নারী ও তার স্বামী জানান, উজ্জল মিয়া মাওনা উত্তরপাড়া এলাকায় ওই নারীর স্বামীর সহকারী হিসেবে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রির কাজ করত। এ সুবাদে ওই নারীর বাসায় যুবকের যাতায়াত ছিল। গত ৭ জুলাই নারীর স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। ওই রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণ ও তা ভিডিও করে। পরে ওই ভিডিও স্বামীকে দেখানোর ভয় দেখিয়ে আরও কমপক্ষে পাঁচদিন ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ওই নারী তার স্বামীকে ঘটনা খুলে বলে। বিষয়টি বাড়ির মালিক শামীম ও স্থানীয় মাহবুবকে জানায়। তারা বিচারের আশ্বাস দিয়ে বিষয়টি কাউকে জানাতে নিষেধ করে। এর কয়েকদিন পর ওই নারী ও তার স্বামীকে আটকে রেখে ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে মোবাইলে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি নেয়। পরে ওই নারী ও তার স্বামীকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা লাগিয়ে দেয়।

এ বিষয়ে শ্রীপুর থানার এসআই প্রদীপ চন্দ্র সাহা বলেন, ১৪ আগস্ট শুক্রবার রাতে এ ঘটনায় শ্রীপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। প্রধান অভিযুক্ত যুবক উজ্জল মিয়াকে রাতেই গ্রেফতার করা হয়েছে। বাড়ির মালিক শামীম ও স্থানীয় মাহবুবকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

 শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
১৫ আগস্ট ২০২০, ০৮:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঢাকা
ঢাকা

গাজীপুরের শ্রীপুরে অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ ও ভিডিওচিত্র ধারণের অভিযোগে উজ্জল মিয়া (৩২) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। উজ্জল মিয়া মানিকগঞ্জ জেলা সদরের নয়নকান্দি গ্রামের মৃত নাসির উদ্দিনের ছেলে। সে শ্রীপুরের মাওনা উত্তরপাড়া গ্রামের শামীম মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করত।

 

ওই নারী তার স্বামীসহ একই বাড়িতে ভাড়া থাকত। শুক্রবার রাতে শ্রীপুরের মাওনা উত্তরপাড়া এলাকা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

 

অন্তঃসত্ত্বা নারী ও তার স্বামী জানান, উজ্জল মিয়া মাওনা উত্তরপাড়া এলাকায় ওই নারীর স্বামীর সহকারী হিসেবে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রির কাজ করত। এ সুবাদে ওই নারীর বাসায় যুবকের যাতায়াত ছিল। গত ৭ জুলাই নারীর স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। ওই রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণ ও তা ভিডিও করে। পরে ওই ভিডিও স্বামীকে দেখানোর ভয় দেখিয়ে আরও কমপক্ষে পাঁচদিন ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ওই নারী তার স্বামীকে ঘটনা খুলে বলে। বিষয়টি বাড়ির মালিক শামীম ও স্থানীয় মাহবুবকে জানায়। তারা বিচারের আশ্বাস দিয়ে বিষয়টি কাউকে জানাতে নিষেধ করে। এর কয়েকদিন পর ওই নারী ও তার স্বামীকে আটকে রেখে ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে মোবাইলে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি নেয়। পরে ওই নারী ও তার স্বামীকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা লাগিয়ে দেয়।

 

এ বিষয়ে শ্রীপুর থানার এসআই প্রদীপ চন্দ্র সাহা বলেন, ১৪ আগস্ট শুক্রবার রাতে এ ঘটনায় শ্রীপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। প্রধান অভিযুক্ত যুবক উজ্জল মিয়াকে রাতেই গ্রেফতার করা হয়েছে। বাড়ির মালিক শামীম ও স্থানীয় মাহবুবকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন