পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে পৌর মেয়রের দায়িত্ব নিলেন পার্বত্য মন্ত্রী!
jugantor
পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে পৌর মেয়রের দায়িত্ব নিলেন পার্বত্য মন্ত্রী!

  বান্দরবান প্রতিনিধি  

৩১ আগস্ট ২০২০, ১৫:৩২:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে পৌর মেয়রের দায়িত্ব নিলেন পার্বত্য মন্ত্রী!

সমন্বয়হীনতায় পর্যটন নগরী বান্দরবানের সৌন্দর্য ফুটে উঠছে না। পৌর শহরের সৌন্দর্যহানির জন্য সমন্বয় প্রয়োজন। পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে সৌন্দর্য বর্ধন এবং গোছালো ব্যবস্থাপনা প্রণয়ন করতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় নাগরিকের দায়িত্বও কম নয়।

সোমবার সাড়ে ১১টায় নাগরিক সমাজের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি এ কথা বলেন। বান্দরবান পৌরসভা মিলনায়তনে পৌরসভায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং সুন্দর পর্যটন নগরী করার লক্ষ্যে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে পরিচ্ছন্ন গোছালো পর্যটন নগরী গড়তে অনুষ্ঠান পরিচালনায় ‘পৌর মেয়রের দায়িত্ব নেন পার্বত্য মন্ত্রী! প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী চলমান মুক্ত মতবিনিময়সভায় মেয়রের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।

অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, মন্ত্রী হয়েও পৌর শহরের উন্নয়নে অনুষ্ঠান পরিচালনায় মেয়রের দায়িত্ব পালন করলাম। ব্যবসায়ী সংগঠন, সুশীল সমাজের সঙ্গে মেয়র কাউন্সিলর জনপ্রতিনিধিদের সম্পর্ক বাড়াতে হবে।

নাগরিকদের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিরা দূরত্ব কমিয়ে সম্পর্ক তৈরি করতে পারলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন গোছানো পর্যটন নগরী গড়ে তোলা সম্ভব হবে। পৌর প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বে অবহেলা রয়েছে। পৌর অঞ্চলের রাস্তাঘাট দখল হচ্ছে। কোনো মার্কেটে টয়লেট ও পার্কিংয়ের ব্যবস্থা নেই। কিন্তু অনুমোদিত ডিজাইন প্ল্যানে সব ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

সভায় বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মো. ইসলাম বেবীর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বান্দরবানের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শফিউল আজম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজা সরোয়ার, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুছ, আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুর রহিম চৌধুরী, পূর্বাণী পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শুভ্রত দাস ঝুন্টু, রেস্টুরেন্ট মালিক সমিতির সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মাস্টারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

ব্যবসায়ী আবু মুসা ও শ্রমিক নেতা অভিযোগ করে বলেন, রাস্তাঘাট এবং পৌর বাস টার্মিনাল দখল হয়ে যাচ্ছে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাগুলো সঠিকভাবে করা হয়নি।

পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান ও সৌরভ দাশ শেখর অভিযোগ করে বলেন, কাউন্সিলরদের সঙ্গে পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলীর কোনো সমন্বয় নেই। কাউন্সিলরদের কোনো দায়িত্ব না দিয়ে পৌরসভার মাস্টারোল কর্মচারীদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দায়িত্ব দিয়ে রেখেছেন মেয়র।

কাউন্সিলরদের কোনো পরামর্শ ও নির্দেশনা বাস্তবায়িত হয় না। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে পৌরসভার ড্রেনেজ নির্মাণসহ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলো করা হচ্ছে।

পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে পৌর মেয়রের দায়িত্ব নিলেন পার্বত্য মন্ত্রী!

 বান্দরবান প্রতিনিধি 
৩১ আগস্ট ২০২০, ০৩:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে পৌর মেয়রের দায়িত্ব নিলেন পার্বত্য মন্ত্রী!
ছবি: যুগান্তর

সমন্বয়হীনতায় পর্যটন নগরী বান্দরবানের সৌন্দর্য ফুটে উঠছে না। পৌর শহরের সৌন্দর্যহানির জন্য সমন্বয় প্রয়োজন। পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগরী গড়তে সৌন্দর্য বর্ধন এবং গোছালো ব্যবস্থাপনা প্রণয়ন করতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় নাগরিকের দায়িত্বও কম নয়।

সোমবার সাড়ে ১১টায় নাগরিক সমাজের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি এ কথা বলেন। বান্দরবান পৌরসভা মিলনায়তনে পৌরসভায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং সুন্দর পর্যটন নগরী করার লক্ষ্যে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে পরিচ্ছন্ন গোছালো পর্যটন নগরী গড়তে অনুষ্ঠান পরিচালনায় ‘পৌর মেয়রের দায়িত্ব নেন পার্বত্য মন্ত্রী! প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী চলমান মুক্ত মতবিনিময়সভায় মেয়রের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।

অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, মন্ত্রী হয়েও পৌর শহরের উন্নয়নে অনুষ্ঠান পরিচালনায় মেয়রের দায়িত্ব পালন করলাম। ব্যবসায়ী সংগঠন, সুশীল সমাজের সঙ্গে মেয়র কাউন্সিলর জনপ্রতিনিধিদের সম্পর্ক বাড়াতে হবে।

নাগরিকদের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিরা দূরত্ব কমিয়ে সম্পর্ক তৈরি করতে পারলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন গোছানো পর্যটন নগরী গড়ে তোলা সম্ভব হবে। পৌর প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বে অবহেলা রয়েছে। পৌর অঞ্চলের রাস্তাঘাট দখল হচ্ছে। কোনো মার্কেটে টয়লেট ও পার্কিংয়ের ব্যবস্থা নেই। কিন্তু অনুমোদিত ডিজাইন প্ল্যানে সব ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

সভায় বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মো. ইসলাম বেবীর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বান্দরবানের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শফিউল আজম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজা সরোয়ার, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুছ, আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুর রহিম চৌধুরী, পূর্বাণী পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শুভ্রত দাস ঝুন্টু, রেস্টুরেন্ট মালিক সমিতির সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মাস্টারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

ব্যবসায়ী আবু মুসা ও শ্রমিক নেতা অভিযোগ করে বলেন, রাস্তাঘাট এবং পৌর বাস টার্মিনাল দখল হয়ে যাচ্ছে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাগুলো সঠিকভাবে করা হয়নি।

পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান ও সৌরভ দাশ শেখর অভিযোগ করে বলেন, কাউন্সিলরদের সঙ্গে পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলীর কোনো সমন্বয় নেই। কাউন্সিলরদের কোনো দায়িত্ব না দিয়ে পৌরসভার মাস্টারোল কর্মচারীদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দায়িত্ব দিয়ে রেখেছেন মেয়র।

কাউন্সিলরদের কোনো পরামর্শ ও নির্দেশনা বাস্তবায়িত হয় না। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে পৌরসভার ড্রেনেজ নির্মাণসহ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলো করা হচ্ছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন