‘ওসি প্রদীপের জামিনের জন্য হাইকোর্টে যাব’
jugantor
‘ওসি প্রদীপের জামিনের জন্য হাইকোর্টে যাব’

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

২৮ আগস্ট ২০২০, ১৯:২৪:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যার ঘটনায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপকে বারবার রিমান্ডে না নেয়া এবং তার জামিনের জন্য উচ্চ আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী।

জানা গেছে, দ্বিতীয় দফায় চারদিনের রিমান্ড শেষে শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে মামলার অন্যতম তিন আসামী বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দদুলাল রক্ষিতকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহ।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তফা জানান, মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা অধিকতর তদন্তের স্বার্থে তৃতীয় দফায় ৪ দিনের রিমান্ডে আবেদন জানান। এটি একটি স্পর্শকাতর মামলা হিসেবে রিমান্ড মঞ্জুরের জন্য আদালতের কাছে প্রার্থনা জানায়। আদালত শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

এদিকে বরখাস্ত ওসি প্রদীপের পক্ষে আদালতে লড়ার জন্য গত দুই দিন ধরে চট্টগ্রামের ৭ আইনজীবী কক্সবাজারে অবস্থান করছিলেন।

ওই আইনজীবীদের মধ্যে আহছানুল হক হেনা প্রদীপের পুনরায় রিমান্ড নামঞ্জুরসহ জামিনের আবেদন জানান। আদালত আসামী পক্ষের আবেদন নামঞ্জুর করেন।

প্রদীপের আইনজীবী আহছানুল হক হেনা ও ব্যারিস্টার সাঈদ আহসান জানান, অবসরপ্রাপ্ত সিনহা হত্যাকাণ্ডের মামলার এজাহারে প্রদীপের গুলি করার কোনো তথ্য নেই। ঘটনার স্থান আর ওই সময়ে প্রদীপের অবস্থান প্রায় ৩২ কিলোমিটার দূরত্ব। সুতরাং প্রদীপকে বারংবার রিমান্ডে নেয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই। আদালতকে আমরা বোঝানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু ব্যর্থ হয়েছি। সুতরাং দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা ওসি প্রদীপের জন্য উচ্চ আদালতে যাব।

আইনজীবী আহছানুল হক হেনা বলেন, মামলার এজাহার মতে আমরা অবশ্যই উচ্চ আদালতে ভাল ফলাফল পাব। কারণ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সঙ্গে ওসি প্রদীপের সরাসরি সংশ্লিষ্টতার কোনো তথ্য এজাহারে নেই।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-১৫ এর সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) খায়রুল ইসলাম বলেন, মামলার অধিকতর তদন্তের স্বার্থে মূল অভিযুক্ত তিনজনের আরও চারদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হয়েছিল। আসামিদের পুনরায় রিমান্ডের বিরোধিতা এবং জামিন আবেদন করেন চট্টগ্রাম থেকে আসা আইনজীবীরা।

কিন্তু শুনানি শেষে তাদের আবেদন নাকচ করে বিচারক তামান্না ফারাহ আসামিদের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এই রিমান্ড মামলার অধিকতর তদন্তের জন্য বড় সহায়ক হিসেবে কাজ দেবে।

তিনি আরও বলেন, এই তিন দিনের রিমান্ড করার জন্য আসামীদের পুনরায় র‌্যাব-১৫ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এর পূর্বে ২৪ আগস্ট ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশের দ্বিতীয় দফায় চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন একই আদালত। তার আগে আসামিদের সাতদিনের রিমান্ড শেষ হয় ওইদিন।

দ্বিতীয় দফা রিমান্ড শেষে শুক্রবার তাদের আদালতে হাজির করে পুনরায় রিমান্ড আবেদন করা হয়েছিল। এই পর্যন্ত সিনহা হত্যা মামলায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত ও এসআই নন্দ দুলালের মোট ১৪ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালত।

‘ওসি প্রদীপের জামিনের জন্য হাইকোর্টে যাব’

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
২৮ আগস্ট ২০২০, ০৭:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যার ঘটনায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপকে বারবার রিমান্ডে না নেয়া এবং তার জামিনের জন্য উচ্চ আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী।

জানা গেছে, দ্বিতীয় দফায় চারদিনের রিমান্ড শেষে শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে মামলার অন্যতম তিন আসামী বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দদুলাল রক্ষিতকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহ।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তফা জানান, মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা অধিকতর তদন্তের স্বার্থে তৃতীয় দফায় ৪ দিনের রিমান্ডে আবেদন জানান। এটি একটি স্পর্শকাতর মামলা হিসেবে রিমান্ড মঞ্জুরের জন্য আদালতের কাছে প্রার্থনা জানায়। আদালত শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। 

এদিকে বরখাস্ত ওসি প্রদীপের পক্ষে আদালতে লড়ার জন্য গত দুই দিন ধরে চট্টগ্রামের ৭ আইনজীবী কক্সবাজারে অবস্থান করছিলেন। 

ওই আইনজীবীদের মধ্যে আহছানুল হক হেনা প্রদীপের পুনরায় রিমান্ড নামঞ্জুরসহ জামিনের আবেদন জানান। আদালত আসামী পক্ষের আবেদন নামঞ্জুর করেন। 

প্রদীপের আইনজীবী আহছানুল হক হেনা ও ব্যারিস্টার সাঈদ আহসান জানান, অবসরপ্রাপ্ত সিনহা হত্যাকাণ্ডের মামলার এজাহারে প্রদীপের গুলি করার কোনো তথ্য নেই। ঘটনার স্থান আর ওই সময়ে প্রদীপের অবস্থান প্রায় ৩২ কিলোমিটার দূরত্ব। সুতরাং প্রদীপকে বারংবার রিমান্ডে নেয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই। আদালতকে আমরা বোঝানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু ব্যর্থ হয়েছি। সুতরাং দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা ওসি প্রদীপের জন্য উচ্চ আদালতে যাব। 

আইনজীবী আহছানুল হক হেনা বলেন, মামলার এজাহার মতে আমরা অবশ্যই উচ্চ আদালতে ভাল ফলাফল পাব। কারণ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সঙ্গে ওসি প্রদীপের সরাসরি সংশ্লিষ্টতার কোনো তথ্য এজাহারে নেই। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাব-১৫ এর সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) খায়রুল ইসলাম বলেন, মামলার অধিকতর তদন্তের স্বার্থে মূল অভিযুক্ত তিনজনের আরও চারদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হয়েছিল। আসামিদের পুনরায় রিমান্ডের বিরোধিতা এবং জামিন আবেদন করেন চট্টগ্রাম থেকে আসা আইনজীবীরা। 

কিন্তু শুনানি শেষে তাদের আবেদন নাকচ করে বিচারক তামান্না ফারাহ আসামিদের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এই রিমান্ড মামলার অধিকতর তদন্তের জন্য বড় সহায়ক হিসেবে কাজ দেবে। 

তিনি আরও বলেন, এই তিন দিনের রিমান্ড করার জন্য আসামীদের পুনরায় র‌্যাব-১৫ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।  

এর পূর্বে ২৪ আগস্ট ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশের দ্বিতীয় দফায় চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন একই আদালত। তার আগে আসামিদের সাতদিনের রিমান্ড শেষ হয় ওইদিন। 

দ্বিতীয় দফা রিমান্ড শেষে শুক্রবার তাদের আদালতে হাজির করে পুনরায় রিমান্ড আবেদন করা হয়েছিল। এই পর্যন্ত সিনহা হত্যা মামলায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত ও এসআই নন্দ দুলালের মোট ১৪ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালত।

 

ঘটনাপ্রবাহ : মেজর সিনহার মৃত্যু

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন