সাতক্ষীরা পৌরসভার দুই লাখ লোকের অর্ধেকই পানিবন্দি
jugantor
সাতক্ষীরা পৌরসভার দুই লাখ লোকের অর্ধেকই পানিবন্দি

  সাতক্ষীরা প্রতিনিধি  

০১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:১২:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বিধি না মেনে যেখানে সেখানে গৃহনির্মাণের অনুমতি দেয়া এবং পৌরসভার মধ্যেই অপরিকল্পিতভাবে বাঁধ দিয়ে পানি নিষ্কাশনের সব পথ বন্ধ করে দেয়ার প্রতিবাদে সাতক্ষীরা পৌরসভা ঘেরাও করেছে জেলা নাগরিক কমিটি।

শহরের এক-তৃতীয়াংশ মরিচ্চাপ ও বেতনা নদীর পানির চাপে বছরের ছয় মাস জলাবদ্ধ থাকে বলে অভিযোগ করেন কমিটির নেতারা। তারা বলেন, সাম্প্রতিক জোয়ার ও বৃষ্টির পানিতে সাতক্ষীরা পৌরসভার দুই লাখ জনগোষ্ঠীর অর্ধেকই এখন পানিবন্দি। তাদের অবস্থা নানা কারণে মানবেতর হয়ে উঠেছে।

তারা বলেন, পানিবন্দি থাকায় যাতায়াতের পথ এবং কর্মসংস্থান হারিয়ে মানুষের জীবনযাত্রা ব্যাহত হবার উপক্রম হয়েছে। একই সঙ্গে শহরের প্রাণসায়ের খাল বর্জ্যে পরিণত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নাগরিক কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ আনিসুর রহিমের নেতৃত্বে সাতক্ষীরা পৌরসভা ঘেরাও এবং মানববন্ধন চলাকালে এসব কথা বলেন বক্তারা।

৫ দফা দাবি তুলে ধরে তারা বলেন, অবিলম্বে পানি নিষ্কাশনের বাধা দূর করতে হবে। পানি নিষ্কাশনের পথ ছাড়া কোনো বাড়ি নির্মাণের অনুমতি দেয়া যাবে না। একই সঙ্গে পৌরসভার ঘের উচ্ছেদ, রাস্তা সংস্কার, নর্দমা সংস্কার করে পানিপ্রবাহ সচল করতে হবে।

ঘেরাও কর্মসূচি ও মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন- অধ্যক্ষ আবদুল হামিদ, অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, আবুল কালাম আজাদ, আজাদ হোসেন বেলাল, আনোয়ার জাহিদ তপন, মাধব চন্দ্র দত্ত, অপরেশ পাল প্রমুখ।

সাতক্ষীরা পৌরসভার দুই লাখ লোকের অর্ধেকই পানিবন্দি

 সাতক্ষীরা প্রতিনিধি 
০১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিধি না মেনে যেখানে সেখানে গৃহনির্মাণের অনুমতি দেয়া এবং পৌরসভার মধ্যেই অপরিকল্পিতভাবে বাঁধ দিয়ে পানি নিষ্কাশনের সব পথ বন্ধ করে দেয়ার প্রতিবাদে সাতক্ষীরা পৌরসভা ঘেরাও করেছে জেলা নাগরিক কমিটি।

শহরের এক-তৃতীয়াংশ মরিচ্চাপ ও বেতনা নদীর পানির চাপে বছরের ছয় মাস জলাবদ্ধ থাকে বলে অভিযোগ করেন কমিটির নেতারা। তারা বলেন, সাম্প্রতিক জোয়ার ও বৃষ্টির পানিতে সাতক্ষীরা পৌরসভার দুই লাখ জনগোষ্ঠীর অর্ধেকই এখন পানিবন্দি। তাদের অবস্থা নানা কারণে মানবেতর হয়ে উঠেছে।

তারা বলেন, পানিবন্দি থাকায় যাতায়াতের পথ এবং কর্মসংস্থান হারিয়ে মানুষের জীবনযাত্রা ব্যাহত হবার উপক্রম হয়েছে। একই সঙ্গে শহরের প্রাণসায়ের খাল বর্জ্যে পরিণত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নাগরিক কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ আনিসুর রহিমের নেতৃত্বে সাতক্ষীরা পৌরসভা ঘেরাও এবং মানববন্ধন চলাকালে এসব কথা বলেন বক্তারা।

৫ দফা দাবি তুলে ধরে তারা বলেন, অবিলম্বে পানি নিষ্কাশনের বাধা দূর করতে হবে। পানি নিষ্কাশনের পথ ছাড়া কোনো বাড়ি নির্মাণের অনুমতি দেয়া যাবে না। একই সঙ্গে পৌরসভার ঘের উচ্ছেদ, রাস্তা সংস্কার, নর্দমা সংস্কার করে পানিপ্রবাহ সচল করতে হবে।

ঘেরাও কর্মসূচি ও মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন- অধ্যক্ষ আবদুল হামিদ, অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, আবুল কালাম আজাদ, আজাদ হোসেন বেলাল, আনোয়ার জাহিদ তপন, মাধব চন্দ্র দত্ত, অপরেশ পাল প্রমুখ।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন