নিখোঁজের পর ডোবায় মিলল চাচি-ভাতিজির লাশ
jugantor
নিখোঁজের পর ডোবায় মিলল চাচি-ভাতিজির লাশ

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

১৬ আগস্ট ২০২০, ২৩:০০:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে নিখোঁজের দুই দিন পর এক গৃহবধূ ও তার দেড় বছর বয়সী ভাতিজির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার বিকালে শহরের বিলাসদীর আল্লাহ চত্বর এলাকায় রেললাইনের পাশের একটি ডোবায় লাশ দুটি পাওয়া যায়।

মৃতরা হলেন- শহরের বিলাসদী আল্লাহ চত্বর এলাকার মাসুদ মিয়ার স্ত্রী সেলিনা বেগম (৪০) ও জহিরুল ইসলামের মেয়ে হাফসা আক্তার।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে সেলিনা দেবরের মেয়ে হাফসাকে কোলে নিয়ে হাঁটতে বের হন। এরপর তারা আর ফেরেননি। পরিবারের লোকজন আত্মীয়-স্বজনসহ সম্ভাব্য স্থানে খোঁজাখুঁজি ও মাইকিং করে তাদের খোঁজ না পেয়ে শুক্রবার রাতেই সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

রোববার দুপুরে বাড়ি থেকে ৪০০ গজ দূরের একটি ডোবা থেকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। পরে লোকজন ডোবায় কচুরিপানার ভেতর লাশ ভেসে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করে। পরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। লাশ দুটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশ ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেলিনা মৃগী রোগে আক্রান্ত ছিলেন। প্রতিদিন সকালে তিনি হাঁটতে বের হতেন। হাঁটতে বের হয়ে তিনি রেললাইন, ডোবা বা পুকুর থেকে বিভিন্ন ধরনের শাক-লতাপাতা সংগ্রহ করে আনতেন।

নরসিংদী মডেল থানার ওসি বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী বলেন, ওই নারী ও শিশুর শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলে তাদের মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

নিখোঁজের পর ডোবায় মিলল চাচি-ভাতিজির লাশ

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
১৬ আগস্ট ২০২০, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে নিখোঁজের দুই দিন পর এক গৃহবধূ ও তার দেড় বছর বয়সী ভাতিজির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার বিকালে শহরের বিলাসদীর আল্লাহ চত্বর এলাকায় রেললাইনের পাশের একটি ডোবায় লাশ দুটি পাওয়া যায়।

মৃতরা হলেন- শহরের বিলাসদী আল্লাহ চত্বর এলাকার মাসুদ মিয়ার স্ত্রী সেলিনা বেগম (৪০) ও জহিরুল ইসলামের মেয়ে হাফসা আক্তার।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে সেলিনা দেবরের মেয়ে হাফসাকে কোলে নিয়ে হাঁটতে বের হন। এরপর তারা আর ফেরেননি। পরিবারের লোকজন আত্মীয়-স্বজনসহ সম্ভাব্য স্থানে খোঁজাখুঁজি ও মাইকিং করে তাদের খোঁজ না পেয়ে শুক্রবার রাতেই সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

রোববার দুপুরে বাড়ি থেকে ৪০০ গজ দূরের একটি ডোবা থেকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। পরে লোকজন ডোবায় কচুরিপানার ভেতর লাশ ভেসে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করে। পরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।  লাশ দুটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশ ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সেলিনা মৃগী রোগে আক্রান্ত ছিলেন। প্রতিদিন সকালে তিনি হাঁটতে বের হতেন। হাঁটতে বের হয়ে তিনি রেললাইন, ডোবা বা পুকুর থেকে বিভিন্ন ধরনের শাক-লতাপাতা সংগ্রহ করে আনতেন।

নরসিংদী মডেল থানার ওসি বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী বলেন, ওই নারী ও শিশুর শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলে তাদের মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন