যমুনা টিভির মধ্যস্থতায় আত্মসমর্পণ করবে আরও ৩ বনদস্যু বাহিনী

  বাগেরহাট প্রতিনিধি ৩১ মার্চ ২০১৮, ২০:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

সুন্দরবনের দস্যু

সুন্দরবনে দস্যুতা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে বনদস্যু বাহিনী ডন, ছোট জাহাঙ্গীর ও সুমন বাহিনীর ২৭ দস্যু বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ ও অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করবে। যমুনা টিভির মধ্যস্থতায় রোববার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের উপস্থিতিতে বাগেরহাট স্বাধীনতা উদ্যানে আনুষ্ঠানিকভাবে বনদস্যুরা আত্মসমর্পণ করবে।

র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদসহ বিভিন্ন বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন র‌্যাব -৬ এর অধিনায়ক খোন্দকার রফিকুল ইসলাম।

এর আগেও যমুনা টেলিভিশনের সহযোগিতায় ১৭টি বনদস্যু বাহিনীর ১৯০ জন বনদস্যু দস্যুতা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে র‌্যাবের হাতে ১৬ হাজার ৮৫৫টি গুলি জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করেছিল।

এদিকে ১৭ বাহিনীর বনদস্যুরা আত্মসমর্পণ করলেও সুন্দরবনের দস্যুদের তৎপরতা থেমে নেই। সুন্দরবনে এখনো বেশ কয়েকটি বাহিনী জেলে-বনজীবীদের মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ বাণিজ্য চালিয়ে আসছে। আত্মসমর্পণ করা বা বন্দুকযুদ্ধে নিহত বাহিনীগুলোর দলছুট সদস্যরা নতুন নামে নতুন বাহিনী গঠন করে এই অপহরণ বাণিজ্য অব্যাহত রেখেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনসহ উপকূলীয় এলাকায় জেলে বহরে হানা দিয়ে মাছ লুট ও অপহরণের ঘটনা নতুন করে আতংক দেখা দিয়েছে। শুধু মার্চ মাসে বনদস্যুদের হাতে সুন্দরবনের ওপর নির্ভরশীল জেলেদের মুক্তিপণের দাবিতে একাধিক অপহরণের ঘটনা ঘটেছে।

গত ২৮ মার্চ পূর্ব সুন্দরবনের কুখ্যাত বনদস্যু ছোট্ট বাহিনীর হাতে জিম্মি থাকা তিন জেলে মুক্তিপণ দিয়ে ছয় দিন পর ফিরে আসতে সক্ষম হয়েছে। জেলেদের মহাজনরা বিকাশের মাধ্যমে ৭৫ হাজার টাকা পরিশোধ করার পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

এর আগে গত ২৪ মার্চ রাতে পূর্ব সুন্দরবনে চাঁদপাই রেঞ্জের ভাইজোড়া খালে স্মার্ট প্যাট্রলিং টিমের সঙ্গে অজ্ঞাত বনদস্যুদের গুলিবিনিময়ের ঘটনা ঘটে। প্রায় আধঘণ্টা গুলিবিনিময় শেষে ঘটনাস্থল থেকে বনদস্যুদের ব্যবহৃত একটি নৌকা ও দুটি মোবাইল সিম উদ্ধার করে স্মার্টটিমের সদস্যরা।

গত ৩ মার্চ বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনে বনরক্ষী ও কোস্টগার্ডের যৌথ অভিযান চালিয়ে বনদস্যু মামা ভাগনে বাহিনীর হাত থেকে সাত জেলে, তিনটি ফিশিং ট্রলার একটি নৌকা উদ্ধার করা হয়। একই দিন দুপুরে কটকা বনরক্ষী এবং ওই বনদস্যু বাহিনীর মধ্যে প্রায় আধঘণ্টা ধরে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় বনরক্ষীরা বনদস্যুদের কবল থেকে ৬ জেলে ও ৪টি মাছ ধরা নৌকা উদ্ধার করেন।

এ নিয়ে যৌথ বাহিনীর অভিযানে ১৩ জেলে, তিনটি ইঞ্জিনচালিত ফিশিং ট্রলার ও পাঁচটি মাছ ধরা নৌকা উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া ১৩ জেলের বাড়ি খুলনার দাকোপ, সাতক্ষীরার কয়রা, বরগুনার পাথরঘাটা ও বাগেরহাটের ফরিকহাট উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×