এমপি-মেয়রকে নিয়ে পোস্ট, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
jugantor
এমপি-মেয়রকে নিয়ে পোস্ট, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

  দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি  

১৯ আগস্ট ২০২০, ১৯:২৬:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুনের বক্তব্যের ভিডিও বিকৃত করে ও পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপুর বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাল নিয়ে মিথ্যা অপবাদ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দেয়ার ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করেছে দুই গ্রুপ।

বুধবার সকালে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেন ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মাফিজুর রহমান মাফি বাদী হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা দায়ের করেন।

জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেনের দায়ের করা মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম নিপ্পনসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৪০/৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, গত ১৩ আগস্ট জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে ‘অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণে ওয়ার্কশপ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অংশ নেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। এ সময় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে ১৬ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড বক্তব্য রাখেন। কিন্তু ওই বক্তব্য ইচ্ছাকৃতভাবে কর্তন ও এডিট করে ৩০ সেকেন্ডের একটি অসত্য ও বিকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক) প্রচার করা হয়।

অপরদিকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মাফিজুর রহমান মাফি জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেনসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একই ধারার মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, গত ১৭ আগস্ট ভিজিএফের চাল নিয়ে চুয়াডাঙ্গার পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমানের নামে মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য প্রচার করা হয়। আসামিরা তাদের ব্যক্তিগত ফেসবুক ওয়ালে মেয়রের নামে ভিত্তিহীন অপবাদ দিয়ে কুরুচিপূর্ণ স্টেটাস দেয়।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, চুয়াডাঙ্গায় আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ দুটি ধারায় বিভক্ত। দুটি গ্রুপের মধ্যে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইতোপূর্বে মারামারি হয়েছে। গত ২৮ জুলাই ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরিব অসহায়দের মাঝে ভিজিএফের চাল বিতরণকে কেন্দ্র করে পৌর মেয়রের কার্যালয়ে এমপি ও পৌর মেয়রের সমর্থকদের মাঝে বেশ অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পৌর মেয়র এবং এমপি গ্রুপের সমর্থকরা পৌরসভার সামনে পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে মানববন্ধনের মাধ্যমে একে অপরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে। এসব ঘটনা নিয়ে এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠানস্থলের বক্তব্য বা বক্তব্যের আংশিক কর্তন করে কিংবা বিকৃতভাবে সামাজিক মাধ্যমে দুই গ্রুপেরই কিছু চিহ্নিত উচ্ছৃঙ্খল রাজনৈতিক কর্মী বা নেতা জেলার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে বাজে মন্তব্য করতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে দুটি গ্রুপই পাল্টাপাল্টি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে ওসি জানান।

এমপি-মেয়রকে নিয়ে পোস্ট, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

 দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি 
১৯ আগস্ট ২০২০, ০৭:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুনের বক্তব্যের ভিডিও বিকৃত করে ও পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপুর বিরুদ্ধে ভিজিএফের চাল নিয়ে মিথ্যা অপবাদ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দেয়ার ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করেছে দুই গ্রুপ।

বুধবার সকালে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেন ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মাফিজুর রহমান মাফি বাদী হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা দায়ের করেন।

জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেনের দায়ের করা মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম নিপ্পনসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৪০/৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, গত ১৩ আগস্ট জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে ‘অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণে ওয়ার্কশপ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অংশ নেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। এ সময় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে ১৬ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড বক্তব্য রাখেন। কিন্তু ওই বক্তব্য ইচ্ছাকৃতভাবে কর্তন ও এডিট করে ৩০ সেকেন্ডের একটি অসত্য ও বিকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক) প্রচার করা হয়।

অপরদিকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মাফিজুর রহমান মাফি জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুল হোসেনসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একই ধারার মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, গত ১৭ আগস্ট ভিজিএফের চাল নিয়ে চুয়াডাঙ্গার পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমানের নামে মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য প্রচার করা হয়। আসামিরা তাদের ব্যক্তিগত ফেসবুক ওয়ালে মেয়রের নামে ভিত্তিহীন অপবাদ দিয়ে কুরুচিপূর্ণ  স্টেটাস দেয়।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, চুয়াডাঙ্গায় আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ দুটি ধারায় বিভক্ত। দুটি গ্রুপের মধ্যে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইতোপূর্বে মারামারি হয়েছে। গত ২৮ জুলাই ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরিব অসহায়দের মাঝে ভিজিএফের চাল বিতরণকে কেন্দ্র করে পৌর মেয়রের কার্যালয়ে এমপি ও পৌর মেয়রের সমর্থকদের মাঝে বেশ অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পৌর মেয়র এবং এমপি গ্রুপের সমর্থকরা পৌরসভার সামনে পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে মানববন্ধনের মাধ্যমে একে অপরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে। এসব ঘটনা নিয়ে এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠানস্থলের বক্তব্য বা বক্তব্যের আংশিক কর্তন করে কিংবা বিকৃতভাবে সামাজিক মাধ্যমে দুই গ্রুপেরই কিছু চিহ্নিত উচ্ছৃঙ্খল রাজনৈতিক কর্মী বা নেতা জেলার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে বাজে মন্তব্য করতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে দুটি গ্রুপই পাল্টাপাল্টি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে ওসি জানান।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন