বন্যায় বিধ্বস্ত সড়ক, ভোগান্তিতে কুড়িগ্রামের ৫ লক্ষাধিক মানুষ
jugantor
বন্যায় বিধ্বস্ত সড়ক, ভোগান্তিতে কুড়িগ্রামের ৫ লক্ষাধিক মানুষ

  কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি  

২৮ আগস্ট ২০২০, ১৯:৪৭:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রামে তিন দফা দীর্ঘ বন্যায় কাঁচা-পাকা সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভার্ট বিধ্বস্ত হওয়ায় ভেঙ্গে পড়েছে গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা। এ অবস্থায় বন্যাপরবর্তী সময়ে যাতায়াতের চরম দুর্ভোগে পড়েছেন চরাঞ্চলসহ বন্যাদুর্গত এলাকার প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ।

ব্যাহত হয়ে পড়েছে তাদের এসব এলাকার মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা মেরামতের জন্য সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৬২ কোটি টাকা।

এবারের দেড় মাসের টানা বন্যায় প্লাবিত হয়ে পড়ে কুড়িগ্রামের ৯ উপজেলার ৫৬ ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা। এতে সরকারি হিসেবেই সম্পূর্ণ ও আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ১৯১ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৬৩টি ব্রিজ, ১৮১টি কালভার্ট, ১ হাজার ১৪৫ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক ও ১৩৭ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসন ৯ উপজেলায় সবগুলো বিভাগের সমন্বয়ে কাঁচা-পাকা সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভাটের ক্ষতি নিরূপণ করে এগুলো নতুন করে তৈরি, মেরামত ও সংস্কারের জন্য তালিকা ও ব্যয়ের পরিমাণ নির্ধারণ করে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম।

জেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্যমতে, জেলায় সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ৮ দশমিক ৮০ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৪০১ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক, ২১ কিলোমিটার নদ-নদীর তীর রক্ষা বাঁধ, ৬টি ব্রিজ ও ১০টি কালভার্ট। আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ১৮৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৭৪৪ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক, ১১৬ কিলোমিটার নদ-নদীর তীর রক্ষা বাঁধ, ৫৭টি ব্রিজ ও ১৭১টি কালভার্ট।

নতুন করে এসব সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভার্ট তৈরি ও সংস্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে- সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ৫০ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ১০ লাখ টাকা, সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত কাঁচা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ৩ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত কাঁচা সড়কে ১ লাখ টাকা। এছাড়াও সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজে ৩৫ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজে ৫ লাখ টাকা, সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত কালভার্টে ৩ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত কালভার্টে ২ লাখ টাকা এবং সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে ১০ লাখ টাকা ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে ৫ লাখ টাকা। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থায় মোট বায়ের পরিমাণ প্রায় ৬২ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। এ তালিকা অনুমোদন দিয়ে অর্থ ছাড় সাপেক্ষে জেলার সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে কাজ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

এদিকে বন্যার সময় চরম দুর্ভোগে দিন পার করা জেলার প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক চরাঞ্চলসহ নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ বন্যাপরবর্তী সময়েও ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা-ঘাটে চরম দুর্ভোগ নিয়ে জীবন-জীবিকার চাহিদা মেটাচ্ছেন। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার সড়কে কোনো যানবাহন চলাচল করতে না পারায় পায়ে হেঁটে হাট-বাজার, অফিস-আদালতসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা নিতে উপজেলা বা জেলা শহরের হাসপাতালে আসতে হচ্ছে তাদের। এ অবস্থায় স্থানীয় মানুষজন সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলো চলাচলের জন্য নিজেরাই বাঁশের সাঁকো বানিয়ে চলাচলের চেষ্টা করছেন।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের গারুহারা গ্রামের আবুল হোসেন জানান, রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় খুব কষ্ট করে হেঁটে হাট-বাজারে যেতে হচ্ছে। এ অবস্থায় কোনো কিছু বাজারে নিয়ে যেতেও কষ্ট আবার আনতেও কষ্ট। মাথায় করে বহন করে আনা-নেয়া করতে হচ্ছে।

যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, গত বন্যায় আমার পুরো ইউনিয়নটিই বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছিল। এতে কোনো রাস্তা-ঘাটের অবস্থাই এখন ভালো নেই। জরুরি প্রয়োজনে মানুষজন রোগী নিয়ে দ্রুত হাসপাতালেও যেতে পারছেন না।

কুড়িগ্রাম স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ আব্দুল আজিজ জানান, বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলায় শুধু এলজিইডির ১২৮ কিলোমিটার পাকা সড়ক আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। এছাড়াও ৩১টি ব্রিজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে যেগুলো রিপ্লেসমেন্ট করতে হবে। আমরা তালিকা করে চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে পাঠিয়েছি পাশাপাশি জেলা প্রশাসকের কাছেও পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলে দ্রুত কাজ করা হবে।

কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, জেলার সব বিভাগের সমন্বয়ে বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এবারের বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলায় ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৪১৮ কোটি টাকা। বরাদ্দ পেলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করা হবে।

বন্যায় বিধ্বস্ত সড়ক, ভোগান্তিতে কুড়িগ্রামের ৫ লক্ষাধিক মানুষ

 কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি 
২৮ আগস্ট ২০২০, ০৭:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রামে তিন দফা দীর্ঘ বন্যায় কাঁচা-পাকা সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভার্ট বিধ্বস্ত হওয়ায় ভেঙ্গে পড়েছে গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা। এ অবস্থায় বন্যাপরবর্তী সময়ে যাতায়াতের চরম দুর্ভোগে পড়েছেন চরাঞ্চলসহ বন্যাদুর্গত এলাকার প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ।

ব্যাহত হয়ে পড়েছে তাদের এসব এলাকার মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা মেরামতের জন্য সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৬২ কোটি টাকা।

এবারের দেড় মাসের টানা বন্যায় প্লাবিত হয়ে পড়ে কুড়িগ্রামের ৯ উপজেলার ৫৬ ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা। এতে সরকারি হিসেবেই সম্পূর্ণ ও আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ১৯১ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৬৩টি ব্রিজ, ১৮১টি কালভার্ট, ১ হাজার ১৪৫ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক ও ১৩৭ কিলোমিটার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসন ৯ উপজেলায় সবগুলো বিভাগের সমন্বয়ে কাঁচা-পাকা সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভাটের ক্ষতি নিরূপণ করে এগুলো নতুন করে তৈরি, মেরামত ও সংস্কারের জন্য তালিকা ও ব্যয়ের পরিমাণ নির্ধারণ করে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম।

জেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্যমতে, জেলায় সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ৮ দশমিক ৮০ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৪০১ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক, ২১ কিলোমিটার নদ-নদীর তীর রক্ষা বাঁধ, ৬টি ব্রিজ ও ১০টি কালভার্ট। আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ১৮৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক, ৭৪৪ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক, ১১৬ কিলোমিটার নদ-নদীর তীর রক্ষা বাঁধ, ৫৭টি ব্রিজ ও ১৭১টি কালভার্ট।

নতুন করে এসব সড়ক, বাঁধ ও ব্রিজ-কালভার্ট তৈরি ও সংস্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে- সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ৫০ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত পাকা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ১০ লাখ টাকা, সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত কাঁচা সড়কে কিলোমিটার প্রতি ৩ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত কাঁচা সড়কে ১ লাখ টাকা। এছাড়াও সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজে ৩৫ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত ব্রিজে ৫ লাখ টাকা, সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত কালভার্টে ৩ লাখ টাকা, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত কালভার্টে ২ লাখ টাকা এবং সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে ১০ লাখ টাকা ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ নির্মাণে ৫ লাখ টাকা। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থায় মোট বায়ের পরিমাণ প্রায় ৬২ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। এ তালিকা অনুমোদন দিয়ে অর্থ ছাড় সাপেক্ষে জেলার সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে কাজ শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

এদিকে বন্যার সময় চরম দুর্ভোগে দিন পার করা জেলার প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক চরাঞ্চলসহ নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ বন্যাপরবর্তী সময়েও ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা-ঘাটে চরম দুর্ভোগ নিয়ে জীবন-জীবিকার চাহিদা মেটাচ্ছেন। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার সড়কে কোনো যানবাহন চলাচল করতে না পারায় পায়ে হেঁটে হাট-বাজার, অফিস-আদালতসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা নিতে উপজেলা বা জেলা শহরের হাসপাতালে আসতে হচ্ছে তাদের। এ অবস্থায় স্থানীয় মানুষজন সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলো চলাচলের জন্য নিজেরাই বাঁশের সাঁকো বানিয়ে চলাচলের চেষ্টা করছেন।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের গারুহারা গ্রামের আবুল হোসেন জানান, রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় খুব কষ্ট করে হেঁটে হাট-বাজারে যেতে হচ্ছে। এ অবস্থায় কোনো কিছু বাজারে নিয়ে যেতেও কষ্ট আবার আনতেও কষ্ট। মাথায় করে বহন করে আনা-নেয়া করতে হচ্ছে।

যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, গত বন্যায় আমার পুরো ইউনিয়নটিই বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছিল। এতে কোনো রাস্তা-ঘাটের অবস্থাই এখন ভালো নেই। জরুরি প্রয়োজনে মানুষজন রোগী নিয়ে দ্রুত হাসপাতালেও যেতে পারছেন না।

কুড়িগ্রাম স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ আব্দুল আজিজ জানান, বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলায় শুধু এলজিইডির ১২৮ কিলোমিটার পাকা সড়ক আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। এছাড়াও ৩১টি ব্রিজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে যেগুলো রিপ্লেসমেন্ট করতে হবে। আমরা তালিকা করে চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে পাঠিয়েছি পাশাপাশি জেলা প্রশাসকের কাছেও পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলে দ্রুত কাজ করা হবে।

কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, জেলার সব বিভাগের সমন্বয়ে বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এবারের বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলায় ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৪১৮ কোটি টাকা। বরাদ্দ পেলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করা হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : বন্যা ২০২০

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন